এসো হাদিস পড়ি ?

এসো হাদিস পড়ি ?

হাদিস অনলাইন ?

ইয়াজুজ মাজুজদের আবির্ভাব

একটি আরবি শব্দ ডাবল ক্লিক করে তার অভিধান এন্ট্রি দেখায়
হাদিস - ১৬২৬
হযরত কা’ব রা. হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন, মহান আল্লাহ তা’আলা ইয়াজুজ মাজুজদের তিন ভাগে সৃষ্টি করেছেন। প্রথমভাগ: বিশেষ বৃক্ষের কাঠের ন্যায়। দ্বিতীয়ভাগ: তারা লম্বায় চারগজ, অনুরুপ পার্শে¦ও। আরা শক্তিশালী। তৃতীয়ভাগ: তারা তাদের এক কানকে বিছানা বানিয়ে শয়ন করে, আরেক কান গায়ে জড়ায়। আর তারা তাদের মহিলাদের সন্তান ভুমিষ্ট হওয়ার সময় যা বের হয় তা খায়।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬২৬ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ -
আমাদের সম্পর্কে আমাদের বলুন বাকি এর থেকে সাফওয়ান 
Shurayh Obeid বিন 
কা'ব বলেন ঈশ্বর এই ধরনের ইয়াজুজ ও মাজুজ তিন জাতের বর্গ মৃতদেহ নির্মিত যেমন চাল 
ও শ্রেণী চার বাহু ও ডিসপ্লে Oqoaahm [মত] এবং বর্গ ঘুমন্ত উপর তাদের কান এবং অন্যান্য Althvon 
এবং নারীদেরকে Mchaim খাওয়া
হাদিস - ১৬২৭
হযরত কা’ব রা. হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন, ইয়াজুজ মাজুজের আশ্রয়স্থল হল তূর পাহাড়। আর তাদের যুদ্ধ হল দামেস্কে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬২৭ ]
___________________________________
নঈম বিন হাম্মাদ
সম্পর্কে আমাদের বলুন বাকি এর সাফওয়ান আমাদের আবু Zahrieh বলেন 
থেকে 
গোড়ালি , বলেন ইয়াজুজ ও মাজুজ ফেজ এবং মহাকাব্য দামাস্কাসের কেল্লা
হাদিস - ১৬২৮
হযরত কা’ব রা. হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন, মানুষের থেকে ইয়াজুজ মাজুজকে সাত দলে বেশি হবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬২৮ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 16২8
সম্পর্কে আমাদের বলুন বাকি এর 
সাফওয়ান আমাকে সরদারি বলেন 
থেকে গোড়ালি , তিনি বলেন মানুষ ইয়াজুজ ও মাজুজ সাত Navarra- এর পছন্দ করা
হাদিস - ১৬২৯
হযরত কা’ব রা. হতে বর্ণিত যে. তিনি বলেন, ইয়াজুজ মাজুজের জন্য নিচের যে দরজা খোলা হবে, সেটা চৌকাঠ চব্বিশ গজ প্রসস্ত হবে। বর্শার ফলক তা গোপন রাখবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬২৯ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 16২9
সাফওয়ান বললেন, আবু মুথান্না আল-মাওয়ালানী আমাকে ক্বাব 
সম্পর্কে বলেছেন । তিনি বললেন: "আমি গোগ ও মাগোগের দরজার সামনে দিব, 
যা তাদের সামনে বাম দিকের চতুর্ভুটি বাম হাতে বর্শা দিয়ে স্পর্শ করে।"
হাদিস - ১৬৩০
হযরত ইবনে আব্বাস রা. হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন, পৃথিবী সাত ভাগে বিভক্ত। উহার ছয় ভাগ ইয়াজুজ মাজুজ এর জন্য। আর বাকী কিছু অংশ সমস্ত সৃষ্টিজীবের জন্য। হযরত হাসসান ইবনে আতিয়া বলেন, ইয়াজুজ মাজুজ দুই জাতিতে বিভক্ত। আর প্রত্যেক জাতিতে একলাখ জাতি। একজাতি অন্য জাতির সাথে সাদৃশ্য নয়। কোন পুরুষ তার সন্তানদের একশত চক্ষু না দেখা পর্যন্ত মৃত্যুবরণ করে না।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৩০ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1630
আমাদের বলুন ছেলে 
হাসান বেন আত্তিয়া জন্য মুসলিম বিন আলী মুসা বিন শায়বাহ Awzaa'i সম্পর্কে দিয়েছেন 
ইবনে আব্বাস 
বলেন স্থল সাত অংশের Vsth ইয়াজুজ ও মাজুজ এবং অংশ অংশগুলি এর Sayre জমি 
বলেন 
হাসান বেন আত্তিয়া ইয়াজুজ ও মাজুজ প্রত্যেক জাতির মধ্যে দুই দেশের একটি লক্ষ 
জাতি হয় আরেকটা জাতি পছন্দ না 
না সে তার ছেলের একশো চোখ দেখতে না পারলে মানুষ মারা যায়
হাদিস - ১৬৩১
হযরত যায়েদ ইবনে আসলাম তার পিতা হতে বর্ণনা করে বলেন, নিশ্চই রাসূল সা. বলেছেন যে, নিশ্চই ইয়াজুজ মাজুজ বের হবে। তাদের প্রথমজন তাবরিয়ার জলাশয় দিয়ে বের হবে। অতপর তারা তা পান করে ফেলবে। অতপর তাদের শেষজন সেখানে আসবে আর তারা বলবে, কেমনযেন এখানে একবার পানি ছিল। যখন তারা পৃথিবীতে শক্তিশালী হয়ে উঠবে, তখন তারা বলবে আমরা পৃথিবীতে শক্তিশালী হয়েছি, সুতরাং আসো আমরা আসমানবাসীদের সাথে যুদ্ধ করি। তখন সাহাবীগণ প্রশ্ন করলেন, হে আল্লাহর রাসূল! মুসলমানগণ কোথায় থাকবে? রাসূল সা. উত্তরে বললেন, তারা দূর্গ বানাবে। অতপর আল্লাহ তা’আলা মেঘ প্রেরণ করবেন যাকে আনান বলা হয়। আর এরুপ নামই আল্লাহ তা’আলার নিকটে। অতপর তারা (উক্ত মেঘ লক্ষ করে) তীর নিক্ষেপ করবে। আর তাদের তীরগুলো রক্তমিশ্রীত অবস্থায় নিচে পড়বে। অতপর তারা বলবে, আমরা আল্লাহ কে হত্যা করেছি। অথচ আল্লাহ তা’আলাই তাদের হত্যাকারী। অতপর তারা যতক্ষণ আল্লাহ তা’আলা চান জীবন যাপন করবে। অতপর আল্লাহ তা’আলা মেঘের কাছে অহী পাঠাবেন ফলে মেঘ তাদের উপর উটের নাকের কীটের মতো একপ্রকার কীট বর্ষণ করবে। উক্ত কীটগুলো বের হয়ে তাদের প্রত্যেকের ঘাড়ে ধরবে এবং তাকে হত্যা করে দিবে। তাদের এঅবস্থা যখন হবে তখন মুসলমানদের মধ্য হতে এক ব্যক্তি বলবে, আমার জন্য দরজাটা খুলে দাও, আমি বের হয়ে আল্লাহ শত্রুরা কি করেছে তা দেখবো। হয়তো আল্লাহ তা’আলা তাদের ধ্বংস করে দিয়েছেন। অতপর সে বের হয়ে তাদের নিকটে এসে তাদেরকে মৃত দাড়ানো অবস্থায় পাবে। তারা একে অপরের উপরে থাকবে। অতপর সে আল্লাহ তা’আলার প্রশংসা করবে এবং তার সাথীদের ডেকে বলবে, আল্লাহ তা’আলা তাদের ধ্বংস করে দিয়েছেন। অতপর আল্লাহ তা’আলা বৃষ্টি প্রেরণ করে তাদের হতে পৃথিবী ধৌত করবেন। তিনি বলেন, অতপর মুসলমানগণ তাদের তীর ধনুক দিয়ে এত এত বছর আগুণ জ্বালাবে। আর মুসলমানদের জন্তু তাদের মৃতদেহ হতে খাবে। এবং তাদের উপর মোটা তাজা হবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৩১ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1631
আমাদের বলুন পুত্র এর দান করতে আমাদের 
জায়িদ ইবনে আসলাম 
তার পিতা থেকে বলেন যে রাসূল এর আল্লাহ , সা তিনি বলেছেন যে ইয়াজুজ ও মাজুজ 
যখন তারা বের বেরিয়ে আসেন প্রথম এর তাদের হ্রদ এর লেক টাইবেরিয়াস Vicherbunha তারপর আসে শেষ এর তাদের এবং 
তারা বলে , যেমন যদি এটা হয় পানি একবার এখানে যদি Gbawa উপর স্থল , 
তারা বলেছিল , পৃথিবীতে Gbanna 
এস সংগ্রাম মানুষ এর স্বর্গ , 
তারা বলেছিল , হে আল্লাহর এর আল্লাহ , কোথায় মুসলমানদের 
বলেন 
আপ holed তিনি হবে ঈশ্বরের পাঠাতে এর মেঘ , তাই বললেন করার তাঁর নাম যখন ঈশ্বর Vermouna Npalhm যেমন unleashed আছে, পাশাপাশি এবং 
পতনের তীর Mokhtillh রক্ত , এবং তারা বলে , আল্লাহ আমাদের হত্যা এবং ঈশ্বর তাদের Vimkthoa অভিশাপ কি ঈশ্বর 
সর্বশক্তিমান ঈশ্বরের Viouha করার মেঘ বৃষ্টি হবে উপর তাদের দুদা Kalngf myiasis উট আসা আউট তাদের থেকে নিন তাদের 
একজনের ঘাড়ে এবং তাকে মেরে ফেলো, এবং আমরা তাদের দেখাবো যে, মুসলমানদের একজন মানুষ হিসাবে, 
খোলা আছে
আমি দরজা খুঁজে দেখতে যা তারা করত শত্রুদের এর ঈশ্বর , ঈশ্বর may decimated এসে থাকলেও , যদি এটা আসে থেকে তাদের 
দেখলেন তাঁরা মৃত দাঁড়িয়ে উপর একে অপরের Faihmd ঈশ্বর , ও তার সঙ্গীরা কল 
যে ঈশ্বর করেছে 
decimated ঈশ্বরও কারণ বৃষ্টি ধুয়ে নেবে জমি এর তাদের 
বললেন মুসলমানদের Festukd Baksehm এবং আভিজাত্য 
অমুক অমুক একটি বছর এবং খাওয়া গৃহপালিত পশু মুসলমানদের Jifam ধন্যবাদ আপনাকে এবং টালিন
হাদিস - ১৬৩২
হযরত কতাদা রা. হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন, এক লোক রাসূল সা. কে বলল, হে আল্লাহর রাসূল সা. আমি ইয়াজুজ মাজুজের জীর্ণ কাপড় দেখেছি। আর মানুষ আমাকে মিথ্যাবাদী বলছে। রাসূল সা. জিজ্ঞাসা করলেন, তুমি কিভাবে দেখেছ? উত্তরে সাহাবী বলল, আমি তা দেখেটি ডোরাকাটা সজ্জিত এর মাতো। রাসূল সা. বললেন, তুমি সত্য বলেছ। ঐ সত্বার কসম! যার হাতে আমার প্রাণ, আমি তাদের জীর্ণ পোষাক দেখেছি স্বর্ণের ইটের এবং সীসার ইটের।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৩২ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 163২
আমাদের বলুন ছেলে এর থেকে দান মুসলিম বিন আলী বিন সাঈদ বশির 
কাতাদা জন্য , বলেন মানুষ , হে আল্লাহর বলেন 
ঈশ্বরকে দেখেনি করার সেতু ইয়াজুজ ও মাজুজ এবং মানুষের Akzboni যে 
নবী শান্তি বর্ষিত হোক তাঁর বললেন 
কিভাবে আমি তাকে দেখেছি 
তিনি দেখেছিলেন এমন একটি ঠান্ডা ইঙ্কার 
অনুমোদন সাইদ ও আমার হাত আমি তাকে [দেখল 

Rdmh স্বর্ণের একটি ইট এবং সীসা একটি ইট
হাদিস - ১৬৩৩
হযরত তুবাই হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, যখন ঈসা ইবনে মারিয়াম আ. দাজ্জালকে হত্যা করবেন। তখন আল্লাহ তা’আলা তার নিকট অহী প্রেরণ করবেন। এ বলে যে, আপনি ও আপনার সাথে মুমিনদের যারা রয়েছে তাদের নিয়ে তুর পাহাড়ে চলে যান। কেননা আমার বান্দা বের হয়েছে। আমি ব্যতীত অন্য কেই তাদের বশে আনতে পারবে না। সেদিন শিশু ও নারী ব্যতীত মুমিনগণ বার দলে বিভক্ত হবে। অতপর ইয়াজুজ মাজুজ বের হয়ে প্রত্যেক উচু ভুমি দিয়ে চলবে। তারা যে পানির উপর দিয়ে যাবে তা শেষ করে দিবে। আর সেদিন পানি কম হয়ে যাবে। দাজ্জালের বের হওয়ার জায়গা নিচে নেমে যাবে এমনকি তারা তাবরিয়ার জলাশয় পর্যন্ত শেষ করবে। তাদের শেষজন বলবে, এখানে একবার পানি ছিল। অতপর তারা একে অপরের সামনে আসবে এবং বলবে, আর কতক্ষণ, আমরাতো পৃথিবীবাসীদের পরাভূত করেছি। চলো আমরা আসমানবাসীদের সাথে যুদ্ধ করি। অতপর তারা তাদের তীর আকাশের দিকে তীর নিক্ষেপ করবে। আর তাদের তীর রক্তমাখা অবস্থায় ফিরে আসবে। অতপর আল্লাহ তা’আলা তাদের উপর নাগাফ নামের পোকা প্রেরণ করবেন। (উক্ত পোকাগুলো) তাদের ঘাড়ে ধরবে। অতপর আল্লাহ তা’আলা তাদের ধ্বংস করে দিবেন। এমনকি যমিন তাদের মৃতদেহের গন্ধে গন্ধময় হয়ে যাবে। মুমিনগণ যেখানে থাকবে, সেখানেই তাদের কষ্ট বা আযাবের কথা মুমিনদের নিকট পৌছবে। অতপর মুমিনগণ হযরত ঈসা ইবনে মাররিয়াম আ. এর নিকট আসবে এবং বলবে, নিশ্চই আমরা বাতাশ পাচ্ছি যার উপর আমাদের ধৈর্যধারণ নেই। (আমরা ধৈর্যধারণ করতে পারবো না।) আর আমাদের শক্তিও নেই। অতপর ঈসা আ. ও মুমিনগণ তার প্রতিপালকের কাছে দুআ’ করবে। অতপর আল্লাহ তা’আলা আবাবিল পাখি প্রেরণ করবেন। তা তাদেরকে বহন করে যমিনের দূরে নিক্ষেপ করবে। এমনকি তাদের চর্বি ও রক্ত হতে ঝিনুকের ন্যায় হয়ে যাবে। অতপর তারা অনেক বছর জীবিত থাকবে। তাদের হাতিয়ার হতে জ্বালানোর কাষ্ঠ বানাবে। করবে। অতপর তারা সাত বছর জীবিত থাকবে। তারপর আল্লাহ তা’আলা মুমিনদের রূহ কবজের জন্য বাতাশ প্রেরণ করবেন।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৩৩ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1633
আমাদের বলুন Oirtah আবু আমের সম্পর্কে আবু আইয়ুব 
তাকে বলেন 
বিক্রি বললেন যীশু সম্পর্কে পুত্র এর মেরি , খ্রীষ্টশত্রু নিহত ঈশ্বর Zap তাকে অনুপ্রাণিত 
উপাসকদের এটা আমার ছেড়ে চলে গেছে কোন Aitigahm আর কেও ফেজ মুসলমানদের কবল থেকে এবং আপনার সাথে 
এবং বিশ্বাসীদের যে প্রতিদিন বারো হাজার শুধুমাত্র সন্তান, নারী ও ইয়াজুজ আসা আউট ও মাজুজ তারা সব 
humping স্খলন উপর পাস না পানি শুধুমাত্র Nzvoh পানি যে প্রতিদিন একটি কয়েক গুল্মবিশেষ পারে খ্রীষ্টশত্রু প্রস্থান 
পর্যন্ত তারা শেষ সাগর এর গালিলি , এবং 
বলছেন গত এর যাকে আমি এখানে ছিল হয় পানি একবার এবং তারপর তিনি গৃহীত 
কিছু এর তাদের কিছু 
বলতে এমনকি যখন এটা জিত হয়েছে মানুষ এর পৃথিবী , আমাদের Flanqatl দিন মানুষ এর স্বর্গ , 
ভারমন্ট Bnchabhm দিকে আকাশ Fterdja Nchabhm Mokhtillh রক্ত ঈশ্বরের পি কারণ ম্যাটার হয় বলেন করার ডায়াবেটিস 
myiasis তাদের ঘাড়ে Vihlkhm ঈশ্বর লাগে , এমনকি 
যদি টিনটিন Jifam থেকে পৃথিবী পর্যন্ত 
বিরক্তি এর বিশ্বাসীদের যেখানে তারা যীশুর কাছে ঈমানদার Viqubl
তারা আমি খুঁজে বলতে বাতাস যে আমরা 
ধৈর্য ধরুন এবং যা আমাদের শক্তি 
Vidawa ইসা Rabbo এবং বিশ্বস্ত ঈশ্বরের সৃষ্টি জন্য তাদের পাখি 
যতক্ষণ না তারা তার পান Ababil Vthmlhm কাজ থেকে একেবারে শুরু থেকে তাদের রক্ত Kalsdvh এবং Ahomanm হয়ে 
কাটা কাঠ নিরস্ত্র Vilbut মানুষ বছর এবং তারপর বেশ তাড়াতাড়ি সাত বছর এবং তারপর ঈশ্বর পাঠায় একটি ধরতে বাতাস 
মুমিনদের
হাদিস - ১৬৩৪
হযরত যামরা ইবনে হাবীব হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি জুবাইর ইবনে নুফাইর রা. কে বলতে শুনেছি যে, ইয়াজুজু মাজুজ তিন প্রকারের হবে। এক প্রকার হল- চিরহরিৎ বৃক্ষবিশেষ ও শুরবাইন (শারবীন) বৃক্ষবিশেষের মতো লম্বা হবে। আবু জাফর বলেন, আযর হল গাছের মতো। আকাশের দিকে একশত গজ বা একশত বিশ গজ অথবা এর থেকে কম বেশি উঠে। (লম্বা হয়।) আরেক প্রকার হল- তাদের লম্ব ও প্রস্থ সমান। শেষ প্রকার হল- পুরুষরা তাদের এক কান বিছানা বানায়। আরেক কান গায়ে জড়ায়। উক্ত কান দ্বারা সমস্ত শরীর ঢেকে রাখে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৩৪ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1634
আমাদের আবু আইয়ুব এবং আবদুল কুদ্দুস, ইয়াহইয়া ইবনে সাঈদ Oirtah বলুন জন্য 
Damra বেন হাবিব বলেন 
আমি শুনেছি জাবের ইবনে Nufayr বলেছেন ইয়াজুজ ও মাজুজ তিন জাতের বর্গ যে 
উচ্চতা এরস ও ফার 
আবু জাফর বলেন চাল কিছু সাব হয় - গাছ যেমন পাশাপাশি যাচ্ছে আকাশ একটি 
শত বাহু বা একশত বিশ হাত বেশী বা কম 
তাদের উচ্চতা রেট দিয়েছেন এবং প্রদর্শন উভয় শ্রেণী বসে একটি 
মানুষ যার ওপর তার কান ও বিদ্ধ করতে তাদের দ্বারা অন্যান্য জুড়ে বাকি এর তার শরীরের
হাদিস - ১৬৩৫
হযরত কা’ব রা. হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন নিশ্চই ড্রাগন বা দানব জীবিত হয়ে স্থলভাগে বসবাসকারীদের কষ্ট দিবে। অতপর আল্লাহ তা’আলা দানবকে স্থল থেকে জলে নিক্ষেপ করবেন। অতপর যখন জলভাগের প্রাণীরা চিৎকার করবে, তখন আল্লাহ তা’আলা এমন প্রাণী প্রেরণ করবেন যা দানবকে জলভাগ থেকে স্তলভাগে ইয়াজুজ মাজুজের নিকট নিয়ে যাবে। অতপর উক্ত দানবকে তাদের জন্য খাবার বানাবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৩৫ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1635
আমাদের আবু marauding বলুন 
আবু বকর ইবনে আবী মারইয়াম Ghassani থেকে ইসমাইল বিন আইয়াশ আমাকে Oxiakhana বলেন 
সম্পর্কে গোড়ালি , তিনি বলেন 
যে ড্রাগন জীবিত Viwve হয় মানুষ এর থেকে ন্যায় মানুষ এর জমি নিয়ে সাগরে দেশ থেকে ঈশ্বর Vigayha । 
চেঁচিয়ে মাউন্ট তাহলে সমুদ্র থেকে তাঁকে ঈশ্বর তাকে পাঠানো স্থানান্তর করতে এটি থেকে সাগরে অবতরণ করার গোগ 
এবং মাগোগ তাকে তাদের জীবিকা তৈরি করবে
হাদিস - ১৬৩৬
হযরত আযদাদ ইবনে আফলাহ আল মাকরাই’ হতে বর্ণিত যে, তিনি এবং জাবের ইবনে আযদাদ আল মাকরাই’ কালীলের রাহেত (যুদ্ধ) শেষে তাদের বাড়ীতে ফিরতে ছিলেন। অর্থাৎ গাযওয়ার পর উহাকে রাহেত বলা হয়। তখন জাবের তাকে বলল, তুমি কি আমর বিকালীর সাথে সাক্ষাত করবে? তিনি বললেন, হ্যা। তিনি বলেন, অতপর আমরা গেলাম এবং তার বাড়ীতে প্রবেশ করলাম। আমরা সেখানে একটি দল পেলাম যারা তাকে ঘিরে বসে আছে। আর তিনি তাদের সাথে বসে কথা বলতেছেন। অতপর এক ব্যক্তি দানব সম্পর্কে কথা বলল। অতপর আমর বললেন, তোমরা কি জান, দানব কেমন হবে? দানব একটি সাপ হবে, আর তা অন্য সাপের উপর আক্রমণ করে খেয়ে ফেলবে। অতপর অনেক সাপ খেয়ে বড় হবে এবং ফুলে যাবে। অতপর উহার বিষ বাড়বে এমনকি দগ্ধ হয়ে যাবে। যখন দানব স্থলভাগের প্রাণীদের উপর আক্রমন করবে তখন আল্লাহ তা’আলা তার পায়ের গোছা ধ্বংস করে দিবেন। অতপর তা নদীতে চলে যাবে। যাতে সে অশ্রু প্রবাহিত করতে পারে। অতপর নদীর স্রোত উহাকে আঘাত করবে এমনকি (নদী থেকে বের করে) সাগরে প্রবেশ করাবে। তারপর উহা স্থলভাগের প্রাণীদের সাথে যে আচরণ করেছিল ঠিক সেই আচরণই সমুদের প্রাণীদের সাথে করবে। অতপর দানব বড় হবে এবং উহার বিষ বাড়বে। এমনকি সমুদ্রের প্রাণীরা আল্লাহ তা’আলার নিকট এর থেকে বাচার জন্য চিৎকার করবে। অতপর আল্লাহ ত’আলা দানবের নিকট একজন ফেরেশতা প্রেরণ করবেন। উক্ত ফেরেশতা উহাকে নিক্ষেপ করে উহার মাথা পানি থেকে বের করবে। অতপর মেঘ ও বজ্র উহার নিকটবর্তী হয়ে উহাকে বহন করে ইয়াজুজ মাজুজের নিকট ফেলবে। এগুলো ইয়াজুজ মাজুজের খাদ্য হবে। উট, গরু যেভাবে জবাই করা হয় ঠিক সেভাবে তারা তা জবাই করবে।yi
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৩৬ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1636
আমাদের বলুন সাফওয়ান ইবনে থেকে আবদুল কুদ্দুস বাকি ' আমর 
Hawshab বিন সাইফ Almaevri 
আমাকে বর্ধিত সঙ্গে বিন Almaqraia সফল যে, তিনি ও জাবের বিন বর্ধিত সঙ্গে 
রাহাত সামান্য উপায়ে পর তাদের বাড়িতে Almaqraia Mnasrvin পর একটি আক্রমণ করা হয় বলেন কাছে রাহাত আছে 
বলেন কাছে 
তাকে জাবের আপনি আমর Alpkala পরিদর্শন করেন 
হ্যাঁ বলেন , 
বলেন Vantalegna তাই আমরা তার বাড়িতে প্রবেশ এবং 
পাওয়া সৈন্য Aadoh একটি বসার তাদের বলুন ছিল , কেনে একটি মানুষ ড্রাগন 
বলল আমর আপনি কি জানেন কিভাবে কি করতে 
থাকুন [ড্রাগন 

তারা বলেছিল এবং কিভাবে করতে হবে 
বলেন করার লাইভ Vtoklha উপর নিছক বাস করা তারপর 
সাপের খাওয়া হয়ে গর্ব স্ফীত এবং বৃদ্ধির তার বন্ড এমনকি পুড়িয়ে । যদি আমি ফিরে গেলেন পশুরা এর জমি 
Vohlktha লেগ ঈশ্বর একটি নদী এটি পাস এবং জল প্রবাহ সঙ্গে এটি আঘাত আসে টি প্রবেশ করে সমুদ্র 
মধ্যে বহন করা পশুদের মত সমুদ্র পশুরা এমনকি ভরা আশ্রিত পৃথিবী গৌরবান্বিত এবং বৃদ্ধি সঙ্গে পশুরা
সমুদ্র এর ঈশ্বর তাদের , রাজা ঈশ্বরের Vermeha তার মাথা পর্যন্ত বাইরে কারণ পানি এবং তারপর 
Widney করার মেঘ 
, বাজ এবং এমনকি ইয়াজুজ ও মাজুজ থেকে Vigayha বাহিত হয় 
Ajtzeron উট, গরু তাদের জীবিকা Vigtzerunha
হাদিস - ১৬৩৭
হযরত কা’ব রা. এরুপই বর্ণিত হয়েছে। তবে তার রেওয়ায়েতে একথাগুলো বেশি আছে- তাদের নিকট সমুদ্র থাকবে। যার নাম হল- রক্তের সমুদ্র। সেখানে দানব থাকবে। আর তাদের মধ্যে কেউ তাদের মহিলাদের সন্তান ভুমিষ্ট হওয়ার সময় যা বের হয় তা খাবে। বনি আদমের সমষ্টির আধিক্যের উপর। তারা বনি আদমের চেয়ে সাত দলে বেশি হবে। পৃথিবী সমুদ্র অধিক করবে না, তবে ষাঁড়ের বাসস্থান দ্বারা।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৩৭ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1637
বলল আবু marauding আমাকে বলেছে 
ইসমাইল বিন আইয়াশ সাফওয়ান থেকে আমাকে Shurayh বিন Obeid বলেন এটা পছন্দ গোড়ালি 
এবং বর্ধিত বলা , 
এবং তারা আছে একটি সমুদ্র হয় বলেন কাছে রক্ত সমুদ্র আছে মধ্যে যা দুর্গন্ধ এবং যে এর তাদের কাছে যারা উপর Mchaim তাদের মহিলাদের খাওয়া ঘন সংগ্রহ এর 
পুত্র এর আদম কি Aktherhm ছেলেদের এর আদম , মাত্র সাত Navarra- এর এবং সংখ্যাবৃদ্ধি পৃথিবী সমুদ্র কেবল থোরের করিডোরের মধ্যে
হাদিস - ১৬৩৮
হযরত কা’ব রা. হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন, ইয়াজুজ মাজুজ বের হবে এবং তারা প্রত্যেক উচু জায়গা হতে দ্রুত আসবে। তাদের কোন বাদশা থাকবে না, শাসকও থাকবে না। তাদের মাথার উপর দিয়ে পাখি উড়বে। তবে তাদেরকে কাটতে পারবে না। এমনকি উহা কম্পন দিবে ও পড়ে যাবে। অতপর তারা উহা গ্রহণ করবে। তারপর তাদের আগে আগমণকারীরা তাবরীয়ার জলাশয়ে যাবে এবং উহার পানি যেভাবে আছে তা পান করে নিবে। তাদের পরে আগমনকারীরা আসবে এবং তাদের বল্লম সেখানে প্রবেশ করাবে। অতপর তারা বলবে এখাবে একবার পানি ছিল। তিনি বলেন, অতপর হযরত ঈসা আ. বলবেন, তোমাদের নিকট একটি জাতি এসেছে, যাদের সাথে আল্লাহ তা’আলা ব্যতীত আর কেউ পারবেনা। অতপর তিনি তার সাথীদের নিয়ে তূর পাহাড়ের দিকে চলে যাবেন। সেখানে তারা ক্ষুধার্ত থাকবে, এমনকি গাধার মাথার মূলা একশত দিরহাম হবে। তিনি বলেন, ইয়াজুজ মাজুজ বলবে, আমরা দুনিয়াবসীদের হত্যা করে ফেলেছি। চলো আমরা আসমনবাসীদের হত্যা করি। অতপর তারা আকাশে তীর ও বল্লম নিক্ষেপ করবে। আর তা রক্তমাখা অবস্থায় ফিরে আসবে। তখন তারা বলবে, আমরা আসমানবাসীদের হত্যা করেছি। অতপর হযরত ঈসা আ. ও মুমিনগণ তাদের জন্য বদদোয়া করবে এবং তাদেরকে আহ্বান করবে। তখন মাত্র বিশজন তার ডাকে সাড়া দিবে। তখন তাদের প্রত্যেক ব্যক্তি এভাবে এভাবে ঝুলবে। তাদের একজনও রেহাই পাবে না। অতপর হযরত ঈসা আ. ও মুমিনগণ (আল্লাহ তা’আলার নিকট) দোয়া করবে। ফলে আল্লাহ তা’আলা তাদের উপর আবাবিল প্রেরণ করবেন। তাদের ঘাড় হবে বুখতের ঘাড়ের (গরুর মতো এক ধরণের পশুর ঘাড়ের মতো।) মতো। আর উহার আবাস স্থল হল বাতাশে। বাতাশেই ডিম পাড়ে। আর উহার ডিম বাচ্চা ফোটার পূর্বে এক বছর বাতাশেই থাকে। আর যখন উহা বাচ্চা ফোটায় তখন বাতাশে উড়তে থাকে। অতপর উহা উড়তে থাকে এমনকি তাদের বাসস্থান তথা যেখান থেকে ডিম পড়েছিল সেখানে উড়ে যায়। অতপর তারা তাদের শরীর বহন করে। অতপর আবাবিল ইয়াজুজ মাজুজদের পৃথিবীর গর্তে ও ও নরম স্থানে নিক্ষেপ করবে। অতপর আল্লাহ তা’আরা মুমিনদের উপর বৃষ্টি প্রেরণ করে তাদের (ইয়াজুজ মাজুজ) হতে পৃথিবী পবিত্র করবেন। আর তা মসৃনের মতো হয়ে যাবে। আর পৃথিবী নূহ আ. এর যমানায় যেমন ছিল, তেমনের মতো ফিরে যাবে। আর তখন প্রত্যেক উম্মত আত্মসমার্পন করবে। এমনকি হিংসপ্রাণী ও বন্যপ্রানীও আত্মসমার্পন করবে। প্রত্যেক কাটাওয়ালা বস্তু হতে কাটা সরিয় নেয়া হবে। (তখন) মানুষ, সাপ, বাঘ, সিংহ ও ছাগল একত্রে খানা খাবে। ছোট বালক সিংহের পিঠে আরোহন করবে। এবং সে তার হাতে সাপ উলট পালট করবে। আর একথাই বলা হয়েছে, আল্লাহ তা’আলা এ কালামে- আসমান ও যমীনে যা কিছু আছে, সবকিছ আল্লাহ তা’আলার জন্য ইচ্ছায় অনিচ্ছায় আত্মসমার্পন করে। একগুচ্ছ আঙ্গুরের থোকা ও একটি বেদানা হতে একদল খাবে। লোকজন চাষ করবে এবং ফসল সংগৃহীত করবে। সে তার চাষ হতে খাবে। একটি দুধ দানকারী পশু পরিবারকে দুধ পান করাবে। এমনিভাবে গরু ছাগলও। স্বর্ণ, রৌপ্য মূলহীন হয়ে যাবে। এমনকি এক ব্যক্তি একশত দিনর নিয়ে ঘুরবে কিন্তু, সে তা গ্রহণ করার কাউকে পাবে না। মহিলা তার অলংকার বহন করবে কিন্তু, সে কোন চোর, দর্শনকারী, (হস্ত) প্রসারিতকারী এবং কব্জাকারী পাবে না। লোকজন ঘরে ফিরে যাবে, আর তখন তার সাথে লাঠি ও পাথর তার ঘরে যা হয়েছে সে ব্যাপারে কথা বলবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৩৮ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1638
আমাদের জন্য হাকাম ইবনে Nafie বলুন একটি সার্জন যারা তাকে বলেন 
সম্পর্কে গোড়ালি , বলেন ইয়াজুজ ও মাজুজ বের এবং 
তারা হয় সব স্খলন থেকে কোন রাজা বা সুলতান Visser আছে , তাঁদের মাথায় পাখি পর্যন্ত তাদের কাটবে না 
কাঁপুনি Visagt Viwkz Ooailhm লেক টাইবেরিয়াস এবং পাসের তার পানি Khaith Vicherbunha এবং তাদের দেয় গত এর তাদের 
Verkazhon যেখানে তাদের বল্লম 
, তারা বলে , হয়েছে পানি একবার 
তিনি ইসা হয়েছে বলে 
সেখানে এসেছিলেন একটি জাতি না Aitigaha কিন্তু আল্লাহ শীর্ষ পর্যন্ত Bosahabh ফেজ Vigoon আসে একটি এর শত গাধার 
দিনার , 
বলছেন ইয়াজুজ ও মাজুজ হত্যা করেছে বলেন মানুষ এর পৃথিবী সংগ্রাম আসা মানুষ এর স্বর্গ 
[তাদের] ভারমন্ট আকাশ Npalhm এবং Nchabhm Fterdja Fterdja Mokhtillh রক্ত 
তারা বলতে পারে আছে নিহত মানুষ এর আকাশকে পি বলা হবে জেসি এবং বিশ্বস্ত থেকে তাদের এবং অর্পণ দ্বারা 
অ mandating - বিশজন লোক সম্পর্কিত করতে প্রতিটি মানুষের এর তাদের হিসাবে ভাল হিসাবে ভাল এক হিসাবে এর তাদের রেহাই পাবে না 
Vidawa
ইসা এবং বিশ্বাসীদের তারা হবে তাদের ঘাড়ে Koenaq অলোকদৃষ্টি এবং তার বাড়ি Alobabil তাদের ওপর পাঠাতে বায়ু 
এবং ধোলাই বায়ু এবং থাকতে ডিম বায়ু বছর আগে তারা ডিম এবং ডিম পাড়া মধ্যে ভালবাসে যদি বায়ু 
এমনকি তাদের জায়গা থেকে ওঠা উড়ে , যা বাদ তার সম্ভাবনা আছে মধ্যে Afikzvhm তাদের মৃতদেহ খাঁজ এবং যোনি 
থেকে স্থল এবং তাদের ওপর নেমে তাদের Vitehr বৃষ্টি স্থলে ও Kalzlvh হয়ে যেমন ফিরে যেতে এটা ছিল সময় এর 
নূহ ও প্রাপ্ত যে প্রতিদিন , প্রতিটি জাতি , এমনকি সিংহ ও পশু এবং মাংস প্রতিটি VHF ঝোঁক খেতে 
চার্ম এবং লাইভ নেকড়ে এবং সিংহ এবং ভেড়া হয় সব অশ্বচালনা ছেলে সিংহ প্রকাশিত হয় এবং মধ্যে আলোড়ন করতল এর 
আয়াত বাস এবং হয়েছে সবচেয়ে নিরাপদ নভোমন্ডল ও ভূমন্ডল , স্বেচ্ছায় এবং অনিচ্ছাজনিত , এবং ওয়েই ফিরতে প্রতিটি 
এর ক্লাস্টার এবং ডালিম Alinver হয় জন্মায় এবং চাষ এবং মানুষ খায় তার মধ্যে বীজ দিন ও Alqahh বলতে 
মানুষ এর ঘর এবং গাভী এবং মেষ এছাড়াও underestimates স্বর্ণ ও রূপা , এমনকি যদি মানুষ শতাংশ দিনার বহন
তাই তিনি যে কেউ এটি গ্রহণ করে না এবং নারী তার গহনা বহন করে না, তাই সে চোর, একজন 
শাসক, পতিতা বা একজন পুরুষ খুঁজে পাচ্ছে না।
হাদিস - ১৬৩৯
হযরত ঈসা ইবনে সুলাইমান হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন, আমার নিকট এখবর পৌছেছে যে, যখন হযরত ঈসা ইবনে মারিয়াম আ. দাজ্জালকে হত্যা করবে এবং বাইতুল মাকদাসে অবস্থান করবে। তখন ইয়াজুজ মাজুজ প্রকাশ পাবে। আর তারা হল চব্বিশটি জাতি। (তারা হল) ইয়াজুজ, মাজুজ, ইয়ানাজীজু, জাজ, গাসলাইয়্যূন, সাবতিয়্যূন, ফাযনাইয়্যূন, ক্বওতানিয়্যূন, যারা এককান গায়ে জড়ায় আরেককান বিছানা বানায়, যাতিয়্যূন, কানয়ানিয়্যূন, দাফরাইয়্যূন, খাখূঈন, আনতারিয়্যূন, মাগাশিঊন এবং রুঊসুল কিলাব। সুতরাং তাদের সমষ্টি হল চব্বিশ জাতি। তারা যাদের পাশ দিয়ে অতিক্রম করবে, চাই মৃত হোক বা জীবিত, তাদের খেয়ে যাবে। যে পানির পাশ দিয়ে যাবে তা পান করে যাবে। তাদের প্রথমে আগমণকারীরা তাবরিয়া জলাশয়ের পানি পান করে ফেলবে। আর তাদের শেষে আগমণকারীরা সেখানে পানি পাবে না। অবশেষে তারা আরিহা নামক স্থানে একত্র হবে। যখন ঈসা আ. (তাদের ব্যাপারে) শুনবেন, তখন তিনি ও তার মুমিন সাথীরা প্রস্তরখন্ড দ্বারা আশ্রয়গ্রহণ করবে। অতপর তাদের মধ্যে একজন বক্তা দাড়াবে। অতপর সে আল্লাহ তা’আলার প্রশংসা করবে এবং তাাঁর গুণগান গাইবে। এবং বলবে, হে আল্লাহ! আপনার অনূস্বরণে অল্প সাহায্য করুন। আপনার গুনাহ (থেকে পরহেজ থাকার) বেশি সাহায্য করুন। কেউ কি প্রতিনিধি আছেন? তখন জুরহুম থেকে একজন প্রতিনিধি হবে। গাসসান হতে একজন প্রতিনিধি হবে। অবশেষে তারা দুইজন গিরিপথের নিচে নামবে। তারপর গাসসানী ব্যক্তি নিচে নামবে, তখন জুরহুমী ব্যক্তি তাকে বলবে, ওখানে ছিলাম না।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৩৯ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1639
ইয়াহইয়া ইবনে সাঈদ আমাকে বলেছিল সুলেইমান বিন ইসা বলেন 
শুনলেন য়ে যীশু পুত্র এর মেরি , 
শান্তি যদি হত্যা এর খ্রীষ্টশত্রু এবং অবতীর্ণ পবিত্র ঘর এর ফিরে এর ইয়াজুজ ও মাজুজ যারা বিশ হয় - চার জাতি এর 
ইয়াজুজ ও মাজুজ এবং Bnagij হজ্ব ও Alaslanin এডভেন্টিস্ট এবং Aelovesanyen এবং Alaotunaian তিনি 
যিনি তাঁর কান Ilthv এবং অন্যান্য বসে Alrtunaian, কনানীয়, Aldfranjan 
এবং Kakhunan এবং Alontarnin এবং Amoashanin এবং অলটারনেটর কুকুর সব এর তাদের বিশ - চার জাতি পাস না 
জেলা কিংবা মৃত , কিন্তু Cherboh এবং পানীয় জল ছাড়া পানি খেয়ে ফেলতাম প্রথম এর যাদের লেক Tabrah পাসের গত এর তাদের 
যীশুর কাছে আতঙ্ক শুনে যদি না পাই পানি এমনকি পেট Orah পূরণ শিলা এবং তার 
বিশ্বাসীদের যারা তাদের হইবে বাগ্মী Faihmd আল্লাহ ও তাঁর প্রশংসা 
এবং বলেছেন , এ ওহ পালনকর্তা সামান্য 
Masitk অনেক আনুগত্য Ventdb মানুষের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং টেনেছেন একটি ঘাসান থেকে মানুষ এমনকি ডাউনলোড করা জন্য 
নিচের এর আকাবা নামা Ghassani
পিতর তাঁকে বললেন Jerhma আমি সেখানে নেই
হাদিস - ১৬৪০
হযরত জুবাইর ইবনে নুফাইর রা. রাসূল সা. হতে বর্ণনা করে বলেন যে, ইয়াজুজ মাজুজ হতে মুসলমানদের দূর্গ হবে তূর পাহাড়।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৪০ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1640
আমাদের বলুন বাকি 
ইবনে আবী মারইয়াম 
থেকে আব্দুর রহমান বিন জাবির ইবনে Nufayr থেকে নবী , শান্তি হতে তার উপর , বলেন 
কেল্লা এর ইয়াজুজ ও মাজুজ ফেজ মুসলমানদের
হাদিস - ১৬৪১
হযরত কা’ব রা. হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, যখন ইয়াজুজ মাজুজের বের হওয়ার সময় হবে, তখন তারা এতটুকু পরিমান খনন করবে যে, তারা তাদের নিকটবর্তী লোকদের কুঠারের আঘাতের আওয়াজ শুনতে পাবে। অতপর যখন রাত আসে, তখন তারা বলে, আমরা আগামীকাল খুলবো এবং বাহির হবো। অতপর আল্লাহ তা’আলা উহাকে আগের অবস্থায় ফিরিয়ে দেন। অতপর তারা (পুনরায়) এতটুকু পরিমান খনন করবে যে, তারা তাদের নিকটবর্তী লোকদের কুঠারের আঘাতের আওয়াজ শুনতে পাবে। অতপর যখন রাত আসে, তখন তারা বলে, আমরা আগামীকাল খুলবো এবং বাহির হবো। অতপর আল্লাহ তা’আলা উহাকে আগের অবস্থায় ফিরিয়ে দেন। তারা (পুনরায়) এতটুকু পরিমান খনন করবে যে, তারা তাদের নিকটবর্তী লোকদের কুঠারের আঘাতের আওয়াজ শুনতে পাবে। অতপর যখন রাত আসে, তখন তৃতীয়বারে তাদের একজনের যবানে আলাøাহ তা’আলা (ইলকা করবেন) দান করবেন যার ফলে সে বলবে, যদি আল্লাহ তা’আলা চান, তাহলে আগামীকাল আমরা বের হবো। পরবর্তী দিন তারা খনন করবে, তখন তারা আগের দিন রেখেছিল তেমনি পাবে। অতপর তারা খনন করবে এবং বের হয়ে আসবে। অতপর তাদের প্রথম দল তাবরিয়ার জলাশয়ের পাশ দিয়ে অতিক্রম করবে এবং উহার পানি পান করে ফেলবে। অতপর তাদের দ্বিতীয়দল উহার মাটি চাটবে। অতপর তাদের তৃতীয়দল বলবে, এখানে একবার পানি ছিল। মানুষ তাদের থেকে পালয়ন করবে। তাদের জন্য কেউ দাড়াবে না। তিনি বলেন, অতপর তারা তাদের তীরন্দাজ দিয়ে আকাশে তীর নিক্ষেপ করবে। অতপর উক্ত তীরগুলো রক্তমাখা অবস্থায় ফিরে আসবে। তখন তারা বলবে, আমরা দুনিয়াবাসী ও আকাশবাসীদের হত্যা করেছি। অতপর হযরত ঈসা ইবনে মারিয়াম আ. তাদের জন্য বদদোয়া করে বলবেন, হে আল্লাহ! তাদের সাথে আমাদের শক্তি ও সামর্থ নেই। আপনি যেখাবে চান, তাদের ব্যাপারে আমাদের জন্য যথেষ্ঠ হোন। অতপর আল্লাহ তা’আলা তাদের উপর পোকা চাপিয়ে দিবেন। যাকে নাগাফ বলা হয়। তা তাদের ঘাড় ছিড়ে খাবে। অতপর আল্লাহ তা’আলা পাখি প্রেরণ করবেন, যা তাদেরকে তাদের ঠোট দিয়ে ধরে নিয়ে সমুদ্রে নিক্ষেপ করবে। অতপর আল্লাহ তা’আলা ঝর্ণা (প্রচুর বৃষ্টি) প্রেরণ করবেন, যা পৃথিবী ও পৃথিবীর উদ্ভিত কে পবিত্র করবে। অবশেষে একটি আনার হতে ’সাকান’ পরিতৃপ্ত হবে। হযরত কা’ব রা. বলেন, সাকান হল- ঘরবওয়ালারা।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৪১ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1641
আমাদের বলুন মুয়াম্মার আইয়ুব জন্য আব্দুর রাজ্জাক 
আবু দূরে 
থেকে গোড়ালি বলেন যদি এ প্রস্থান এর ইয়াজুজ ও মাজুজ এমনকি শোনা খনন এর যারা 
তাদের অনুসরণ Vaoshm পার্কাসন যদি রাত 
তারা বলেছিল আমরা আগামীকাল আমরা খোলা এবং আমরা Vieidh ঈশ্বর বাইরে যেতে হিসাবে এটি 
ছিল Faihvron এমনকি শোনা এর যারা তাদের অনুসরণ Vaoshm পার্কাসন যদি রাত 
তারা আমরা বলেছিলাম আগামীকাল 
আমরা খোলা এবং আমরা Vieidh ঈশ্বর বাইরে যেতে হিসাবে Faihvron ছিল 

পর্যন্ত [শুনতে] যারা তাদের অনুসরণ পার্কাসন 
Vaoshm যদি রাত ঠোঁট [ঈশ্বর] ছুড়ে ফেলে একটি এর মানুষ এর তাদের তৃতীয় 
আমরা বলেছেন 
আগামীকাল আমরা বাইরে যেতে, ঈশ্বর ইচ্ছুক Faihvron আগামীকাল Vigdonh তাকে Faihvron বাম এবং তারপর Vtmr বাইরে যেতে 
প্রথম চক্র তাদের মধ্যে কেউ গালীলের মধ্যে আছে, এবং তারা তাদের জল পান এন 
Tinha এবং তারপর তৃতীয় চক্র বলে হয়েছে একবার এখানে পানি নেই উইভার যাদের কোন এক উচিত 
নেই
এরপর তিনি স্বর্গ Fterdja রক্তাক্ত করার Nchabhm ছুড়ে ফেলে 
বলতে পারেন আছে 
নিহত মানুষ এর স্থলে ও মানুষ এর স্বর্গ তাদের যীশু ডাকছে পুত্র এর মেরি , 
সে নিজেকে ঈশ্বরের ক্ষমতা নেই বলে 
ঈশ্বর জন্য তাদের কিংবা Vacfnahm নিন্দা আপনি তাদের Visult চান Dwaba হয় বলেন করার myiasis Vtafrs আছে 
তাদের মধ্যে লাগে Bmnakirha Ftermehm তাদের necks এবং ঈশ্বরের পাখি পাঠায় সাগর এবং পাঠায় ঈশ্বর এর চোখ হয় বলেন করার 
আছে একটি জীবন শুদ্ধ পৃথিবী ও Tneptha এমনকি যদি ডালিম পূর্ণ এর হাউজিং জন্য তাদের [গোড়ালি বলেন 

আহলে হাউজিং আল বাইত
হাদিস - ১৬৪২
হযরত ওয়াহাব ইবনে জাবের আল খাইওয়াই রা. হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি হযরত আমর ইবনে আস রা. কে ইয়াজুজ মাজুজ সম্পের্ক আলোচনা করতে শুনেছি। তিনি বলেন, কোন পুরুষ তার বংশে একহাজার সন্তার হওয়ার পূর্বে সে মারা যায় না। আর তাদের পরে তিন জাতি আছে। যাদের সংখ্যা একমাত্র আল্লাহ তা’আলা ব্যতীত আর কেউ জানেনা। (তিন জাতি হল)- মানসাক, তাওয়ীল, তারীস।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৪২ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 164২
আমাদের মুয়াম্মার আবু ইসহাক ওয়াহাব বিন জাবের জন্য আব্দুর রাজ্জাক বলুন 
আল - Khaiwani বলেন 
আমি আব্দুল্লাহ ইবনে শুনেছি ' আমর ইবনুল - আস , আল্লাহ হতে পারে সন্তুষ্ট তাদের সামান্য ইয়াজুজ ও মাজুজ , 
বলেন মানুষ এর তাদের এমনকি জন্ম মারা তার তিন জাতির পেছনে ক্রুশবিদ্ধকরণ একটি [মানুষ] কিন্তু থেকে 
জানে তাদের আল্লাহ ছাড়া সংখ্যা মনসাক এবং ব্যাখ্যা এবং শিক্ষণ
হাদিস - ১৬৪৩
হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে সালাম রা. হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, ইয়াজুজ মাজুজের পুরুষরা একহাজার বা তার থেকে বেশি সন্তান-সন্ততি রেখে মারা যায়। হযরত ওয়াকী’ এ হাদীসটি বর্ণনা করেছেন। তাবে তিনি তার সনদে আমর ইবনে মাইমুনের কথা উল্লেখ করেন নাই।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৪৩ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1643
আমাদের বলুন Wakee উপাসকদের বিন সুলাইমান 
জনপ্রিয় আমর ইবনে Maimon থেকে জাকারিয়া 
আব্দুল্লাহ ইবনে সালাম রা মানুষের মারা যান নি 
ইয়াজুজ ও মাজুজ শুধুমাত্র ছাড়ার একটি হাজার পারমাণবিক অনওয়ার্ড , 
কিন্তু যে Kie আমর ইবনে মেমন উল্লেখ না
হাদিস - ১৬৪৪
হযরত যায়নাব বিনতে জাহাশ রা. হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূল সা. চেহারা লাল অবস্থায় ঘুম থেকে উঠলেন। আর তিনি বলতেছেন, আল্লাহ তা’আলা ব্যতীত আর কোন মা’বুদ নাই। আরবদের জন্য আফসোস! অনিষ্ট ঘনিয়ে এসেছে। আজ এভাবে ইয়াজুজ মাজুজের প্রাচীর খোলা হয়েছে। আর সুফিয়ান দশবার বেধেছে। অতপর আমি বললাম, হে আল্লাহর রাসূল! আমাদের মধ্যে সৎ লোক থাকা সত্বেও আমরা ধ্বংস হয়ে যাবো? তিনি উত্তরে বললেন, হ্যাঁ, যখন মন্দ বেশি হবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৪৪ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1644
আমাদের বলুন জয়নাব কন্যা থেকে সিফিলিস Erwa জন্য পুত্র Uyaynah এর আবু সালামা উম্মে হাবিবা 
জয়নাব মেয়ের জন্য একটি এর অশ্বশাবক , আল্লাহ সন্তুষ্ট হতে পারে , বলেন রসূল এর আল্লাহ awoke শান্তির আলাইহি ওয়া সাল্লাম 
ঘুম , একটি লালচে মুখ , সে নিজেকে ঈশ্বরের কিন্তু ঈশ্বর বলেন , দুর্ভোগ থেকে থেকে আরবদের মন্দ তটস্থ হয়েছে উদ্বোধনী দিনে 
এর সেতু ইয়াজুজ ও মাজুজ এমন অধিষ্ঠিত Sivan দশমাংশ 
আমি বললাম , হে আল্লাহর এর ঈশ্বর মধ্যে আমাদের বিনষ্ট এবং 
ধার্মিক 
বলেন, হ্যাঁ যদি অনেক ধাতুমল
হাদিস - ১৬৪৫
হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা. হতে বর্ণিত, তিনি দাজ্জালের অভির্ভাব, ঈসা ইবনে মারিয়াম আ. এর অবতরণ, হযরত ঈসা আ. কর্তৃক দাজ্জালের হত্যার ব্যাপারে আলোচনা করেছেন। (এ প্রসঙ্গে আলোচনার পর) তিনি বলেন, অতপর ইয়াজুজ মাজুজ তরঙ্গের মতো পৃথিবীতে আসবে এবংং ধ্বংসলীলা চালাবে। অতপর হযরত আব্দূল্লাহ রা. এআয়াত পড়লেন, ’অতপর তারা প্রত্যেক উচু জায়গা হতে আসবে।’ সূরা- আম্বিয়া, ৯৬। অতপর আল্লাহ তা’আলা তাদের উপর এই রকম উটের নাকে পোঁকার মতো পোঁকা পাঠাবেন। তা তাদের কানে ও নাকে ছিদ্র দিয়ে প্রবেশ করবে। ফলে তারা মৃত্যু বরণ করবে। অতপর তাদের কারণে যমিন দূর্গন্ধ হয়ে যাবে। অতপর আল্লাহ তা’আলার নিকট উচ্চস্বরে দোয়া করবে। ফলে আল্লাহ তা’আলা তাদের থেকে পৃথিবীকে পবিত্র করবেন।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৪৫ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1645
আমাদের বলুন ছেলে Namir সুফিয়ান সালামা ইবনে 
আবু Azaara থেকে Kuhayl 
আব্দুল্লাহ বিন মাসউদ থেকে রা হতে পারে সে বাইরে বলেন এর খ্রীষ্টশত্রু 
এবং বংশদ্ভুত এর যীশু পুত্র এর মেরি , এবং বধ খ্রীষ্টশত্রু , 
বলেন তারপর ইয়াজুজ ও মাজুজ মধ্যে Vemujon বাইরে আসতে জমি 
Vivsdoa যেখানে 
তিনি আব্দুল্লাহ পড়া , সব স্খলন থেকে হয় 
তিনি বললেন, আল্লাহ তা'আলা 
তাদের মত একটি পশুরূপে প্রেরণ করবেন , অতঃপর তারা তাদের কানে ও নাসারসমূহে পতিত হবে এবং তাদের মৃত্যুবরণ 
করবে।
হাদিস - ১৬৪৬
হযরত আবু যাহেরা রা. হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, ইয়াজুজ মাজুজ মানুষদের তুর পাহাড়ে অবরুদ্ধ করে রাখবে। এমনকি ঘাড়ের মাথার মূল্য একশত দিনার হবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৪৬ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1646
আমাদের বলুন বাকি এর ইবন আল - ওয়ালিদ ও আবু 
আবু বকর ইবনে আবী মারইয়াম থেকে marauding 
আবু Zahrieh থেকে তিনি বলেন মানুষ ইয়াজুজ ও মাজুজ সীমাবদ্ধ 
মধ্যে ফেজ পর্যন্ত ষাঁড় এর মাথা চেয়ে ভাল একটি শত দিনার
হাদিস - ১৬৪৭
হযরত কা’ব এবং শুরাইহ ইবনে উবাইদ রা. হতে বর্ণিত, তারা বলেন, ইয়াজুজ মাজুজ তিন প্রকার। একপ্রকার- তাদের উচ্চতা আরয গাছের মতো। আরেক প্রকার- তাদের উচ্চতা ও প্রশস্ততা সমান। আরেক প্রকার- তাদের প্রত্যেকে তাদের এক কান বিছানা বানায় এবং আরেক কান সারা শরীরে জড়ায়।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৪৭ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1647
আমাদের বলুন পুত্র এর সিদ থেকে দান 
বিন সালেহ ইয়াহইয়া ইবনে জাবের বিন Hder ক্রেপ 
জন্য গোড়ালি এবং Shurayh বিন Obeid বলেন ইয়াজুজ ও মাজুজ 
এমন তিন জাতের যেমন চাল ও শ্রেণী দৈর্ঘ্য বর্গ দৈর্ঘ্য এবং প্রস্থ বর্গ এক কান বসে Ilthv কিনা 
অন্যান্য জুড়ে বাকি এর তার শরীরের
হাদিস - ১৬৪৮
হযরত কা’ব রা. হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, ইয়াজুজ মাজুজের সময় মানুষের দূর্গ হবে তূরে সাইনা পর্বত।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৪৮ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1648
আমাদেরকে ইবনে ওয়াহাব থেকে মুয়াবিয়া ইবনে সালেহ থেকে ইয়াহইয়া বিন 
জাবের এবং উড়িষর ইবনে কেরীবকে বলুন 
যে, গগ ও মাগোগ সিনাতের দিন জনগণের দুর্গ
হাদিস - ১৬৪৯
হযরত হাসসান ইবনে আতিয়া রা. হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, ইয়াজুজ মাজুজ দুটি জাতি। প্রত্যেক জাতিতে একলাখ জাতি। যা অন্য জাতির সাথে সাদৃশ্য নয়। সন্তান সন্ততি একশত চোখ না দেখা পর্যণÍ কোন লোক মারা যায় না। অর্থাৎ একশত সন্তান।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৪৯ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1649
আমাদের আবু Awzaa'i marauding সম্পর্কে আমাদের বলুন 
হাসান বেন আত্তিয়া ইয়াজুজ ও মাজুজ থেকে তিনি বলেন যে এ দুই দেশের 
জাতি এর এক লক্ষ বলে মনে হচ্ছে না অন্যান্য জাতি , কিংবা মানুষ এমনকি দেখা মরা একটি ছেলের শত চোখ মানে 
এক শত শিশু
হাদিস - ১৬৫০
হযরত ইবনে উমর রা. হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূল সা. বলেছেন, আমার উম্মত অনুগ্রহপ্রাপ্ত। তাদের উপর আখেরাতে কোন শাস্তি নেই। তাদের শাস্তি দুনিয়াতে। ভূমিকম্প ও বিপদ-আপদ। যখন কিয়ামাত হবে, তখন আমার উম্মতের প্রত্যেক ব্যক্তিকে আল্লাহ তা’আলা ইয়াজুজ মাজুজ হতে একজন কাফের ব্যক্তি দিবেন। অতপর বলা হবে, এটা তোমার জাহান্নাম হতে মুক্তিপণ। অতপর একব্যক্তি প্রশ্ন করলো- হে আল্লাহর রাসূল সা. তাহলে কিসাস কোথায়? তখন রাসূল সা. চুপ থাকলেন।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৫০ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1650
আমাদের বলুন ছেলে এর থেকে দান মুসলিম বিন আলী আবদ আল - রহমান ইবনে ইয়াযীদ 
ইবনে শিহাব 
ইবনে 'উমরের থেকে বলেন রসূল এর আল্লাহ , সা 
আমার জাতি Mercifull শাস্তি না মধ্যে পরকাল আযাব এই বিশ্ব , ভূমিকম্প এবং প্লেগ । তাহলে 
ডে এর কেয়ামতের , ঈশ্বর প্রতিটি মানুষের দিলেন থেকে আমার মানুষের ইয়াজুজ ও মাজুজ এর কাফের হয় বলেন 
থেকে এই মুক্তিপণ আগুন 
লোকটি বলল , হে আল্লাহর এর আল্লাহ , যেখানে শাস্তি 
Vskt
হাদিস - ১৬৫১
হযরত ইবনে মাসউদ রা. হতে বর্ণিত, তিনি বলেন ইয়াজুজ মাজুজ হতে প্রত্যেক ব্যক্তি একহাজার সন্তান সন্ততি বা তার থেকে বেশি রেখে মারা যায়।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৫১ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1651
ইশা বিন ইউনুস জাকারিয়া সম্পর্কে আমাদের বলুন আমর আমাকে আমর ইবনে মীমনকে 
ইবনে 
মাসউদকে বলেছে গোগের কাছ থেকে মরতে হবে না, তবে হাজার হাজার সন্তানসন্ততি বাকি থাকবে
হাদিস - ১৬৫২
হযরত আতিয়া ইবনে কাইস এবং যামরা রা. হতে বর্ণিত, তারা বলেন, যমিন সমুদ্র হতে বেশি প্রসস্ত ষাড়ের বাসস্থান দ্বারা।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৫২ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ -
আবদুল 
Qudus আবু বকর থেকে Atiyah বিন Qais এবং ধর্ম সম্পর্কে 
তারা আমাদের বলেন যে, তারা বলেন: "জমি একটি বেল এর উপনদ মধ্যে সমুদ্রের চেয়ে বৃহত্তর।"
হাদিস - ১৬৫৩
হযরত ইবনে আব্বাস রা. রাসূল সা. হতে বর্ণনা করে বলেন, যখন আল্লাহ তা’আলা আমাকে উঠিয়ে নিয়েছিলেন, তখন আমাকে ইয়াজুজ মাজুজের নিকট পাঠালেন। অতপর আমি তাদের আল্লাহ তা’আলার দ্বীন ও তাঁর অনুগত্যের প্রতি আহবান করলাম। আর তারা আমার ডাকে অস্বীকৃতি জানালো। সুতরাং তারা আদম আ. এবং ইবলিসের সন্তান যারা অপরাধ করে, তাদের সাথে জাহান্নামে থাকবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৫৩ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ -
আমাদের কাছ থেকে নূহ ইবনে আবী মারইয়াম বলুন জঙ্গী বেন Hayan Akrama 
ইবনে আব্বাস থেকে , হতে পারে 
আল্লাহ সন্তুষ্ট হতে সঙ্গে নবী শান্তি পরে তার আমাকে পাঠিয়েছেন দাবি করেছেন, আল্লাহ যখন আমার পরিবার হতে 
করার ইয়াজুজ ও মাজুজ Vdautem ধর্ম এর ঈশ্বর ও Vobwa উপাসনা করতে যে Giebona বোঝার আগুন 
লাঠি জন্ম আদম ও শয়তানের পুত্র
হাদিস - ১৬৫৪
হযরত ওয়াহাব ইবনে মানবাহ রা. হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, রোম হল প্রথম নিদর্শন। অতপর দাজ্জাল। তৃতীয় হল ইয়াজুজ মাজুজ। অতপর ঈসা আ.।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৫৪ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1654
ইবনে আবু আইয়াশ সম্পর্কে আমাদের বলুন , marauding শেখ 
ওয়াহাব বিন বিপদাশঙ্কা থেকে বললেন প্রথম রোমান আয়াত এবং তারপর খ্রীষ্টশত্রু এবং তৃতীয় ইয়াজুজ ও মাজুজ , এবং ইসা
হাদিস - ১৬৫৫
হযরত আব্দুল্লাহ রা. রাসূল সা. হতে বর্ণনা করে বলেন, যখন ঈসা আ. দাজ্জালকে হত্যা করবে এবং তার সাথে যারা থাকবে, তারা অবস্থান করবে। এমনকি ইয়াজুজ মাজুজের দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হবে। তখন তারা তরঙ্গায়িত হয়ে যমিনে এসে ধ্বংসলীলা চালাবে। তা যে জিনিসের পাশ দিয়েই অতিক্রম করবে তা নষ্ট ও ধ্বংস করে দিবে। তারা যে পানি, ঝর্ণা, নদীর পাশ দিয়ে অতিক্রম করবে তা শেষ করে দিবে। সুতরাং যার নিকট একথা পৌছবে, সে যেন কখনো দূর্গ, সিরিয়ার শহর, উপদ্বীপ ধ্বংস না করে। কেননা ইয়াজুজ মাজুজ হতে মুসলমানদের দূর্গ হবে তুরে সাইনা পাহাড়। অতপর মানুষ আল্লাহ তা’আলার নিকট ইয়াজুজ মাজুজের ধ্বংস কামনা করবে। তাদের দোয়ায় সাড়া দেয়া হবে না। তূরে সাইনার অধিবাসী এবং যাদের হাতে আল্লাহ তা’আলা কুস্তুনতুনিয়া বিজয় দান করেছেন, তারা দোয়া করবে। ফলে আল্লাহ তা’আলা তাদের জন্য চার পা বিশিষ্ট প্রাণী পাঠাবেন। অতপর তা তাদের কানের মধ্যে প্রবেশ করবে। ফলে সকলেই মারা যাবে। অতপর যমিন তাদের গন্ধে দূর্গন্ধ হয়ে যাবে। তাদের দূর্গন্ধ মানুষকে তাদের জীবিত থাকার চেয়ে অনেক বেশি কষ্ট দিবে। ফলে তারা আল্লাহ তা’আলার নিকট বৃষ্টি কামনা করবে। তখন আল্লাহ তা’আলা ডান দিক হতে ধূলিময় বাতাশ প্রেরণ করবেন। যা মানুষের উপর প্রচন্ড অন্ধকার ও ধোঁয়াময় হবে। এবং মুমিনদের সর্দি হবে। তখন তারা তাদের প্রতিপালকের নিকট প্রর্থনা করবে। এবং তূরে সাইনাবাসীরাও দোয়া করবে। ফলে আল্লাহ তা’আলা তিন দিন পর তাদের যা হয়েছে তা দূর করে দিবেন। আর ইয়াজুজ মাজুজকে সমুদ্রে নিক্ষেপ করা হয়েছে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৫৫ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1655
আমাদের কাছ থেকে আবু ওমর ইবনে Hiệp আব্দ ওয়াহাব বিন হুসাইন মুহাম্মদ ইবনে সাবেত বলুন 
হারেস থেকে তার পিতা 
থেকে আব্দুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম , শান্তি হতে তার উপর তিনি বলেন যদি যীশু নিহত 
খ্রীষ্টশত্রু এবং তার অনুসারীদের মানুষ এমনকি বিরতি থাকুন বাঁধ এর মধ্যে ইয়াজুজ ও মাজুজ Vemujon স্থল , এবং করা নষ্টামি না 
কিন্তু কিছু পাস পয়মাল এবং Ohkouh পানি মাধ্যমে ক্ষণস্থায়ী এবং চক্ষু হয় না একটি নদী কিন্তু Nzvoh এবং ক্ষণস্থায়ী 
Badiglh ইউফ্রেটিস এবং এটা তাদের ডাউন ছিল টাইগ্রীস বা নীচে এর ইউফ্রেটিস , 
সে এখানে হয়েছে হয় একবার 
পানি এই আলাপ পৌঁছে হয় না Ahedmn দুর্গ কিংবা শহর এর Baham এবং দ্বীপ এটা একটি হল দুর্গ 
জন্য ইয়াজুজ ও মাজুজ মুসলমানদের সিনা Vistgat মানুষ উন্নত Brabham ধ্বংস ইয়াজুজ ও মাজুজ না 
হার মানবো করতে তাদের এবং মানুষ সিনা উন্নত এবং তার এম আল্লাহ্ তাদের হাতে কনস্টান্টিনোপল খোলা Vidon প্রভু 
ঈশ্বরের সৃষ্টি করার তালিকা সঙ্গে তাদের এর চল্লিশ জীব তাদের কানে Faisbhawwa মৃত সঙ্গী Vtantn হস্তক্ষেপ
জমি নিয়ে তাদের Viwve মানুষ Ntnem উপর চেয়ে কারণ তারা ছিল জীবিত Vistgathon ঈশ্বরও কারণ তাদের 
ঈশ্বর এর বাতাস Imanih Gbra হয়ে মানুষ তীব্র Gumi এবং ধোঁয়া এবং হয় অবস্থিত 
মানুষ সিনা Vekshv ঈশ্বর উন্নত কল বিশ্বস্ত Zkmh Vistgathon Brabham , তাদের পর 
তিন দিনের মধ্যে ইয়াজুজ ও মাজুজ গুলি করা হয় সমুদ্র
হাদিস - ১৬৫৬
হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আমর রা. হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, ইয়াজুজ মাজুজের প্রথমজনেরা দাজলা নদীর মতো নদীর পাশ দিয়ে অতিক্রম করবে। অতপর তাদের শেষজনেরাও সেখান দিয়ে অতিক্রম করবে আর বলবে, এখানে একবার পানি ছিল। তাদের কোন পুরুষ একহাজার বা তার থেকে বেশি সন্তান সন্ততি রাখা ব্যতীত মৃত্রু বরণ করে না। তাদের পরে তিনিিট জাতি। তাদের সংখ্যা আল্লাহ তা’আলা ব্যতীত আর কেউ জানে না। (তিনটি জাতি হল)- তাওয়ীল, তারীস এবং নাসীক অথবা নাসাক। সনদে শু’বা হতে সন্দেহ।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৫৬ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1656
থেকে আমাদের মুহাম্মদ বিন জাফর বলুন বিভাগ এর 
শুনেছেন আবু ইসহাক ওয়াহাব বিন জাবের 
হযরত আবদুল্লাহ ইবনে আমর বলেন, ইয়াজুজ ও মাজুজ পাসের 
প্রথম এর তাদের একটি যেমন নদী টাইগ্রীস Fimrakm বলে এই সময় পানি হয়েছে হয় না একটি মানুষ এর তাদের মরা 
শুধুমাত্র [এবং] তার সন্তানসন্ততি আলফা অগ্রে ও তাদের পরবর্তীদের অবস্থা থেকে বাম তিন জাতির জানি না , কিন্তু আল্লাহ তাদের প্রতিশ্রুত 
ইউনেস্কো সন্দেহ ব্যাখ্যা এবং Tarrisse এবং নির্জনবাসী বিভাগ
হাদিস - ১৬৫৭
হযরত আব্দুুল্লাহ রা. হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, যখন আল্লাহ তা’আলা ইয়াজুজ মাজুজকে নিয়ে যাবেন। তখন আল্লাহ তা’আলা তীব্র ঠান্ডা বাতাশ প্রেরণ করবেন। যা যমিনের উপরে একজন মুমিন বান্দাকেও ছাড়বে না; বরং উক্ত বাতাশ দ্বারা প্রত্যেকের রুহ কবজ করা হবে। অতপর খারাব লোকদের উপর কিয়ামাত সংগঠিত হবে। তারপর সিঙ্গায় ফুঁক দেয়া হবে। ফলে আকাশ ও যমিনে কোন সৃষ্টিজীব থাকবে না, বরং প্রত্যেকেই মৃত্যু বরণ করবে। তবে আল্লাহ তা’আলা যাকে চান। (তাকে বাচিয়ে রাখবেন।) অতপর দুই ফুঁৎকারের মধ্যে আল্লাহ তা’আলা যা চান তাই হবে। অতপর আল্লাহ তা’আলা মানুষের মনীর মতো মনী প্রেরণ করবেন। উক্ত মনী হতে তাদের (মানুষের) শরীর, গোস্ত জন্মাবে ।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৫৭ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1657
আমাদের বলুন ছেলে Namir এবং পুত্র এর মুবারক এর 
বিপ্লবী সুফিয়ান সালামা ইবনে Kuhayl আমার পিতা Azaara সম্পর্কে তাকে বলেন 
আব্দুল্লাহ বলেন, , যদি আমি যেতে 
ঈশ্বর Baojoj ও মাজুজ ঈশ্বর বায়ু Zmehrara ঠান্ডা পাঠানো সবকিছু ধ্বংস না মুখ এর পৃথিবী বিশ্বাসী শুধুমাত্র 
ঐ বাতাস ধরা এবং উপর ঘড়ি তারপর সবচেয়ে মন্দ মানুষ এবং তারপর গাট্টা চিত্র থাকা না সৃষ্টি এর ঈশ্বর 
মধ্যে নভোমন্ডল ও প্রজননকারীরাই প্রভু তারপর কি ঈশ্বর দুই শিঙ্গায় ইচ্ছা এর মধ্যে হতে ইচ্ছা ব্যতীত ভূপৃষ্টে - বিস্ফোরণ এবং তারপর পাঠায় 
ঈশ্বর এর মিনিয়া পুরুষদের সম্পর্কে Jsmanhm এবং Hmanhm প্ররোহ যে জল পাঞ্চ
হাদিস - ১৬৫৮
হযরত তুবাই’ রা. হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, যখন হযরত ঈসা ইবনে মারিয়াম আ. ও তার সাথীবর্গরা ইয়াজুজ মাজুজ হতে ফিরে বাইতুল মাকদাসে যাবে, তখন তারা বাইতুল মাকদাসে অনেক বছর থাকবে। (অতপর) তারা এক দিক হতে বিশৃংখল ধূলিময় কিছু দেখবে। অতপর তারা তাদের কতককে তা দেখার জন্য পাঠাবে যে, সেটা কি? আর সেটা হল বাতাশ, যা আল্লাহ তা’আলা মুমিনদের রুহ কবজ করার জন্য প্রেরণ করেছেন। আর সেটাই হল শেষ দল, যা মুমিনদের রুহ কবজ করা হবে। আর তাদের পরে মানূুষ একশত বছর জীবিত থাকবে। তারা দ্বীন ও সুন্নাহ চিনবে না। তারা একে অন্যের উপর গাধার ন্যায় আক্রমন করবে। তাদের উপর কিয়ামাত সংগঠিত হবে। আর তারা বাজারে ক্রয় বিক্রয় করতে থাকবে, কথা বার্তা, মেলা মেশা করতে থাকবে, ফলে তারা তাদের পরিবারের নিকট ফিরে যাবার সুযোগ পাবে না।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৫৮ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1658
আমাদের বলুন বাকি এর 
ইবন আল - ওয়ালিদ ও তার বাবার Haywah Shurayh বিন ইয়াযীদ হাদরামী এবং Jnadp বিন ঈসা আল জন্য Azdi ও আবু আইয়ুব 
Oirtah বিন মুনযির 
বলেন করার আমাদের আবু আমের Alolhana গোড়ালি জন্য বিক্রি সম্পর্কে এবং কিছু বললেন এর 
বিক্রি করেনি সামান্য তলা জন্য তাদের 
বললেন যীশু পুত্র এর মেরি চলে গেল , এবং গোগ এর বিশ্বাসীদের 
জেরুশালেমে ও মাজুজ কতকাল অবস্থান বছর , ঘর এর বাইবেল ব্যাখ্যা একটি দ্বারা শরীর এর থেকে কোন্দল এবং ধূলিকণা গহ্বর 
Phipposon কিছু এর তাদের জন্য বিবেচনা এর কি , যদি বাতাস এর ঈশ্বর ক্যাপচার পাঠানো জীবনে এর যারা ঈমানদার, তারা 
বিশ্বাসীদের অন্য গ্যাং গ্রেফতার ও তাদের পরবর্তীদের অবস্থা মানুষ রাখা একটি শত বছর জানি না আমরা কোন বছর আছে 
Athagron Tharj গাধার উপর তাদের তারা হয় তাদের নিজ নিজ বাজারে Epton এবং Itbaaon এবং উত্পাদন 
এবং জোরাজুরি ওয়েন সুপারিশ বা তাদের বাবা ফিরে আসতে না পারেন,
হাদিস - ১৬৫৯
হযরত হুযাইফাতুল ইয়ামান রা. রাসূল সা. হতে বর্ণনা করে বলেন, হযরত ঈসা আ. এর পর কোন ব্যক্তির ঘোড়া সন্তান জন্ম দিলে সে উক্ত অশ্বশাবকের উপর আরোহন করতে পারবে না। এমনকি কিয়ামাত সংগঠিত হয়ে যাবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৫৯ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ --1,659
আমাদের সম্পর্কে আমাদের বলুন পুত্র এর Damra 
আবু Altaah খালেদ বিন Subaie থেকে Hozb 
হুযাইফা ইবনুল - ইয়ামন আল্লাহর পক্ষ থেকে তার প্রতি সন্তুষ্ট হতে পারে নবী , 
শান্তি হতে তার উপর বলেন যদি কোন লোক হয়েছে উত্পাদিত না একটি যতক্ষণ যীশু পরে তার যৌতুক অশ্বচালনা ঘোড়া 
সময়
হাদিস - ১৬৬০
হযরত আবু হুরাইরা ও আব্দুল্লাহ ইবনে আমর রা. হতে বর্ণিত, তারা বলেন, অতপর আল্লাহ তা’আলা ইয়াজুজ মাজুজের পর একটি ভালো বাতাশ প্রেরণ করে হযরত ঈসা আ. ও তার সাথীদের এবং দুনিয়ার সকল মুমিনদের রুহ কবজ করবেন। হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আমর রা. বলেন, অবশিষ্ট কাফেরগণ একশত বছর জীবিত থাকবে। আর তারা হল পূর্ব ও পরের সকল সৃষ্টিজীবের থেকে নিন্দনীয়। হযরত আবু হুরাইরা রা. বলেন, মুমিনগণের পর কোন কাফের স্থায়ী হবে না, বরং তাদের উপর কিয়ামাত সংগঠিত হবে। তার একথা বলার কারণ হল, রাসূল সা. এর এই বাণী- আমার উম্মতের একটি দল আল্লাহ তা’আলার আদেশে সর্বদা হকের উপর যুদ্ধ করবে। তাদের বিরোধীতাকারীদের বিরোধীতা তাদের কোন ক্ষতি করতে পারবে না। যখনই একটি দল চলে যাবে, আরেকটি দল সৃষ্টি হবে। এমনকি কিয়ামাত সংগঠিত হবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৬০ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1660
আমাদের জন্য হাকাম ইবনে Nafie বলুন একটি Oirtah জন্য সার্জন যারা তাকে সম্পর্কে বলা গোড়ালি , বলেন 
আবু হুরায়রা এবং আব্দুল্লাহ ইবনে আমর , তারপর ঈশ্বর ইয়াজুজ ও মাজুজ ভাল বাতাসের পিছনে পাঠায় 
Vtqd আত্মা এর যীশু ও তাঁর সঙ্গীদের এবং পৃথিবীর প্রত্যেক বিশ্বাসী 
হযরত আবদুল্লাহ ইবনে আমর বলেন , রয়ে যায় 
দেহাবশেষ এর কাফের কে সবচেয়ে অনিষ্ট সৃষ্টি প্রথম দুই এবং অন্যান্য এক শত বছর 
, বলেন আবু Hurayrah হয় না 
কাফের হওয়ার পরে অবশিষ্ট থাকে যতক্ষণ না আপনি তাদের বিশ্বস্ত 
, সময় বলতে রসূল এর আল্লাহ , শান্তি বর্ষিত হোক 
আল্লাহ আমার জাতির মই গ্যাং ওয়া সাল্লাম এখনো অধিকার জন্য লড়াই করছে থেকে ঐ মধ্যে চার্জ দ্বারা অর্ডার এর ঈশ্বর তাদের ক্ষতি নেই 
এর অন্যথায় ধার্মিক যখনই তিনি পার্টি বেড়ে গিয়ে আপ ঘন্টা পর্যন্ত অন্যদের
হাদিস - ১৬৬১
হযরত কা’ব রা. হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, ইয়াজুজ মাজুজের পর মানুষ দশ বছর স্বাচ্ছন্দ, উর্বর ও শান্তিতে বসবাস করবে। এমনকি দুইজন ব্যক্তি একটি ডালিম বহন করবে। তারা আঙ্গুরের একথোকা বহন করবে। অতপর তারা এভাবে দশ বছর বসবাস করবে। অতপর আল্লাহ তা’আলা তাদের উপর একটি ভালো বাতাশ প্রেরণ করবেন। তা একজন মুমিনকেও ছাড়বে না, বরং প্রত্যেকের রুহ কবজ করবে। অতপর অবশিষ্ট মানুষরা চরণক্ষেত্রে গাধার ন্যায় একে অপরের উপর আক্রমন করবে। আর তাদের ঐঅবস্থার উপরই তাদের উপর আল্লাহ তা’আলার হুকুম ও কিয়ামাত আসবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৬১ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1661
আমাদের বলুন বাকি এর বিন 
আবু বকর ইবনে আবী মারইয়াম আবু Zahrieh থেকে ওয়ালিদ ও আবু marauding 
থেকে গোড়ালি , স্থিত বলেন 
দশ বছর ইয়াজুজ ও সমৃদ্ধি, উর্বরতা মধ্যে মাজুজ এবং Da'p পর মানুষ , এমনকি যদি দুই পুরুষ বহন 
করে দশ আর্গুমেন্ট উপর ডালিম এক এবং তাদের আঙ্গুর এক থোকা বহন Vimkthon 
তারপর ঈশ্বর পাঠায় দেবেন না একটি ভাল বায়ু বিশ্বাসী শুধুমাত্র তার আত্মা বন্দী এবং তারপর মানুষ রাখে তারপর 
তারা Tharj যেমন গাধার মত fornicates হবে Meadows Viotehm ঈশ্বর ও সময় তারা হয় এটা
হাদিস - ১৬৬২
হযরত ওয়াহাব ইবনে মানবাহ রা. হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, (কিয়ামাতের নিদর্শন সমূহ হল) রোম, অতপর দাজ্জাল, অতপর ইয়াজুজ মাজুজ, অতপর হযরত ঈসা আ., অতপর ধোঁয়া।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৬২ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 166২
হযরত 
ইবনে আইয়শের হাদীস থেকে শেখা থেকে ওয়াহাব ইবনে মুনাবা সম্পর্কে হযরত আবু আল মুগীরা বর্ণনা করেছেন যে 
রোমান ও তারপর দাজ্জাল তারপর গগ ও মাগোগ তারপর ঈসা এবং তারপর ধোঁয়া
হাদিস - ১৬৬৩
হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আমর রা. হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, লোকজন হযরত ঈসা আ. এর সাথে সুখ শান্তিতে বাস করার কিছু সময় (বছর) পর, ডান দিক হতে একটি বাতাশ আসবে। উহার স্পর্শ রেশমের স্পর্শের ন্যায়। উহার বাতাশ মিশকের ন্যায়। তা প্রত্যেক মুসলমানের রুহ কবজ করে নিবে। অতপর লোকজন বলবে, আমরা কতদিন এই দ্বীনের উপর থাকবো? অতপর তারা তাদের পূর্বপুরুষের ধর্মে ফিরে যাবে। এমনকি তারা তাদের পূর্বপুরুষরা যে জিনিসের ইবাদাত করতো, সে সকল জিনিসের ইবাদাত করবে। আর একথার ইঙ্গিতই হযরত আবু হুরাইরা রা. এর এবক্তব্যÑ কেমনযেন আমি ওয়াদ গোত্রের নিতম্ব মোটা মহিলাদের সাথে, যারা বিশৃংখলা করেছে এবং যুল খালাসা (একটি মূর্তি) এর ইবাদাত করবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৬৩ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1663
আমাদের বলুন ছেলে এর থেকে দান 
Hiệp এবং লাইস ইবনে সাদ খালিদ বিন ইয়াযীদ বিন ছেলে মো আবু সালামা আবু হিলাল 
থেকে 
আব্দুল্লাহ ইবনে ' আমর রা [পর] জন কি হয় যীশু শান্তি সঙ্গে আশীর্বাদ হতে তার উপর যখন হয় বাতাস গ্রহণ 
Imanih স্পর্শ কোষাগার এবং সুবাস বাতাস কস্তুরী Vtstkhrj আত্মা স্পর্শ এর সব মুসলিম এবং তারপর মানুষ এমনকি যখন বলে 
আমরা হয় এই ধর্ম ধর্ম এর বাপ আবার এমনকি উপাসনা তাদের বাপ ঋত এটা আসবে হয় 
দৃশ্য এর আবু Hurayrah যদি আমি ডস নারী পূজা Astafqat একটি Alkhalsh মেকানিজম আছে
হাদিস - ১৬৬৪
হযরত আবু হুরাইরা রা. রাসূল সা. হতে বর্ণনা করে বলেন, আল্লাহ তা’আলা ডান দিক হতে একটি বাতাশ প্রেরণ করবেন। যা ফেনার থেকেও নরম (আরামদায়ক), মধূর চেয়ে মিষ্টি হবে। উক্ত বাতাশ এমন কোন ব্যক্তিকে ছাড়বে না যার অন্তরে কুরআন শরীফের একটি আয়াতও আছে, বরং তা নিয়ে যাবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৬৪ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1664
আমাদের বলুন পুত্র এর আবু সাখর ইয়াযীদ বিন আব্দুল্লাহ বিন Ksat থেকে Haywah থেকে দান 
আবু Hurayrah থেকে , 
আল্লাহ হতে পারে হতে সন্তুষ্ট সঙ্গে থেকে তাকে নবী , শান্তি হতে তার উপর তিনি দাবি করেছেন, আল্লাহ পাঠায় একটি ইমেন অ্যালেন থেকে বায়ু 
মাখন এবং মধুর চেয়ে মিষ্ট ছেড়ে না একটি তার হৃদয় মানুষ , একটি থেকে শ্লোক কোরান , কিন্তু আমি বাইরে গিয়ে
হাদিস - ১৬৬৫
হযরত হুযাইফাতুল ইয়ামান রা. হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, ইসলাম পাঠ করা হবে, যেমনিভাবে পাঠ করা হয় কাপড়ের অলংকার। এমনকি (মানুষ) জানবে না, রোজা কি, সদকাহ কি, ইবাদাত কি। একরাত্রে আল্লাহ তা’আলার কিতাব উঠিয়ে নেয়া হবে। ফলে পৃথিবীতে একটি কুরআন শরীফের একটি আয়াতও রাখা হবে না। মানুষ হতে অধিক ঘোরাফেরাকারী অবশিষ্ট থাকবে। তাদের মধ্যে থাকবে, অতিবৃদ্ধ এবং অতিঅক্ষম। তারা বলবে, আমরা আমাদের পুর্বপুরুষদের ’লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ’ এই কালিমার উপর পেয়েছি। সুতরাং আমরাও তা বলবো। তাকে সিলাহ ইবনে যুফার বললেন, তিনি তার সাথে বসা ছিলেন। (তিনি বললেন,) লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ কি ফায়দা দিবে? তারাতো রোজা কি, সদকাহ কি, ইবাদাত কি, জানেনা। হযরত হুযাইফা রা. তার থেকে তিনবার মাথা ঘুরিয়ে নিলেন। এবং বললেন, হে সিলাহ! তা তাদের দুইবার বা তিনবার মুক্তি দিবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৬৬৫ ]
___________________________________
নাঈম বিন হাম্মাদ - 1665
আমাদের বলুন আবু সিদ দুটি ত্রৈমাসিক পর্বে ছেলে Hrash থেকে আমাকে আবূ মালেক Ashja'i বলেন 
হুযাইফা ইবনুল - ইয়ামন 
বলেন , ইসলাম শেখানো শি পোষাক যেমন অধ্যয়নরত তাই যে এক জানে না কি উপবাস হয় দাতব্য কিংবা nsk না এবং বাম বই এর মধ্যে গড অলমাইটি রাত হয় না বাম জমি এর তাকে একটি সাইন এবং শেখ সহ জনগণের অবশিষ্ট গোষ্ঠীর পুরাতন বড় বড় বলে আমরা এই শব্দটির উপরে আমাদের পিতৃপুরুষদের উপলব্ধি হয় আল্লাহ ব্যতীত কোন উপাস্য , আমরা করা এটা বলেন লিঙ্কযুক্ত হয়েছিল করার বিন জাফর, তাঁর সঙ্গে বসা এবং sings সম্পর্কে তাদের নেই কোন উপাস্য আল্লাহ এবং তারা জানে না কি উপবাস হয় খয়রাত না কিংবা nsk বিমুখ থেকে তাকে হুযাইফা তিনবার এবং তারপর তিনি বলেন হে লিংক Tanjiehm দ্বিগুণ অথবা তিনটি

Desktop Site