এসো হাদিস পড়ি ?
এসো হাদিস পড়ি ?
হাদিস অনলাইন ?

দাব্বাতুল আরদের আগমন

একটি আরবি শব্দ ডাবল ক্লিক করে তার অভিধান এন্ট্রি দেখায়
হাদিস - ১৮৫১
হযরত আবু সারীহা রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন দাব্বাহ এর জন্য যমানা হতে তিনটি খারজা তথা বহির্গমণ হবে। একটি বহির্গমন হবে ছোট ইয়ামানে। আর উক্ত বহির্গমন দাব্বাহ এর আলোচনা প্রত্যন্ত গ্রাম্যবাসীদের মধ্যে ছড়িয়ে দিবে। উহার আলোচনা গ্রাম অর্থাৎ মক্কায় প্রবেশ করবে না। অতপর দীর্ঘ এক যমানা অতিবাহিত হবে। অতপর আরেকটি বহির্গমন মক্কার নিকটবর্তী এলাকায় হবে। অতপর দাব্বাহ এর আলোচনা প্রত্যন্ত গ্রামে ছড়িয়ে পড়বে। অতপর দীর্ঘ যমানা অতিবাহিত হবে। অতপর একদিন মানুষের মাঝে বড় মসজিদে আল্লাহ তা’আলার নিকট হরম তথা সম্মানিত, উক্ত মসজিদের সম্মান ও মঙ্গল আল্লাহ তা’আলার উপর, আর তা হল মসজিদে হারাম। মসজিদের পার্শ্ব ব্যতীত তাদের কেহ লক্ষ করবে না। তারা রুকনে আসওয়াদের মাঝখান হতে বনু মাখযুমের দরজা, বাহিরের ডান পার্শ্ব হতে মসজিদ পর্যন্ত বৃদ্ধি পাবে। মানুষ উহা দৃঢ়ভাবে প্রত্যাখ্যান করবে। আর মুসলমানদের একটি দল তাদের গ্রহণ করবে। আর তারা বুঝবে যে, তারা আল্লাহ তা’আলাকে অক্ষম করতে পারবে না। উহা তাদের উপর বের হবে উহা মাথা হতে মাটি পরিস্কার করবে। অতপর উহা তাদের নিকট প্রকাশ পাবে। আর তাদের চেহারা উজ্জলিত হয়ে উঠবে। এমনকি সে উহা প্রত্যাখ্যান করবে কেমন যেন উহা প্রজ্জলিত তারকারাজি। অতপর উহা পৃথীবিতে ফিরে আসবে এমতবস্থায় যে, কোন অনুসন্ধানকারী উহাকে পাবে না। কোন পালায়নকারী উহাকে পরাজিত করতে পারবে না। এমনকি নিশ্চই মানুষ নামাজের মাধ্যমে তার হতে আশ্রয় প্রার্থনা করবে। অতপর উহা তার পিছন হতে আসবে। অতপর বলবে, হে অমুক ব্যক্তি তুমি এখন নামাজ আদায় কর। অতপর উহা তার চেহারার সামনে যাবে। এবং তার চেহারায় স্পর্শ করবে। অতপর মানুষ তাদের বাসস্থানের পাশাপাশি বসবাস করবে। তারা তাদের সফরে সাথী হবে। তারা তাদের কাজে শরীক হবে। মুমিন হতে কাফেরকে চেনা যাবে। এমনকি নিশ্চই কোন কাফের মুমিনকে উদ্দেশ্য করে বলবে যে, হে মুমিন! আমার হকের ফয়সালা কর। এমনিভাবে কোন মুমিনও বলবে হে কাফের! আমার হকের ফায়সালা কর।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৮৫১ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1851
আমাদের বলুন পুত্র এর তালহা ইবনে আমর থেকে দান 
আবু পরজীবী থেকে হযরত আবদুল্লাহ ইবনে ওবায়েদ ইবনে আমের Laithi 
আবু সেগমেন্ট ওয়াসাল্লাম বলেছেন 
, আল্লাহ , শান্তি তাঁর জন্তু বয়স Kharja তিন আউটপুট মধ্যে বিভক্ত ওয়া সাল্লাম পর্যন্ত ইমেন Vev_o 
উল্লেখ মরুভূমি মানুষ প্রবেশ করো না উল্লেখ গ্রাম মানে মক্কা এবং তারপর থাকার একটি জন্য যে পরে দীর্ঘ সময় এবং 
তারপর অন্য Kharja মক্কা Vev_o কাছ থেকে শীঘ্রই আসা আউট উল্লিখিত Balbadah এবং তারপর থাকার একটি জন্য দীর্ঘ সময় , এবং যখন 
দিন মানুষ সর্বশ্রেষ্ঠ মসজিদ যখন ঈশ্বর পবিত্রতা এবং ধার্মিকতা ও সম্মান আল্লাহ মসজিদ 
ভক্তিমূলক মসজিদ করেনি না Arahm শুধুমাত্র মধ্যে পদ এর মসজিদ আনতে আপ মধ্যে কালো কোণ নির্মিত দরজা 
উপর Makhzoom বাহিরে ডান হাত মসজিদ নামঞ্জুর করার জন্য মানুষ তুপি আছে একজন তার গ্যাং প্রতিপাদন 
মুসলমান ও জানত তারা চাই Aadzoa ঈশ্বর , তারা তার মাথা কম্পনের থেকে বেরিয়ে আসেন বন্ধ ধুলো এর তাদের আপাতভাবে বিদ্যমান
Fjelt এমনকি গ্রহ দারি মত বাম মুখ এবং তারপর পৃথিবীতে চলে না বোঝা একটি দ্বারা ছাত্র কিংবা 
আশ্রয় মানুষ পর্যন্ত Aadzha পলাতক সঙ্গে তাদের কাছে তার পিছনের সংঘাত প্রার্থনা , 
তিনি বলেছেন কোন 
ব্যক্তি এখন নামায পড়ে 
তাকে পরাভুত সঙ্গে তার মুখ দিয়ে তাঁর মুখ Vtzmh এবং তারপর Vigeor লোকদের যেতে 
নিজেদের বাস্তুভিটা ও Astahbun তাদের ভ্রমনের এবং টাকা ভাগ এবং জানে অবিশ্বাসী ঈমানদার থেকে, যাতে 
অবিশ্বাসী বিশ্বাসীকে বলবে, 
হে বিশ্বাসী, আমি আমার অধিকার করবো
হাদিস - ১৮৫২
হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আমর ইবনে আস রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন আজইয়াদের এক উপত্যকা হতে দাব্বাহ বের হবে। উহার মাথা মেঘ স্পর্শ করবে। উহার দুই পা যমিন থেকে বের হবে না. এমনকি এক ব্যক্তি আসবে আর সে নামাজ আদায় করতে থাকবে। অতপর দাব্বাহ বলবে নামাজতো তোমার প্রয়জনীয় নয়। তবে নামাজটা আশ্রয় প্রার্থনা বা লোক দেখানোর জন্য হবে। অতপর দাব্বাহ তাকে লাগাম দিবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৮৫২ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 185২
ইবনে ওয়াহাব ওমর ইবনে মালেক Sharabi থেকে ইবনে Alhad আমাকে ওমর ইবনুল বলেন - হাকাম 
ইবনে Thawbaan 
আব্দুল্লাহ ইবনে আমর ইবনুল থেকে - আস বলেন থেকে পশু মানুষ তার মাথা আউট Balogiad 
স্পর্শ মেঘ এবং থেকে shackled পা বেরিয়ে আসেন স্থল পর্যন্ত মানুষ আসে যেমন তিনি প্রার্থিত , তিনি বলেছেন প্রার্থনা 
আপনার প্রয়োজন নেই এই ভণ্ডামি এবং ভণ্ডামি চেয়ে আর আর নেই
হাদিস - ১৮৫৩
হযরত ওহাব ইবনে মানবাহ রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন কিয়ামাতের নিদর্শনাবলীর প্রথম হল রোম অতপর দাজ্জাল, তৃতীয় ইয়াজুয মাজুয, চতূর্থ ঈসা ইবনে মারিয়াম আলাইহিস সালাম। পঞ্চম ধোঁয়া। ষষ্ঠতে দাব্বাহ।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৮৫৩ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1853
ইবনে আবু আইয়াশ সম্পর্কে আমাদের বলুন , থেকে marauding 
Hadramout থেকে শেখ 
ওয়াহাব বিন বিপদাশঙ্কা থেকে প্রথম আয়াত এর রোমানদের এবং তারপর খ্রীষ্টশত্রু এবং তৃতীয় বলেন ইয়াজুজ 
ও মাজুজ এবং চতুর্থ পুত্র ঈসা এর মেরি, পঞ্চম এবং ষষ্ঠ পশু ধোঁয়া
হাদিস - ১৮৫৪
আল্লাহ তা’আলার বাণী ”যখন ঘোষিত শাস্তি উহাদের নিকট আসিবে, তখন আমি মৃত্তিকাগর্ভ হইতে বাহির করিব এক জীব। যাহা উহাদের সহিত কথা বলিবে।” (সূরা নামল।) এর ব্যাপারে হযরত ইবনে উমর রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন যখন তারা সৎ কাজে আদেশ দিবে না। এবং যখন তারা অসৎ কাজ থেকে নিষেধ করবে না।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৮৫৪ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1854
আমাদের বলুন 
আবু সিদ আমাদের Obeid বলেন - আল্লাহ ইবনুল - ওয়ালিদ Alosafa 
জন্য উপহার [সম্পর্কে] ইবনে ওমর যেমন বলছে 
যদি স্বাক্ষরিত পরাক্রমশালী থেকে তারা আমাদের বের করে আনা বলতে করার জন্য তাদের কাছ থেকে পৃথিবীর জীব আলাপ করতে সেগুলিকে [ বীজে পিঁপড়ে না ধরতে] বললেন আপনি করা হয়নি 
অর্ডার প্রোমোশন এর ফজিলত এবং তাদের মন্দ সম্পন্ন হয়নি
হাদিস - ১৮৫৫
হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন (কিয়ামাতের আলামত হল) দাজ্জাল, ইয়াজুযÑমাজুয, দাব্বাহ, পশ্চিম দিক হতে সূর্য্যদয়।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৮৫৫ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1855
আমর আবদুল ওয়াহাব সম্পর্কে হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ সম্পর্কে 
হযরত 
আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদকে বলুন, দাজ্জাল ও আওগ ও মাগোগ এবং 
মরক্কোর সূর্যোদয়
হাদিস - ১৮৫৬
হযরত আব্দুল্লাহ রাযিয়াল্লাহু আনহু রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হতে বর্ণনা করেন যে, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন হযরত ঈসা ইবনে মারিয়াম আলাইহিস সালামের ঐসমস্ত সাথী যারা তার সাথে দাজ্জালের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করবে তারা দাব্বাতুল আরদ বের হওয়ার পর চল্লিশ বছর শান্তি ও নিরাপত্তার সাথে জীবিত থাকবে। (বসবাস করবে।)
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৮৫৬ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1856
আমাদের আবু ওমর ইবনে Hiệp আব্দ ওয়াহাব বিন হুসাইন মুহাম্মদ বিন বলুন 
হারেস থেকে তার বাবার কাছ থেকে ধ্রুবক 
থেকে আব্দুল্লাহ হতে উপরে তাকে নবী শান্তি , হয়েছে 
যীশু পুত্র এর মেরি , মালিকদের এর শান্তি হতে তাকে তার সাথে যারা লড়াই উপর খ্রীষ্টশত্রু পর দুর্ভিক্ষ এর পৃথিবীর জন্তু 
চল্লিশ বছর অনুগ্রহ ও নিরাপত্তা
হাদিস - ১৮৫৭
হযরত আব্দুল্লাহ রাযিয়াল্লাহু আনহু রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হতে বর্ণনা করেন যে, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন (পশ্চিম দিক হতে) সূর্য্যদয়ের পর দাব্বাহ এর অবির্ভাব হবে। যখন দাব্বাতুল আরদ বের হবে তখন দাব্বাতুল আরদ ইবলিসকে হত্যা করবে। আর তখন ইবলিশ বা শয়তান সিজদা অবস্থায় থাকবে। আর ঐঘটনার পর মুমিনগণ চল্লিশ বছর জীবিত থাকবে। তারা কোন কিছুর আশা আকাংখা করবে না। বরং তাদেরকে দেওয়া হবে, আর তারা তা পাবে। সুতরাং কোন অভাব, কোন অত্যাচার থাকবে না। আর সকল জিনিস চাই ইচ্ছায় হোক বা অনিচ্ছায় হোক সমস্ত জগতের প্রভূর নিকট আত্মসমর্পণ করবে। মুমিনগণ স্বচ্ছায় আত্মসমর্পণ করবে। আর কাফেরগণ অনিচ্ছায় আত্মসমর্পণ করবে। এমনকি হিংশ্র প্রাণী কোন চতুস্পদ জন্তু বা কোন পাখিকে কষ্ট দিবে না। আর মুমিনগণ জন্ম গ্রহণ করবে। ফলে তারা দাব্বাতুল আরদ বের হওয়ার চল্লিশ বছর পূর্ণ না হওয়া পর্যন্ত তারা মৃত্যু বরণ করবে না। অতপর তাদের মধ্যে আবার মৃত্যু ফিরে আসবে। অতপর তারা ঐঅবস্থায় আল্লাহ তা’আলা যেভাবে চান বসবাস করবে। অতপর মুমিনদের মধ্যে মৃত্যুর হার বেড়ে যাবে। ফলে কোন মুমিন জীবিত থাকবে না। অতপর কাফেরগণ বলবে আমরা মুুমিনদের থেকে ভীত ছিলাম। আর এখন তাদের থেকে কেউ জীবিত নেই। আর আমাদের থেকে কারো তওবা কবুল করা হবে না। সুতরাং আমাদের কি হল যে, আমরা আমাদের একে অপরের উপর আক্রমন করতেছিনা। অতপর তারা রাস্তা ঘাটে পশুর ন্যায় একে অপরের সাথে লড়াই করবে। তাদর একজন তাদের মাতা, বোন, কন্যার সাথে বিবাহের প্রস্তাব দিবে। অতপর রাস্তার মাঝখানে বিবাহ করবে। তার সাথে একজন অবস্থান করবে এবং তার উপর অন্যজন অবতীর্ণ হবে। সে এটাকে অপছন্দ করবে না আবার নিষেধও করবে না। আর সেদিন তাদের মধ্যে সর্বোত্তম হবে ঐ ব্যক্তি যে একথা বলবে যে, যদি তোমরা রাস্তা থেকে সরে যেতে তাহলে ভাল হত। তারা এভাবেই থাকতে থাকবে। এমনকি পৃথীবিতে বিবাহ থেকে জন্ম নেওয়া সন্তান অবশিষ্ট থাকবে না। বরং সমগ্র পৃথীবিতে সমন্ত সন্তানই হবে ব্যবিচারের। আল্লাহ তা’আলা যতক্ষণ চান তারা ততক্ষণ এভাবেই বসবাস করতে থাকবে। অতপর আল্লাহ তা’আলা ত্রিশ বছরের জন্য নারীদের বাচ্চাদানীকে বন্ধ্যা করে দিবেন। ফলে কোন নারী সন্তান প্রসব করবে না। আর পৃথীবিতে কোন শিশু থাকবে না। আর তারা সবাই হবে মানুষের মধ্যে সব থেকে নিকৃষ্ট ব্যবিচারের সন্তান। আর তাদের উপরই কিয়ামাত সংগঠিত হবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৮৫৭ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1857
আমাদের আবু ওমর ইবনে Hiệp আব্দ ওয়াহাব বিন বলুন 
হারেস থেকে তার বাবার কাছ থেকে হুসেইন মুহম্মদ ইবনে সাবিত 
থেকে আব্দুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম , শান্তি হতে উপরে 
তাকে এর পশু , সূর্যোদয়ের পর বলেন তাহলে আপনি যেতে আউট পশু নিহত শয়তান , তিনি নতজানু এবং আস্বাদিত 
বিশ্বাসী চল্লিশ বছর পর পৃথিবী , না ইচ্ছুক কিছুই কিন্তু তারা তাকে দিলেন দেখলেন সেখানে হয় কোন অবিচার বা 
নিপীড়ন আছে সবচেয়ে নিরাপদ জিনিষ প্রভু এর বোথ ওয়ার্ল্ডস স্বেচ্ছায় এবং অনিচ্ছাজনিত স্বেচ্ছায় বিশ্বাসী এবং অনিচ্ছাজনিত কাফের এবং সাত 
ও পাখি অনিচ্ছাজনিত যাতে সাত ক্ষতি না একটি প্রাণী বা পাখি এবং দেশ এর বীমাকৃত পর্যন্ত মৃত্যু নেই 
পর চল্লিশ বছর দুর্ভিক্ষ এর পশু জমি এবং তারপর তাদের আসতে মৃত্যুর Vimkthon তাই কি ঈশ্বর ইচ্ছুক, তারপর 
মুমিনদের মধ্যে মৃত্যু দ্রুত গতিতে আর একটি বিশ্বাসী 
বলছেন না নাস্তিক আমরা বিশ্বাস স্থাপনকারীদের মধ্যে আতঙ্কিত আছে 
সেখানে দেরি হল না এর তাদের এবং গ্রহণ তাওবার এর আমাদের , আমরা কি না Ntharj না 
রাস্তায় Viharjon
Tharj Alphaim এক এর তার মাতা, তার বোন , এবং তার মেয়ে বলছেন Venkh মধ্যম এর রাস্তা সম্পর্কে এক এবং অবতরণ 
অন্যের দ্বারা অস্বীকার কিংবা Vovdilhm পরিবর্তন করে না যে দিন 
যদি বলি Tnheetm রাস্তা ছিল 
ভাল তারপর তারা এমনকি এক থাকা না শিশু এর বিবাহ 
এবং সব আছে মানুষ এর পৃথিবী শিশুদের এর 
তাই ঈশ্বরের ইচ্ছা অজাচার Vimkthon তারপর ঈশ্বর sterilizes গর্ভ এর নারী ত্রিশ বছর প্রসব না একটি থেকে 
নারী এবং হতে হবে একটি শিশু জমি এবং তারা হয় সব শিশুদের এর ব্যভিচার সবচেয়ে মন্দ মানুষ এবং তারা 
সময়
হাদিস - ১৮৫৮
হযরত উমর রা, হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন পৃথীবিতে একজন মুমিন থাকা অবস্থায় দাব্বাহ বের হবে না। যদি তোমরা চাও তাহলে তোমরা তেলাওয়াত কর, ”যখন ঘোষিত শাস্তি উহাদের নিকট আসিবে, তখন আমি মৃত্তিকাগর্ভ হইতে বাহির করিব এক জীব। যাহা উহাদের সহিত কথা বলিবে।” (সূরা নামল)
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৮৫৮ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1858
আমাদের বলুন Damra ইবনে Hozb বলেন 
ওমর বলেন পশু বাইরে যেতে না তাই যেমন না করতে 
থাকা জমি লক এবং যদি আপনি চান , এবং পড়ুন , যদি তারা বলে হইতে আমাদিগকে আনা স্বাক্ষরিত পৃথিবী জীব 
আলাপ করতে সেগুলিকে [ বীজে পিঁপড়ে না ধরতে] আয়াতে
হাদিস - ১৮৫৯
হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আমর রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন ফারাসে অবস্থিত সাফার (পাহাড়ের) এক ফাটল হতে দাব্বাহ তিন দিন বের হবে। উহার তৃতয়াংশ বের হবে না।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৮৫৯ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 185২
জন্য হুসেইন Aljafee Fadhil বিন Marzouk সম্পর্কে আমাদের বলুন উপহার এর 
আব্দুল্লাহ ইবনে আমর পশু ক্র্যাক স্নাতক সাফা উপস্থিত ছিলেন বলেন ঘোড়া তিন দিন না 
আউট তৃতীয় আসা
হাদিস - ১৮৬০
হযরত আবু হুরাইরা রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন দাব্বাহ বের হবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৮৬০ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1860
আমাদের আব্দুল সামাদ হাম্মাদ ইবনে সালামা আলী বিন যায়েদ আউস বিন বলুন 
খালিদ 
আবু Hurayrah থেকে তাকে রসূল এর আল্লাহ , সা একটি পশু আউট
হাদিস - ১৮৬১
হযরত হাম্মাদ ইবনে সালামা রাযিয়াল্লাহু আনহু এক সূত্রে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হতে বর্ণনা করেন যে, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন দাব্বাহ বের হবে আর উহার সাথে থাকবে হযরত মুসা আলাইহিস সালামের লাঠি, হযরত সুলাইমান আলাইহিস সালামের আংটি। অতপর লাঠি দ্বারা মুমিনগণের চেহারা উজ্জল করা করবে। আর আংটি দ্বারা কাফেরদের নাকে মহর মারা হবে। এমনকি নিশ্চই খাবার গ্রহণকারীরা একত্রিত হবে। আর তারা বলবে এই হে মুমিন! এই হে কাফের!
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৮৬১ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1861
বলল আবু কাসিম, আমাদের বলেছেন আলী বিন আব্দুল আজিজ জানান আমাদের তীর্থযাত্রীদের ছেলে Almnhal 
আমাদের বলেছেন হাম্মাদ ইবনে সালামা বর্ণিত যে 
নবী , সা , বলেন তিনি পশু স্নাতক এবং এটির সাথে 
মূসা অমান্য এবং সলোমন এর সীল শান্তি হতে তাদের ওপর Vtjlo মুখ এর বিশ্বাসী লাঠি ও Taktm নাক অবিশ্বাসী 
রিং যাতে মানুষ এর Akhawan পূরণের এবং এই বলে , হে বিশ্বাসী এবং এটি কাফের
হাদিস - ১৮৬২
আল্লাহ তা’আলার বাণী ”আমি তাদের জন্য মাটি হতে জন্তু বের করবো” এর তাফসীরের ব্যাপারে হযরত ইবনে আব্বাস রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন উক্ত জন্তু হবে কোমল কেশ ও পালক বিশিষ্ট। উহার চারটি পা থাকবে। উহা তিহামার উপত্যকায় বের হবে। আর হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আমর রাযিয়াল্লাহু আনহু বলেন উহা কাফেরের চেহারায় একটি কালো ফোঁটা একে দিবে। অতপর উক্ত কালো ফোঁটাটি কাফেরের চেহারায় ছড়িয়ে পড়বে। এমনকি কাফেরের সম্পূর্ণ চেহার্ াকালো হয়ে যাবে। আর এমনিভাবে মুমিনের চেহারায় একটি সাদা ফোঁটা একে দিবে। অতপর উক্ত সাদা ফোঁটাটি মুমিনের চেহারায় ঝড়িয়ে পড়বে। এমনকি মুমিনের সম্পূর্ণ চেহারা উজ্জল হয়ে যাবে। অতপর ঘরের লোকজন দস্তরখানের বসবে আর সেখানে তারা মুমিনের থেকে কাফেরকে চিনবে। এমনিভাবে তারা বাজারে ক্রয় বিক্রয় করবে তখনও তারা মুমিনের থেকে কাফেরকে চিনবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৮৬২ ]
___________________________________
নঈম বিন হাম্মাদ - 186২
আমাদের আব্দুর রাজ্জাক এবং বলুন ছেলে একটি এর মুয়াম্মার কাতাদা থেকে গরু 
ইবনে আব্বাস মধ্যে শ্লোক আমাদের বের করে আনা করতে 
তাদের প্রাণীর সঙ্গে পৃথিবী বলেন উচ্চারণ ভুল এবং পালক চার তালিকা কিছু বেরিয়ে আসতে আছে এর উপত্যকার এর Tehama 
, তিনি বলেন হযরত আবদুল্লাহ ইবনে আমর মধ্যে joking মুখ এর তার মুখে অবিশ্বাসী কালো তামাশা Vtvho পর্যন্ত রাজত্বকালে 
মুখোমুখি এবং joking মুখ এর তার মুখে বীমা করা সাদা তামাশা Vtvho এমনকি তার মুখ Phygellus মানুষ সাদা এর ঘর 
উপর Viarafon টেবিল থেকে বিশ্বাসী অবিশ্বাসী এবং Itbaaon বাজারের Viarafon থেকে বীমাকৃত 
অবিশ্বাসী
হাদিস - ১৮৬৩
হযরত আমের শা’বী রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন দাব্বাতুল আরদ হবে পশম ওয়ালা, পালক বিশিষ্ট, উহার মাথা আকাশে পৌছবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৮৬৩ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1863
ইবনে ইদ্রিস আমির আল শাবা সম্পর্কে তার চাচা সম্পর্কে বলেছিলেন: " 
পৃথিবী ধূলিকণা 
দিয়ে ধুলা , এবং আকাশের মাথা তার মাথা পায়।"
হাদিস - ১৮৬৪
হযরত আয়েশা রাযিয়াল্লাহু আনহা হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন আজইয়াদ হতে দাব্বাতুল আরদ বের হবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৮৬৪ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1864
বলুন আবু ইসহাক যারা তাকে বলেন থেকে বিন Alwan অনুতাপ 
আয়েশা সম্পর্কে , সে থেকে স্নাতক একটি পশু Ajyad
হাদিস - ১৮৬৫
হযরত ইবনে উমর রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন দাব্বাহ জমার রাতে (জুমআ’র রাতে) বের হবে। এবং আরেক জুমআ’ পর্যন্ত সফর করবে। অতপর দাব্বাহ বের হবে। আর উহার গর্দান হবে লম্বা। পরে উহা প্রত্যেক মুনাফেককে মহর মেরে দিবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৮৬৫ ]
___________________________________
নঈম বিন হাম্মাদ - 1865
Wakee ওয়ালিদ সব বিন সম্পর্কে আমাদের বলুন 
সম্পর্কে আব্দুল মালিক বিন ইবনে Albilmana marauding 
ইবনে থেকে ' উমরের বলেন স্নাতকের রাত পশু সংগ্রহ 
করতে marching সংগ্রহ এর প্রাণী ও তারা তার ঘাড় বাইরে আসতে , বলেন একটি দৈর্ঘ্য না শুধুমাত্র দিন একটি ভণ্ড Khtmth
হাদিস - ১৮৬৬
হযরত ইবনে উমর রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন সাফার ফাটল হতে দাব্বাহ বের হবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৮৬৬ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1866
উমারের উপহারের উপহার সম্পর্কে ফাদিল সম্পর্কে আমাদের বলুন যে সাফাতে 
ফাটল 
থেকে পশুটি বের হয়ে এসেছে
হাদিস - ১৮৬৭
হযরত ইবনে উমর রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, তিনি (আল্লাহ তা’আলার বাণীর তাফসীরের ক্ষেত্রে) বলেন, আল্লাহ তা’আলার বাণী ”যখন ঘোষিত শাস্তি উহাদের নিকট আসিবে, তখন আমি মৃত্তিকাগর্ভ হইতে বাহির করিব এক জীব। যাহা উহাদের সহিত কথা বলিবে।” ইহা তখন ঘটবে যখন মানুষ সৎ কাজে আদেশ ও অসৎ কাজ থেকে নিষেধ করবে না।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৮৬৭ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1867
আমাদের জন্য সুফিয়ান কিয়া আমর বিন কায়েস সম্পর্কে আমাদের বলুন উপহার এর 
ইবনে উমর 
এবং যদি স্বাক্ষরিত করতে তারা বের আমাদের আনা বলতে করার থেকে তাদের জমি এর প্রাণী তখন বললেন , যখন কথা বলবেন না করতে তাদের এবং উদারতা নির্দেশ দেয় এবং 
মন্দ থেকে বিরত রাখে
হাদিস - ১৮৬৮
হযরত হুযাইফা রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন দাব্বাহ এর জন্য তিনটি খারজা (বহির্গমন) হবে। কতক প্রত্যন্ত গ্রামে বের হবে অতপর লুকিয়ে থাকবে। অতপর কতিপয় গ্রামে বের হবে এমনকি আলোচনা করা হবে। আর সেখানে আমীরগণ রক্তের বন্যা বইয়ে দিবে। অতপর উহা মানুষের মাঝে সম্মানিত, মহিমান্বিত, সর্বোত্তম মসজিদের নিকট আত্মগোপন করবে। এমনকি আমরা অনুধাবন করলাম যে, তিনি মসজিদুল হারাম নাম নিলেন। আর তিনি উক্ত মসজিদের নামকরণ করেন নি। যখন তাদের জন্য যমিনকে উঠিয়ে নেওয়া হবে তখন মানুষ পালায়ন করতে থাকবে। অতপর মুসলমানদের একটি দল অবশিষ্ট থাকবে। আর তারা বলবে যে, কোন কিছুই আমাদেরকে আল্লাহ তা’আলার বিষয় থেকে বাচাতে পারবে না। অতপর তাদের উপর দাব্বাহ বের হবে। ফলে তাদের (মুমিনদের) চেহারাসমূহ উজ্জল তারকারাজির ন্যায় চমকাবে। অতপর উহা চলে যাবে। ফলে কোন অনুসন্ধানকারী তাকে পাবে না। কোন পালায়নকারী তাকে হারাবে না। আর উহা একজন নামাজরত ব্যক্তির নিকট আসবে। অতপর তাকে উদ্দেশ্য করে বলবে যে, আল্লাহ তা’আলার কসম! আমি নামাজ আদায়কারীদের মধ্য থেকে ছিলাম না। অতপর নামাজরত ব্যক্তি দাব্বার দিকে তাকাবে। আর দাব্বাহ তখন তাকে মহর মেরে দিবে। তিনি বলেন মুমিনদের চেহারা চমকাবে। আর কাফেরদের মহর মারা হবে। তিনি বলেন অতপর তাকে জিজ্ঞাসা করা হল, হে হুযাইফা রাযিয়াল্লাহু আনহু সেদিন মানুষের খবর কি হবে? উত্তরে তিনি বলেন এক চতূর্থাংশের প্রতিবেশী, মাল সম্পদের ভিতর অংশীদারী ও সফরে সঙ্গী।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৮৬৮ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1868
আমাদের বলুন পুত্র এর সুখী এবং ছেলে একটি এর বলদ মুয়াম্মার মানুষ কায়েস বিন সাদ 
আবু পরজীবী 
হুযাইফা বলেন পশু তিন আউটপুট কিছু স্নাতক যে এর গ্রামাঞ্চলের এবং তারপর Tnkami 
মানে কিছু গ্রামে Kharja থাকা এমনকি Verriv নেতারা যেখানে মনে রাখবেন রক্ত এবং তারপর Tnkami যখন 
আশরাফ মসজিদে মানুষ এবং সর্বশ্রেষ্ঠ এবং শ্রেষ্ঠ তাই আমরা ভেবেছিলাম এটা করা হয় নামক গ্র্যান্ড মসজিদ এবং তিনি কি বলা 
যেমন তাদের প্রত্যাহার জমি মানুষ Hraba গিয়ে রাখা একটি মুসলমানদের গ্যাং 
বলে যে এটা করা হবে না 
আমাদের রক্ষা ঈশ্বরের কাছ থেকে কিছু তারা বের হয়ে যায় হয় উপর মত তাদের মুখের Vtjlo পশু তাদের গ্রহ Dorry তারপর kicks বন্ধ 
অনুভূত না একটি দ্বারা ছাত্র মিস্ না একটি পলাতক আসে মানুষের যেমন তিনি প্রার্থিত , 
ঈশ্বর বলেছেন আমি 
প্রার্থনা মানুষের একটি ছিল Slapped , 
বলেন মুখ এর বিশ্বাসী এবং বায়ুশূন্য Taktm কাফির 
বলেন , 
তাকে বলেন কি মানুষ যে দিন , হে হুযাইফা 
প্রতিবেশীদের বলেন weightlifter অংশীদারদের তহবিল মালিকদের
ভ্রমণে
হাদিস - ১৮৬৯
হযরত ইবনে উমর রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন যখন আল্লাহ তা’আলার অঙ্গীকার যা আল্লাহ তা’আলার বাণী ”আমি তাদের জন্য মাটি হতে জন্তু বের করবো, যা তাদের সাথে কথা বলবে” এর প্রতিফল হবে। তিনি বলেন সেটার কোন কথাও হবেনা, কোন আলোচনাও হবেনা। তবে তার একটি নাম হবে যা আল্লাহ তা’আলা যাকে নির্দেশ করবেন সে রাখবে। উহা মিনার রাতে সাফা হতে বের হবে। আর তারা উহার মাথা ও পার্শ্বের মধ্যখানে থাকবে। কোন প্রবেশকারী প্রবেশ করতে পারবে না। কোন বহির্গমণকারী বের হতে পারবে না। এমনকি যখন উহা আল্লাহ তা’আলা যে বিষয়ে আদেশ করেছেন তা থেকে বিরত হওয়ার পর যে ধ্বংস হওয়ার সে ধ্বংস হবে। আর যে নাজাত পাওয়ার সে নাজাত পাবে। আর উহা প্রথম পা রাখবে আন্তাকিয়া শহরে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৮৬৯ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1869
আমাদের বলুন মুহাম্মদ বিন হারেস মুহাম্মদ বিন আব্দুর রহমান বিন Albilmana তার পিতা 
ইবনে 'উমরের থেকে বলেন : রাসূল এর আল্লাহ , সা যদি প্রতিশ্রুতি 
ঈশ্বর কি বাস্তবিক বলিয়াছেন আমাদের বের করে আনা করতে তাদের প্রাণীর পৃথিবী আলাপ করতে তাঁদের এবং না বলেন যে বক্তৃতা কথা বলে না 
কিন্তু বৈশিষ্ট্য বৈশিষ্ট্য ঈশ্বর তার আদেশ করার মধ্যে সাফা রাত থেকে তার প্রস্থানের হতে মোনা করিয়া ত্যাগ 
তার মাথা এবং তার দোষ প্রবেশ করে না ভেতরে ও বাইরে এমনকি যদি তাকে আল্লাহর চেয়ে খালি হয়ে যেতে 
Vhlk ধ্বংস এবং বেঁচে বেঁচে প্রথম পদক্ষেপ আন্তিয়খিয়ায় দ্বারা উন্নত ছিল
হাদিস - ১৮৭০
হযরত হুযাইফাতুল ইয়ামান রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন কখনো কোন কওম সম্পর্কে তেলাওয়াত করা হয় নাই তবে তাদের উপর সিদ্ধান্ত নির্ধারতি হয়েছে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৮৭০ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1870

আবু Zabian 
Hudhayfah ইবনে আল ইয়ামন থেকে Amash উপর সুখী সুফিয়ান পুত্র আমাদের বলুন একটি মানুষ সম্পর্কে Matla 
বলার অধিকার ছিল না কখনও
হাদিস - ১৮৭১
হযরত কা’ব রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন দাব্বাহ ও কিয়ামাতের আলামাত সমূহ হযরত ঈসা আলাইহিস সালামের অভির্বাবের সাত মাস পর বের হবে। তিনি বলেন হযরত আমর ইবনুল আস রাযিয়াল্লাহু আনহু বলেন মারওয়ার নিকট যে সাফা রয়েছে সেখান হতে দাব্বাহ বের হবে। উহা আল্লাহ তা’আলা ও তার রাসূলের দিকে পথ দেখাবে।
অধ্যায়
হাবসা এর প্রসংগে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৮৭১ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1871
আমাদের হাকাম ইবনে Nafie বলুন , যারা ঘটেছে করার তাঁহাকে [কা'ব] বলেন তিনি 
স্নাতক ও পশু আয়াত যীশু পর সাত মাস , তিনি 
আমর ইবনুল বলেন - 
আস থেকে স্নাতক একটি পশু যখন সাফা , ও তাঁর রসূলের আল্লাহর উপর মারওয়া প্রশিক্ষণ 
আবিসিনিয়া