এসো হাদিস পড়ি ?

এসো হাদিস পড়ি ?

হাদিস অনলাইন ?

মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা: কিতাব ফিতন

হাদিস - ১

   আব্দুর রহমান বিন আবদু রাব্বিল কাবা বলেছেন:
আমি আব্দুল্লাহ বিন উমর রা: এর কাছে এলাম, উনি কাবার ছায়ায় বসে ছিলেন
উনার চারদিকে অনেক মানুষ জমেছিলো। আমি শুনলাম উনি বলছেন:

একবার আমরা রাসুলুল্লাহ ﷺ এর সংগে সফরে ছিলাম

একটা মনজিলে থামার পরে, আমাদের মাঝে কেউ তাবু টাংগানো আরম্ভ করলো, কেউ তীর চালনা প্রতিযোগিতা আরম্ভ করলো, কেউ বা জন্তুগুলো নিয়ে দৌড় আরম্ভ করলো।

এই অবস্থায় একজন ডাক দিলেন, "আসসালাতু জামিয়া"। আমরা শুনে সবাই একত্রিত হলাম।

তখন রাসুলুল্লাহ ﷺ বললেন, আমার আগের সব নবী উম্মতদের বলে দিয়ে গিয়েছেন কোনটা তাদের জন্য ভালো, আর কোনটা তাদের জন্য খারাপ। এটা জানানো ছিলো তাদের উপর আল্লাহর হক।
এই উম্মতের প্রথম যুগের মানুষেদের সঠিক পথে রাখা হবে। আর শেষ যুগের মানুষদের উপর বিপদাপদ এবং তারা যা অপছন্দ করে সেগুলো আসবে।
এর পর ফিতনা এত বাড়বে যে মু'মিন বলবেন "এটাতে আমি ধ্বংশ হয়ে যাবো"
এর পর ফিতনা চলে যাবে।
এর পর ফিতনার আবার বাড়বে।
মু'মিন বলবে "না, বরং এবার।"

তোমাদের মাঝে যে চায় আগুন থেকে বাচতে এবং জান্নাতে প্রবেশ করতে, সে যেন আল্লাহ আর আখিরাতের উপর বিশ্বাস রেখে মৃত্যু বরন করে। এবং নিজে যেটা পেতে পছন্দ করে, সেটা যেন মানুষের জন্য পছন্দ করে।

যে লোক কোনো ইমামকে বায়াত দিলো তার হাত ও অন্তর দিয়ে, সে যেন তার আদেশ পালন করে যতটুকু পারে। এবং অন্য কেউ এসে চ্যলেঞ্জ করলে তোমরা তার ঘাড়ে আঘাত করবে।"

আমি মানুষের মাঝ থেকে মাথা বের করে জিজ্ঞাসা করলাম, "আমি আল্লাহ নামে জিজ্ঞাসা করছি। আপনি কি এটা রাসুলুল্লাহ ﷺ থেকে শুনেছেন?"

উনি উনার দু হাত দিয়ে উনার কান দেখালেন এবং বললেন, "আমি এই দুই কান দিয়ে শুনেছি এবং অন্তর দিয়ে খেয়াল করেছি।"

আমি বললাম, "আমি হলাম আপনার চাচার ছেলে। আমাদের বলুন নিজেদের মাল অবৈধ ভাবে খাওয়া আর নিজেদের হত্যা না করার ব্যপারে। যেমন আল্লাহ বলেছেন -- তোমরা তোমাদের মাল নিজেরা অবৈধ ভাবে ভোগ করো না, এবং ভোগ করার জন্য বিচারকের কাছে নিয়ে যেও না'..." সুরা বাকার ১৮৮ নং আয়াত তিলওয়াত করলেন শেষ পর্যন্ত।

উনি দুই হাত একত্র করলেন এবং মুখের উপর রাখলেন। এর পর হাত কিছুটা নামিয়ে বললেন: "আল্লাহর অনুসরনের ক্ষেত্রে তাদের বাধ্য হবে। আর আল্লাহর অবাধ্যতার ক্ষেত্রে তাদের অবাধ্য হবে।"

আব্দুল্লাহ বিন আমর রা: রাসুলুল্লাহ ﷺ থেকেও একই কথা বর্ননা করেছেন। তিনি যোগ করেছেন "এই উম্মতের শেষ যুগে একের পর এক ফিতনা দেখা যাবে যার পরেরটা আগেরটার থেকে বড় হবে।"ং

 [ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪১১ ]

  

হাদিস - ২
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪১২ ]
___________________________________পাথরের উপর আঘাত হানবে তলোয়ার ভোতা করে ফেলার জন্য।
মা'আফ ইবনে আবি শায়বা - 36412
তিনি বলেন: "রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বলেছেনঃ" এটি এমন একটি রাজতন্ত্র হবে যার মধ্যে বসতি স্থাপনকারীরা শ্রেষ্ঠ, এবং বসা বসন্তের চেয়ে উত্তম। আল্লাহর রসূল! আপনি কি অর্ডার করছেন? তিনি বললেন, যার উট আছে, তার উট আছে এবং তার পালের সাথে মেষ এবং ছাগল আছে এবং যার যার দেশ তার অধিকার আছে, আর যে কেহ তার মধ্যে নেই, তার তলোয়ার তার উপরে পড়ুক।
হাদিস - ৩
সায়িদ বলেছেন যে,
ফিতনা দেখা দেবে।
তখন বসে থাকা লোক, দাড়ানোদের থেকে ভালো হবে।
দাড়ানো লোক, হেটে চলাদের থেকে ভালো হবে।
হেটে চলা লোক, ছুটে চলাদের থেকে ভালো হবে।
ছুটে চলা লোক, সাওয়ারিদের থেকে ভালো হবে।
সাওয়ারিরা, পদস্থদের থেকে ভালো হবে।

বর্ননাকারীদের মাঝে আবিদা এটাকে মারফু [ মানে রাসুলুল্লাহ ﷺ এর কথা ] হিসাবে বর্ননা করেছেন কিন্তু আব্দুল আ'লা মারফু হিসাবে বর্ননা করেন নি
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪১৩ ]
___________________________________
ইসলাম ইবনে আবী শায়বাহ --36,413
আমাদের বলুন আবু উসমান সাদ থেকে দাউদ জন্য আবদুল সুপ্রিম Obeida ইবনে হুমাইদ - উত্থাপিত Obeida আব্দুল শীর্ষ আচমকা করা হয়নি - বলেন: (যেখানে বিদ্যমান, এবং ওয়াকার চেয়ে ভাল বিদ্যমান চেয়ে ভাল হবে, এবং ওয়াকার ভাল চেয়ে কুরিয়ার কুরিয়ার যাত্রী ভাল ও অবস্থানের যাত্রী বেশী ভালো হয় কষ্ট বসে আছেন )।
হাদিস - ৪
খালিদ বিন সুবাই বা সুবাই বিন খালিদ বলছেন:
আমি কুফায় আসলাম। সেখানে অনেক বাহনের ডাক শুনতে পারলাম। আমি কুফার মসজিদে গেলাম। একজন লোক আসলেন এবং সমস্ত লোক উনার চারদিকে জমে গেলেন।

আমি জিজ্ঞাসা করলাম: উনি কে?
জবাব দিলো: হুজাইফা বিন ইয়ামান।

আমি উনার পাশে বসে পড়লাম। উনি বললেন:
মানুষজনেরা নবী ﷺ কে ভালো জিনিষ সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করতেন। আমি জিজ্ঞাসা করতাম খারাপ সম্পর্কে।

আমি জিজ্ঞাসা করেছিলাম:
: ইয়া রাসুলুল্লাহ, দেখছেন আমরা এখন যে ভালোর মাঝে আছি। এর আগে কি খারাপ ছিলো? আর এর পরে কি খারাপ আসবে?
উনি ﷺ বললেন:
: হ্যা।
: এর থেকে রক্ষা কিসে?
: তলোয়ারে।
: ইয়া রাসুলুল্লাহ ﷺ, তলোয়ারের পরে কি কিছু বাকি থাকবে?
: হ্যা। এর পর সন্ধি।
: সন্ধির পরে?
: বিশৃংখলার দিকে ডাক দেয়া হবে। যদি তুমি তখন কোনো খলিফাকে দেখো, তবে তার আনুগত্য করবে। যদিও সে তোমার পিঠে বেত্রাঘাত করে, আর তোমার মাল কেড়ে নেয়। আর যদি খলিফা না থাকে, তবে পালাও যতক্ষন না তোমার মউত আসে এই অবস্থায় যে তুমি গাছ কামড়ে ধরে আছো।
: ইয়া রাসুলুল্লাহ ﷺ এর পর কি হবে?
: দাজ্জাল বের হবে।
: ইয়া রাসুলুল্লাহ ﷺ, দাজ্জাল কি নিয়ে আসবে?
: সে আসবে আগুন আর ঝর্না নিয়ে। যে তার আগুনে পড়বে সে পুরস্কার পাবে, তার গুনাহ কমে যাবে। যে তার ঝর্নায় পড়বে, তার পুরস্কার কমে যাবে, সে গুনাহ পাবে।
: ইয়া রাসুলুল্লাহ ﷺ, দাজ্জালের পর কি?
: তোমাদের কোন একজন ঘোড়ায় জিন চড়িয়ে তাতে উঠার সময় পাবে না, কিয়ামত চলে আসবে।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪১৪ ]
___________________________________
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤١٤
حدثنا وكيع عن حماد بن نجيح عن أبي التياح عن صخر بن بدر عن خالد بن سبيع - أو سبيع بن خالد - قال : أتيت الكوفة فجلبت منها دواب ، فإني لفي مسجدها إذ جاء رجل قد اجتمع الناس عليه ، فقلت : من هذا ؟ قالوا : حذيفة بن اليمان ، قال : فجلست إليه
فقال : كان الناس يسألون النبي (ص) عن الخير ، وكنت أسأله عن الشر ، قال : قلت : يا رسول الله ! أرأيت هذا الخير الذي كنا فيه هل كان قبله شر وهل كائن بعهده شر ، قال : (نعم ، قلت : فما العصمة منه ؟ قال : السيف ، قال : فقلت : يا رسول الله ! فهل بعد السيف من بقية ؟ قال : نعم ، هدنة ، قال : قلت : يا رسول الله ! فما بعد الهدنة قال ؟ دعاة الضلالة ، فإن رأيت خليفة فالزمه وإن نهك ظهرك ضربا وأخذ مالك ، فإن لم يكن خليفة فالهرب حتى يأتيك الموت وأنت عاض على شجرة ، قال : قلت : يا رسول الله ! فما بعد ذلك ؟ قال : خروج الدجال ، قال : قلت : يا رسول الله ! فما يجئ به الدجال ؟ قال : يجئ بنار ونهر ، فمن وقع في ناره وجب أجره ، وحط وزره ، ومن وقع في نهره

حط أجره ، ووجب وزره ، قال : قلت : يا رسول الله ! فما بعد الدجال ؟ قال : لو أن أحدكم أنتج فرسه ما ركب مهرها حتى تقوم الساعة).
ما ركب مهرها : كناية عن قصر الوقت بين خروج الدجال وقيام الساعة.
হাদিস - ৫
হুজাইফা রা: বলেছেন:
রাসুলুল্লাহ ﷺ কে মানুষ ভালো জিনিষ নিয়ে জিজ্ঞাসা করতেন। আমি খারাপ জিনিষ নিয়ে জিজ্ঞাসা করতাম। ভালো গুলো সম্পর্কে [মানুষদের কাছ থেকে] জেনে নিতাম যেগুলো শুনিনি।

আমি জিজ্ঞাসা করলাম: 'ইয়া রাসুলুল্লাহ এই ভালোর পরে কি কোনো মন্দ আসবে?"
উনি ﷺ জবাব দিলেন, "হ্যা হুজাইফা! আল্লাহর কিতাব, এতে যা আছে তা অনুসরন করবে।"

আমি এটা তিন বার জিজ্ঞাসা করেছিলাম।

আমি জিজ্ঞাসা করলাম: "ইয়া রাসুলুল্লাহ এই ভালোর পরে কি কোনো মন্দ আসবে?"
উনি ﷺ জবাব দিলেন, "ফিতনা আর খারাপ"
: ঐ খারাপের পর কি ভালো আসবে?
: হ্যা, হুজাইফা! আল্লাহর কিতাব, এতে যা আছে তা অনুসরন করবে।" তিনবার বললেন।

আমি জিজ্ঞাসা করলাম: "ইয়া রাসুলুল্লাহ এই ভালোর পরে কি কোনো মন্দ আসবে?"
জবাব দিলেন, "অন্ধ আর বধির ফিতনা। তখন [কিছু লোক] মানুষকে জাহান্নামের দরজার দিকে ডাকবে। হুজাইফা! তুমি যদি গাছের শেকড় কামড় দেয়া অবস্থায় মরেও যাও তবে সেটা তোমার জন্য ভালো, ঐ লোকদের কাউকে অনুসরন করা থেকে।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪১৫ ]
___________________________________
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤١٥
حدثنا أبو أسامة عن سليمان بن المغيرة قال : قال حميد : حدثنا نصر بن عاصم الليثي قال : سمعت حذيفة يقول : كان رسول الله (ص) يسأله الناس عن الخير وكنت أسأله عن الشر ، وعرفت أن الخير لن يسبقني ، قال : قلت : يا رسول الله ! هل بعد هذا الخير من الشر ؟ قال : (يا حذيفة ! تعلم كتاب الله واتبع ما فيه - ثلاثا ، قال : قلت : يا رسول الله ! هل بعد هذا الشر خير ؟ قال : يا حذيفة ! تعلم كتاب الله واتبع ما فيه - ثلاث مرار ، قال : قلت يا رسول الله ! هل بعد هذا الخير شر ؟ قال : فتنة عمياء صماء عليها دعاة على أبواب النار ، فإن تموت يا حذيفة ! وأنت عاض على جذل خير من أن تتبع أحدا منهم).
الجذل : جذع الشجرة وسمي كذلك لثباته في مكانه لا يغادره.
হাদিস - ৬
আব্দুল্লাহ বিন আমর রা: বলেছেন,
আমরা একসময় রাসুলুল্লাহ ﷺ এর চারদিকে বসা ছিলাম।
উনি ﷺ ফিতনার কথা আলোচনা করলেন বা অন্য কেউ প্রসংগ তুললো।
তিনি ﷺ বললেন,

: যখন দেখবে মানুষ তাদের ওয়াদা ভঙ্গ করছে,
আমানত খিয়ানত করছে,
এবং এই রকম হয়ে গিয়েছে
বলে উনি উনার আংগুলগুলো একে অন্যটার ভেতর ঢুকালেন।

তখন আমি দাড়িয়ে উনাকে জিজ্ঞাসা করলাম,
: ঐ সময়ে আমি কি করবো? আল্লাহ আমাকে আপনার মুক্তিপন বানান।

উনি ﷺ আমাকে বললেন,
: তখন নিজের বাসায় থাকবে,
নিজের জিহ্বাকে সংযত রাখবে,
যেটা জানো সেটা গ্রহন করবে,
যেটা খারাপ জানো, করো সেটা পরিত্যগ করবে,
তোমার দায়িত্ব শুধু তোমার নিজের বিষয় দেখা,
আর জনসাধারনের কাজ পরিত্যগ করবে।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪১৬ ]
___________________________________
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤١٦
حدثنا الفضل بن دكين قال حدثنا يونس بن أبي إسحاق عن هلال بن خباب قال حدثني عبد الله بن عمرو قال : بينا نحن حول رسول الله (ص) إذ ذكر الفتنة أو
ذكرت عنده ، قال : فقال : (إذا رأيت الناس مرجت عهودهم وخفت أماناتهم ، وكانوا هكذا - وشبك بين أصابعه - قال : فقمت إليه فقلت : كيف أفعل عند ذلك ؟ جعلني الله فداءك ؟ قال : فقال لي : الزم بيتك وأمسك عليك لسانك وخذ بما تعرف وذر ما تنكر ، وعليك بخاصة نفسك ، وذر عنك أمر العامة).
مرجت عهودهم : فسدت.
হাদিস - ৭
আবু সাইদ রা: বলেছেন,
রাসুলুল্লাহ ﷺ বলেছেন,
এটা হতে যাচ্ছে যে কোনো মুসলিমের উত্তম সম্পদ হবে ভেড়া যেটা নিয়ে সে ভালো লাগা কোনো পাহাড়ে চলে যাবে যেখানে বৃস্টি পড়ে। তার দ্বীন নিয়ে ফিতনা থেকে পলানোর জন্য।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪১৭ ]
___________________________________
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤١٧
حدثنا عبد الله بن نمير عن يحيى بن سعيد عن عبد الله بن عبد الرحمن الانصاري عن أبيه أنه سمع أبا سعيد يقول : قال رسول الله (ص) : (يوشك أن يكون خير مال المسلم غنم يتبع بها شعف الجبال ، مواقع القطر ، يفر بدينه من الفتن).
شعف الجبال : شعابها.
القطر : المطر.
হাদিস - ৮
হুজাইর বিন রাবী বলেছেন:
ইমরান বিন হুসাইন আমাকে বললেন,
তোমার কওম এসেছিলো, এর পর এই বিষয়ে কম করতে তাদের নিষেধ করা হয়েছিলো।

আমি বললাম,
আমি তাদের মাঝে থাকি, তবে তাদের অনুসারি না।

উনি বললেন,
তাহলে আমার পক্ষ থেকে তাদের জানিয়ে দিও যে, এক জন হাবশি গোলাম হয়ে পাহাড়ের চুড়ায় ছাগল পালন করা যতক্ষন না আমার মৃত্যু আসে, আমার কাছে বেশি প্রিয়, কোনো কাতারে ভুল কোনো তীর নিক্ষেপ বা আঘাত করার থেকে।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪১৮ ]
___________________________________
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤١٨
حدثنا ابن علية عن أيوب عن حميد بن هلال عن حجير بن الربيع قال : قال لي عمران بن حصين : أئت قومك فانهم أن يخفوا في هذا الامر ، فقلت : إني فيهم لمغموز

ولما أنا فيهم بالمطاع ، فأبلغهم عني لان أكون عبدا حبشيا في أعنز * حصبات أرعاها في رأس جبل حتى يدركني الموت أحب إلي من أن أرمي في واحد من الصفين بسهم أخطأت أو أصبت.
يخفوا في هذا الامر : يسرعوا فيه ويشاركوا.
= * أعنز حصبات : قليلة اللبن ولبنها لا زبد له أو لا يخرج زبده من البرد.
হাদিস - ৯
হুজাইফা রা: বলেছেন,
ফিতনা হবে।
থামবে, আবার আরম্ভ হবে।
তুমি যদি এটা থেমে থাকার সময়ে মরে যেতে পারো, তবে তাই করো।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪১৯ ]
___________________________________
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤١٩
حدثنا أبو معاوية عن الاعمش عن زيد بن وهب قال : قال حذيفة : إن للفتنة وقفات وبعثات ، فإن استطعت أت تموت في وقفاتها فافعل.
হাদিস - ১০
আব্দুল্লাহ বিন আমর রা: বলেছেন,
ফিতনা দেখা দিবে। আরবদের উপর ফোটায় ফোটায় পড়বে।
সে সময় কতলকারী জাহান্নামে যাবে।
সে সময় জিহ্বা, তলোয়ারের আঘাত থেকেও প্রচন্ড হবে।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪২০ ]
___________________________________
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤٢٠
حدثنا عبد الله بن إدريس عن ليث عن طاوس عن زياد سيمين كوش اليماني عن عبد الله بن عمرو قال : تكون فتنة أو فتن تستنطف العرب ، قتلاها في النار ، اللسان فيها أشد من وقع السيف.
تستنطف العرب : تفنيهم وتقطع ذريتهم.
হাদিস - ১১
আবি মুসা রা: বলেছেন,
উনি ﷺ আমাদেরকে খুতবা দিলেন এবং বললেন,
সাবধান! তোমাদের পেছনে আধার রাত্রির টুকরার মত ফিতনা আছে।
তখন এক লোক সকালে মু'মিন থাকবে তো সন্ধায় কাফির হবে।
সন্ধায় কাফির থাকলে সকালে মু'মিন হবে।
ঐ সময়ে বসে থাকা লোক দাড়ানো লোকের থেকে ভালো।
দাড়ানো লোক হেটে চলা লোকের থেকে ভালো।
হেটে চলা লোক আরোহী থেকে ভালো।

লোকেরা জিজ্ঞাসা করলো:
আমাদের কি করতে বলেন?

উনি ﷺ বললেন,
বাসায় বসে থাকবে।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪২১ ]
___________________________________
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤٢١
حدثنا علي بن مسهر وأبو معاوية عن عاصم عن أبي كبشة السدوسي عن أبي موسى قال : خطبنا فقال : ألا وإن من ورائكم فتنا كقطع الليل المظلم ، يصبح الرجل فيها مؤمنا ويمسي كافرا ، ويصبح كافرا ويمسي مؤمنا ، القاعد فيها خير من القائم ، والقائم خير من الماشي ، والماشي خير من الراكب ، قالوا فما تأمرنا ؟ قال : كونوا أحلاس البيوت.
كونوا أحلاس البيوت : أي أقيموا في بيوتكم ولازموها.
হাদিস - ১২
মুজাহিদ রা: বলেছেন,
রাসুলুল্লাহ ﷺ বলেছেন,
কিয়ামতের আগে রাতের আধার টুকরার মত ফিতনা দেখা দিবে।
সকালে এক জন মুমিন থাকবে, তো সন্ধায় সে কাফির হয়ে যাবে।
সন্ধায় মুমিন থাকবে, তো সকালে কাফির হয়ে যাবে।
মানুষ তার দ্বীনকে দুনিয়ার মালের বিনিময়ে বিক্রি করে দেবে।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪২২ ]
___________________________________
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤٢٢
حدثنا ابن إدريس عن ليث عن مجاهد قال : قال رسول الله (ص) : (بين يدي الساعة فتن كقطع الليل المظلم ، يصبح الرجل فيها مؤمنا ويمسي كافرا ، ويمسي مؤمنا ويصبح كافرا ، ويبيع أقوام دينهم بعرض الدنيا).
হাদিস - ১৩
হুজাইফা রা: বর্ননা করেছেন আবি মুসা রা: থেকে:
নবী ﷺ বলেছেন:
তোমাদের ধনুক ভেঙ্গে ফেলো, অর্থাৎ ফিতনার সময়।
আর ধনুকের তারগুলো কেটে ফেলো।
আর নিজেদেরকে বাসায় আবদ্ধ করে ফেলো।
এবং সে সময় আদমের সন্তানদের মাঝে উত্তম জনের মত হয়ে যাও।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪২৩ ]
___________________________________
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤٢٣
حدثنا عفان قال حدثنا همام قال حدثنا محمد بن جحادة عن عبد الرحمن بن ثروان عن الهذيل عن أبي موسى عن النبي (ص) قال : (اكسروا قسيكم - يعني في الفتنة ، واقطعوا الاوتار والزموا أجواف البيوت ، وكونوا فيها كالخير من ابني آدم).
كالخير من ابني آدم : أي كونوا كالمقتول منهما ولا تكونوا كالقاتل.
ابن أبي شيبة - ج 8 - م 38 (*)
হাদিস - ১৪
আবু জর রা: বলছেন,
রাসুলুল্লাহ ﷺ আমাকে বলেছেন
: হে আবু যর। যখন তুমি দেখবে মানুষ একে অন্যকে কতল করছে এমন কি "হিজারাতু জাইত" পর্যন্ত রক্তে ডুবে গিয়েছে তখন তুমি কি করবে?
: আল্লাহ আর উনার রাসুল ভালো জানেন।
: তুমি নিজের বাসায় ঢুকে যাবে।
: আমি কি অস্ত্র বহন করবো না?
: যদি এটা তোমার বিষয় হয়।
: তখন আমি কি করবো, ইয়া রাসুলুল্লাহ ﷺ ?
: যদি ভয় পাও সূর্যরশ্মি তোমাকে পরাজিত করছে তবে তোমার জামার অংশ দিয়ে মুখ ঢেকে ফেলবে। সে তোমার আর তার নিজের পাপের বোঝা নেবে।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪২৪ ]
___________________________________
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤٢٤
حدثنا عبد العزيز بن عبد الصمد العمي عن أبي عمران الجوني عن عبد الله بن الصامت عن أبي ذر قال : قال لي رسول الله (ص) : (يا أبا ذر ! أرأيت إن اقتتل الناس حتى تغرق حجارة الزيت من الدماء كيف أنت صانع ؟ قال : قلت : الله ورسوله أعلم ، قال : تدخل بيتك ، قال : قلت : أفأحمل السلاح ؟ قال : إذا شاركت ، قال : قلت : فما
হাদিস - ১৫
আবি মুসা রা: বলেছেন:
রাসুলুল্লাহ ﷺ বলেছেন:
তোমাদের পরে এমন দিন আসবে যখন অজ্ঞতা নেমে আসবে। ইলম তুলে নেয়া হবে। আর হারজ বেড়ে যাবে।

সবাই জিজ্ঞাসা করলো:
ইয়া রাসুলুল্লাহ ﷺ, হারজ কি?

উনি ﷺ বললেন:
কতল করা।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪২৫ ]
___________________________________
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤٢٥
حدثنا أبو معاوية عن الاعمش عن شقيق عن أبي موسى قال : قال رسول الله (ص) : (إن من ورائكم أياما ينزل فيها الجهل ويرفع فيها العلم ويكثر فيها الهرج ، قالوا : يا رسول الله ! وما الهرج ؟ قال : القتل).
হাদিস - ১৬
হুজাইফা রা: বলেছেন:

আধার রাত্রির টুকরার মত তোমাদের উপর ফিতনা আসবে। তাতে ধ্বংশ হয়ে যাবে প্রত্যেক সাহসী বীর, প্রত্যেক স্থির সাওয়ারী আর প্রত্যেক দক্ষ বক্তা।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪২৬ ]
___________________________________
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤٢٦
حدثنا محمد بن فضيل عن يزيد بن أبي زياد عن يزيد بن الاصم قال : قال حذيفة : أتتكم الفتن مثل قطع الليل المظلم ، يهلك فيها كل شجاع بطل وكل راكب موضع وكل خطيب مصقع.
الراكب الموضع : الراكب الذي ينيخ راحلته في موضع الفتنة.
الخطيب المصقع : البليغ.
হাদিস - ১৭
কুরযি বিন আলকামা আল-খুজাই বলেছেন:
এক লোক বললেন:
ইয়া রাসুলুল্লাহ ﷺ, ইসলামের কি সমাপ্তি আছে?

উনি ﷺ বললেন,
: হ্যা। যখন আল্লাহ তায়ালা কোনো আরব বা অনারব কোনো পরিবারের ভালো চান তখন উনি তাদের ইসলামে প্রবেশ করান।
: এর পর?
: এর পর ফিতনা যেটা ছায়ার মত ঢেকে ফেলবে। সে সময়ে সিংহরা গড়িয়ে পড়ে যাবে। তোমাদের এক দল অন্য দলের গলায় আঘাত করবে।

সিংহ হলো: জীবিত লোক যারা জেগে উঠবে, এর পর আবার গড়িয়ে পড়বে।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪২৭ ]
___________________________________
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤٢٧
حدثنا ابن عيينة عن الزهري عن عروة عن كرز بن علقمة الخزاعي قال : قال رجل : يا رسول الله ! هل للاسلام منتهى ؟ قال : (نعم ، أيما أهل بيت من العرب أو العجم أراد الله بهم خيرا أدخل عليهم الاسلام ، قال : ثم مه ؟ قال : ثم الفتن تقع كالظل تعودون فيها أساود صبا ، يضرب بعضكم رقاب بعض) ، والاسود : الحية ترتفع ثم تنصب.
হাদিস - ১৮
আসমা রা: বলেছেন,
রাসুলুল্লাহ ﷺ একবার মদিনার উচু ঘরগুলোর মাঝে একটা উচু ঘরে দাড়ালেন এবং বললেন,
তোমরা কি দেখছো যা আমি দেখছি?
আমি ফিতনার দেখছি তোমাদের বাসাগুলোর মাঝ দিয়ে পড়ছে, যেমন করে বৃস্টি ঐ জায়গায় পড়ে।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪২৮ ]
___________________________________
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤٢٨
حدثنا ابن عيينة عن الزهري عن عروة عن أسامة أن النبي (ص) أشرف على أطم من آطام المدينة ثم قال : (هل ترون ما أرى ؟ إني لارى مواقع الفتن خلال بيوتكم كمواقع القطر).
أي أن الفتن لن تترك دارا إلا وتدخله كما يتساقط المطر على كل الدور.
হাদিস - ১৯
আউফ বলছেন আবু মিনহাল সাইয়ার বিন সালামা থেকে:
যে সময়ে ইবনে জিয়াদ বেরুলেন তখন
সিরিয়ায় মারওয়ান উঠে দাড়ালেন
মক্কায় ইবনে জুবাইর উঠে দাড়ালেন
বসরায় দুনিয়া ত্যগিরা দাড়িয়ে গেলেন।

তখন আমার পিতা প্রচন্ড দুশ্চিন্তায় পড়ে গেলেন।
উনার বেশ প্রসংসা ছিলো ঐ সময়ে।

আমার পিতা আমাকে বললেন:
হে আমার ছেলে, আমার সাথে চলো। আমরা রাসুলুল্লাহ ﷺ এর এক সাহাবির কাছে যাবো।

এর পর আমরা আবি বারযাহ আল-আসলামি রা: এর কাছে গেলাম প্রচন্ড এক গরম দিনে।

উনি আখের ছালের তৈরি একটা কিছুর ছায়ায় বসে ছিলেন।
আমার আব্বা উনাকে পেয়ে উনার সাথে কথপোকথন আরম্ভ করলেন,

এটা দিয়ে কথা আরম্ভ করলেন।
: হে আবি বারযাহ! আপনি দেখছেন না? দেখছেন না?

উনি বললেন,
: আমি কুরাইশদের কাজকর্মের উপর অসন্তুস্ট।
তোমরা আরব জাতীরা কিরকম জাহিলিয়াত আর অধ্বঃপতনে ছিলে সেটা তোমরা জানো।
আল্লাহ তোমাদের ইসলাম দিয়ে তুলে এনেছে, আর মুহাম্মদ ﷺ কে দিয়েছেন যিনি তোমাদের কাছে কি নিয়ে এসেছেন দেখেছো।
আর এই দুনিয়া তোমাদের মাঝে ফাসাদ [ঝগড়া] সৃস্টি করছে।
এবং শামে একই অবস্থা -- মানে মারওয়ান।
ওয়াল্লাহ! দুনিয়ার কারন ছাড়া যুদ্ধ করছে না।
এবং মক্কাতেও একই অবস্থা -- মানে ইবন জুবাইর।
ওয়াল্লাহ! দুনিয়ার কারন ছাড়া যুদ্ধ করছে না।
একই অবস্থা তোমাদের আশেপাশে যারা আছে তাদেরও, যাদের তোমরা দুনিয়া ত্যগি ডাকো।
ওয়াল্লাহ! তারা দুনিয়ার কারন ছাড়া যুদ্ধ করছে না।

যখন উনি কারো পক্ষে বললেন না তখন আমার পিতা উনাকে জিজ্ঞাসা করলেন,
: হে আবি বারজাহ! তাহলে আপনার মত কি?

উনি বললেন,
: দুনিয়া ত্যগিদের ভালোগুলো এখন আর দেখা যায় না।
যাদের পেটে মানুষের মাল নেই।
যাদের গায়ে অন্যের রক্ত নেই।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪২৯ ]
___________________________________
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤٢٩
حدثنا مروان بن معاوية عن عوف عن أبي المنهال سيار بن سلامة قال : لما كان زمن خرج ابن زياد وثب مروان بالشام حين وثب ، ووثب ابن الزبير بمكة ، ووثبت القراء بالبصرة ، قال : قال أبو المنهال : غم أبي غما شديدا ، قال : وكان يثني على أبيه خيرا ، قال : قال لي أبي : أي بني ! انطلق بنا إلى هذا الرجل من صحابة رسول الله (ص) ، فانطلقنا إلى أبي برزة الاسلمي في يوم حار شديد الحر وإذا هو جالس في ظل علو له من قصب ، فأنشأ أبي يستطعمه الحديث ، فقال : يا أبا برزة ! ألا ترى ؟ ألا ترى ؟ فكان أول شئ

تكلم به ، قال : إني أصحبت ساخطا على أحياء قريش ، إنكم معشر العرب كنتم على الحال التي قد علمتم من قلتكم وجاهليتكم ، وإن الله نعشكم بالاسلام وبمحمد حتى بلغ بكم ما ترون ، وإن هذه الدنيا هي التي قد أفسدت بينكم ، إن ذاك الذي بالشام - يعني مروان - والله إن يقاتل إلا على الدنيا ، وإن ذاك الذي بمكة - يعني ابن الزبير - والله إن يقاتل إلا على الدنيا ، وإن هؤلاء الذين حولكم تدعونهم قراءكم والله إن يقاتلون إلا على الدنيا ، قال : فلما لم يدع أحدا قال له أبي : يا أبا برزة ! ما ترى ؟ قال : لا رأى اليوم خيرا من عصابة ملبدة ، خماص بطونهم من أموال الناس ، خفاف ظهورهم من دمائهم.
في ظل علوله من قصب : بناء من قصب أو خيمة من قصب والقصب قد يكون القصب المعروف أو قماشا من كتان رقيق.
يستطعمه الحديث : يستدرجه إلى الكلام.
= ملبدة : قد لبدوا شعورهم : أي تركوا زينة الدنيا.
خماص بطونهم من أموال الناس : جياع بطونهم ليس فيها شئ من مال الناس.
خفاف ظهورهم من دمائهم : لم يشاركوا في فتنة ولم يحملوا دما حراما.
হাদিস - ২০
শাকিক বলেছেন:
হুজাইফা রা: বলেছেন:
আমরা ওমর রা: এর সাথে বসে ছিলাম। উনি জিজ্ঞাসা করলেন:
"তোমাদের মাঝে কে রাসুলুল্লাহ ﷺ এর ফিতনা সম্পর্কিত হাদিস মুখস্ত করে রেখেছো যেভাবে উনি বলেছিলেন?"

বললাম, "আমি।"

: তুমি তো দুঃসাহসী। কিভাবে?

: আমি শুনেছি রাসুলুল্লাহ ﷺ বলেছেন: একজন মানুষের ফিতনা হলো তার পরিবার, তার মাল, সে নিজে, তার সন্তান আর তার প্রতিবেশি। এর ক্ষমা হলো রোজা আর সদকা।

: আমি এটা জানতে চাইনি। আমি জানতে চাইছি ওটা সম্পর্কে যেটার ঢেউ হবে সমূদ্রের ঢেউয়ের মত।

: তাতে আপনার আর তার কি আমিরুল মু'মিনিন? আপনার আর তার মাঝে একটা দরজা আছে, বন্ধ।

: দরজাটা কি ভাঙ্গা হবে নাকি খুলা হবে?

: না। বরং ভাঙ্গা হবে।

: সেটা হলে, চেস্টা করলেও সেই দরজা আর কখনো বন্ধ করতে পারবে না।

আমরা হুজাইফা রা: কে জিজ্ঞাসা করলাম,
: ওমর রা: কি জানতেন দরজাটা কে?

: হ্যা। যে রকম আমি জানি রাতের পরে দিন। আমি উনাকে এমন হাদিস বর্ননা করেছি যেটাতে প্রশ্ন তোলার মত কিছু ছিলো না।

শাকিক বলছেন:
আমরা ভয় পেলাম হুজাইফা রা: কে জিজ্ঞাসা করতে, ঐ দরজাটা আসলে কে? তাই আমরা মাসরুককে বললাম, আপনি বরং উনাকে জিজ্ঞাসা করেন।

উনি জিজ্ঞাসা করলেন।

হুজাইফা রা: জবাব দিলেন: "ওমর।"
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৩০ ]
___________________________________
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤٣٠
حدثنا أبو معاوية وابن نمير وحميد بن عبد الرحمن عن الاعمش عن شقيق عن حذيفة قال : كنا جلوسا عند عمر فقال : أيكم يحفظ حديث رسول الله (ص) في الفتنة كما قال : فقلت : أنا ، قال : فقال : إنك لجرئ ، وكيف ؟ قال : قلت : سمعت رسول الله (ص) يقول : (فتنة الرجل في أهله وماله ونفسه وجاره يكفرها الصيام والصدقة والامر بالمعروف والنهي عن المنكر).
فقال عمر : ليس هذا أريد ، إنما أريد التي تموج كموج البحر ، قال : قلت : مالك ولها يا أمير المؤمنين ؟ إن بينك وبينها بابا مغلقا ، قال : فيكسر
الباب ، أم يفتح ؟ قال : قلت : لا ، بل يكسر ، قال : ذاك أحرى أن لا يغلق أبدا ، قال : قلنا لحذيفة : هل كان عمر يعلم من الباب ؟ قال : نعم ، كما أعلم أن غدا دون الليلة ، إني حدثته حديثا ليس بالاغاليط ، قال : فهبنا حذيفة أن نسأله من الباب ، فقلنا لمسروق : سله ، فسأله فقال : عمر.
فقال عمر : أي أن موت عمر رضي الله عنه سيفتح باب الخلاف وبالتالي الفتن.
হাদিস - ২১
হুজাইফা রা: বলেছেন:
চাবুকের ফিতনা হবে তলোয়ারের ফিতনা থেকেও প্রচন্ড।

জিজ্ঞাসা করা হলো:
কিভাবে?

বললেন:
মানুষকে চাবুক দিয়ে মারা হবে যতক্ষন না সে কাঠের তক্তায় আরোহন করে।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৩১ ]
___________________________________
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤٣١
حدثنا أبو معاوية عن الاعمش عن شقيق عن حذيفة قال : لفتنة السوط أشد من فتنة السيف ، قالوا : وكيف ذاك ؟ قال : إن الرجل ليضرب بالسوط حتى يركب الخشبة.
হাদিস - ২২
সাইদ বিন যাইদ রা: বলেছেন:
আমরা নবী ﷺ এর সংগে বসে ছিলাম।
উনি ফিতনার কথা আলোচনা করলেন এবং ঐ সময়ের বিপদের প্রচন্ডতা বর্ননা করলেন।

আমরা বললাম:
ইয়া রাসুলুল্লাহ ﷺ, যদি এটা আমরা পাই তাহলে এটা তো আমাদের ধংশ করে দেবে।

উনি বললেন:
না! বরং, কতল হয়ে যাওয়া তোমাদের জন্য যথেষ্ট।

সাইদ রা: বলছেন:
আমি দেখেছি আমার ভাইদের কতল হয়ে যেতে।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৩২ ]
___________________________________
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤٣٢
حدثنا أبو الأحوص عن منصور عن هلال بن يساف عن سعيد بن زيد قال : كنا عند النبي (ص) فذكر فتنة فعظم أمرها ، قال : فقلنا - أو قالوا - : يا رسول الله ! لئن أدركنا هذا لنهلكن ، قال : (كلا ، إن بحسبكم القتل) ، قال سعيد : فرأيت إخواني قتلوا.
হাদিস - ২৩
হুজাইফা রা: বলেছেন:
তিনটা ফিতনা হবে। চতুর্থটা দাজ্জালের দিকে নিয়ে যাবে।
তখন কালো পাথর ছুড়ে মারা হবে। এবং অগ্নি পাথর ছুড়ে মারা হবে।
ঢেউয়ের মত অন্ধকার আসবে। সমুদ্রের ঢেউয়ের মত।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৩৩ ]
___________________________________
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤٣٣
حدثنا عبد الله بن نمير عن الوليد بن جميع عن عامر بن واثلة قال : قال حذيفة : تكون ثلاث فتن ، الرابعة تسوقهم إلى الدجال ، التي ترمي بالنشف والتي ترمي بالرضف ، والمظلمة التي تموج كموج البحر.
النشف : الحجارة السود واحدتها النشفة ، ويطلق على حجارة الخفان السوداء التي تحف الارجل بها في الحمام.
الرضف : الحجارة المحماة.
হাদিস - ২৪
হুজাইফা রা: বলেছেন,
রাসুলুল্লাহ সা: বলেছেন,

ফিতনা দেখা দিবে
অন্ধ ও বধির হয়ে যাওয়া মানুষদের জাহান্নামের দরজার দিকে ডাকা হবে।

হুজাইফা! তুমি যদি গাছের শেকড় কামড় দেয়া অবস্থায় মরেও যাও তবে সেটা তোমার জন্য ভালো, ঐ লোকদের কাউকে অনুসরন করা থেকে।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৩৪ ]
___________________________________
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤٣٤
حدثنا أبو أسامة عن سليمان بن المغيرة قال : قال حميد : حدثنا نصر بن عاصم قال حدثنا اليشكري قال : سمعت حذيفة يقول : قال رسول الله (ص) : (فتنة عمياء صماء عليها دعاة على أبواب النار ، فإن تمت يا حذيفة وأنت عاض على جذل خير لك من أن تتبع أحدا منهم).
হাদিস - ২৫
এক ব্যক্তি হুজাইফা রা: কে জিজ্ঞাসা করলো,
: যখন মুসুল্লিদের কতল করা হবে তখন আমি কি করবো?
: নিজের বাসায় ঢুকে যাবে।
: সে যদি আমার বাসায় ঢুকে পড়ে তখন কি করবো?
: বলে দিবে, আমি তোমাকে হত্যা করবো না, আমি রাব্বুল আলামিন আল্লাহকে ভয় করি।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৩৫ ]
___________________________________
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤٣٥
حدثنا وكيع قال حدثنا سفيان عن منصور عن ربعي قال : قال رجل لحذيفة : كيف أصنع إذا اقتتل المصلون ؟ قال : تدخل بيتك ، قال : قلت : كيف أصنع إن دخل
بيتي ؟ قال : قل : لن أقتلك إني أخاف الله رب العالمين.
أي تتبع خير ابني آدم هابيل المقتول وتقول قوله لاخيه قابيل عندما أراد قتله.
হাদিস - ২৬
হুজাইফা রা: বলেছেন:
তিনটা জিনিস দিয়ে ফিতনা বাড়বে।

এমন লোকের হাতে রক্তপাত বৃদ্ধির কারনে, যে ফিতনা বাড়ুক সেটা চায় না, বরং তলোয়ার দ্বারা কমাতে চায়।
এমন খতিবের কারনে যে সবকিছু নিজের দিকে ডাকে।
এবং প্রশংসিত শরিফ লোকের কারনে।

এর পর রক্তপাত যখন বেড়ে যাবে, তখন সেটা তাদেরকে ফেলে দেবে।
এরপর তাদেরকে উপড়ে ফেলবে এবং তাদের নিকট যা ছিলো সেটা তাদের ক্ষতি করবে।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৩৬ ]
___________________________________
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤٣٦
حدثنا أبو معاوية عن الاعمش عن زيد بن وهب عن حذيفة قال : وكلت الفتنة بثلاثة : بالجاد النحرير الذي لا يريد أن يرتفع له شئ إلا قمعه بالسيف ، وبالخطيب الذي يدعو إليه الامور ، وبالشريف المذكور ، فأما الجاد النحرير فتصرعه ، وأما هذان فتجثهما فتبلو ما عندهما.
হাদিস - ২৭
হুজাইফা রা: বলেছেন:
: তখন তোমাদের কি অবস্থা হবে যখন উট তার লাগাম সহ এসে তোমাদের মাঝে হাটু গেড়ে বসবে, এবং তোমাদের কাছে এখান থেকে, ওখান থেকে লোকেরা আসবে?

: ওয়াল্লাহ আমরা জানি না।

: তবে ওয়াল্লাহ। আমি জানি। তোমারা তখন গোলাম আর তার মালিকের মত হয়ে যাবে। মালিক গোলামকে ধমক দিলেও গোলাম পাল্টা ধমক দেয় না। আর পিটালেও গোলাম পাল্টা পিটায় না।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৩৭ ]
___________________________________উট: উটের পিঠের যুদ্ধের কথা উল্লেখ করেছেন।
গোলাম-মালিক: প্রতিশোধ প্রতিবাদ না করে চুপ থেকে মেনে নিতে বলেছেন।
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤٣٧
حدثنا مروان بن معاوية عن الصلت بن بهرام عن المنذر بن هوذة عن خرشة ابن الحر قال : قال حذيفة : كيف أنتم إذا بركت تجر خطامها فأتتكم من ههنا ومن ههنا ، قالوا : لا ندري والله ، قال : لكني والله أدري ، أنتم يومئذ كالعبد وسيده ، إن سبه السيد لم يستطع العبد أن يسبه ، وإن ضربه لم يستطع العبد أن يضربه.
إن بركت تجر خطامها : تشبيه للفتنة بالناقة.
হাদিস - ২৮
হুজাইফা রা: লোকদের বলছেন,
: তখন তোমাদের কি অবস্থা হবে যখন তোমরা দ্বীনের ব্যপারে এরকম উদার হয়ে যাবে, যেমন এক মহিলা কবুল বলার পর উদার হয়ে যায়। তার কাছে যে আসে তাকে মানা করে না?

: আমরা জানি না।

: কিন্তু ওয়াল্লাহ! আমি জানি। তোমরা সেদিন থাকবে অক্ষম আর অসৎ হবার মাঝে।

ঐ কওম থেকে এক লোক বললেন,

: এর অক্ষমতাকে ঘৃনা করে তা থেকে দূরে থাকতে হবে।

হুজাইফা রা: তখন ঐ লোকের গায়ে কয়েকবার আঘাত করলেন। এর পর বললেন,

: যেভাবে তুমি এ থেকে দূরে থাকলে। যেভাবে তুমি এ থেকে দূরে থাকলে।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৩৮ ]
___________________________________বুঝা যাচ্ছে: আঘাত গুলো ঠেকাতে সে যেমন অক্ষম হয়েছিলো, সেরকম অক্ষম তখন মানুষ হয়ে যাবে।
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤٣٨
حدثنا عبد الله بن نمير قال حدثنا الصلت بن بهرام عن منذر بن هوذة عن خرشة عن حذيفة قال : كيف أنتم إذا انفرجتم عن دينكم كما تنفرج المرأة عن قبلها لا تمنع من يأتيها ، قالوا : لا ندري ، قال : لكني والله أدري ، أنتم يومئذ بين عاجز وفاجر ، فقال رجل من القوم : قبح العاجز عن ذاك ، قال : فضرب ظهره حذيفة مرارا ، ثم قال : قبحت أنت ، قبحت أنت.
হাদিস - ২৯
খারাশাহ বলছেন:
হুজাইফা রা: একবার মসজিদে ঢুকলেন।
দেখলেন এক কওমের কিছু লোক অন্য লোককে পড়াচ্ছেন।
বললেন,
: তোমরা যদি পথের উপর থাকতে! তোমরা অনেক দূরের জিনিষকে জরুরী বানিয়ে ফেলেছো।

এর পর উনি রা: তাদের সাথে বসলেন এবং বললেন,
: আমরা ছিলাম সেই কওম যারা পড়া শেখার আগে ঈমান এনেছি। শিগ্রই এমন কওম আসবে যারা ঈমান আনার আগে পড়া শিখবে।

ঐ কওম থেকে একজন বললেন,
: এটা ফিতনা?

উনি বললেন,
: দ্রুতই, তোমাদের সামনে থেকে কিছু এসে তোমাদের চেহারাকে অপরাধি করে দিবে। এর পর অনবরত আসতে থাকবে আসতে থাকবে। লোকজন ফিরে গিয়ে পরামর্শ নেবে এমন দুব্যক্তি থেকে, তাদের একজন অথর্ব, অন্যজন অসৎ।

খারাশাহ বললেন,
: এর পর কিছু সময় যায় নি। আমি দেখলাম লোকটা তার তলোয়ার নিয়ে বেরিয়ে মানুষকে পর্যবেক্ষন করছে।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৩৯ ]
___________________________________দুইব্যক্তি: দুজন নেতা।

এটা ঐ যুগের ঘটনা।
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤٣٩
حدثنا عبد الله بن نمير قال حدثنا الصلت بن بهرام قال أخبرنا المنذر بن هوذة عن خرشة أن حذيفة دخل المسجد ، فمر على قوم يقرئ بعضهم بعضا ، فقال : أن
تكونوا على الطريقة ، لقد سبقتم سبقا بعيدا ، وأن تدعوه فقد ضللتم ، قال : ثم جلس إلى حلقة ، فقال : إنا كنا قوما آمنا قبل أن نقرأ ، وإن قوما سيقرأون قبل أن يؤمنوا ، فقال رجل من القوم : تلك الفتنة ، قال : أجل ، قد أتتكم من أمامكم حيث تسوء وجوهكم ثم لتأتينكم ديما ديما ، إن الرجل ليرجع فيأتمر الامرين : أحدهما عجز والآخر فجور ، قال خرشة : فما برحت إلا قليلا حتى رأيت الرجل يخرج بسيفه يستعرض الناس.
হাদিস - ৩০
যাইদ বিন ওয়াহাব বলেছেন:
হুজাইফা রা: কে প্রশ্ন করা হলো:
ফিতনা "আরম্ভ হওয়া" আর "থেমে যাওয়া" মানে কি?

বললেন:
আরম্ভ হওয়া মানে তলোয়ারকে খাপমুক্ত করা।
থেমে যাওয়া মানে সেটাকে কোষবদ্ধ করা।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৪০ ]
___________________________________
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤٤٠
حدثنا وكيع عن سفيان عن الحارث بن حضيرة عن زيد بن وهب قال : قيل لحذيفة : ما وقفات الفتنة وما بعثاتها ؟ قال : بعثاتها سل السيف ، ووقفاتها إغماده.
হাদিস - ৩১
আবি আল-তাফাইল আমির বিন ওয়াথিলা বলেছেন:
হুজাইফা রা: আমাকে জিজ্ঞাসা করলেন,
: তোমার কি অবস্থা হবে যখন ফিতনা দেখা দেবে -- যাদের চাহিদা নেই এবং নিজেদেরকে গোপন রাখে -- এরকম উত্তম মানুষদের মাঝে?

: আর কেমন? একে একে এটা আমাদের সামনে পরিবেশন করা হবে। প্রত্যেক বিচ্ছিন্ন লোককে এটা বিচ্ছিন্ন করে দেবে। প্রতিটা লক্ষ্যেকে কেন্দ্র করে ছুড়ে মারা হবে।

: তুমি তখন সদ্যজাত শিশুর মত হয়ে যাবে
সে চড়ে বসে না, তাকে বহন করা হয়।
সে দুধ খায় না, তাকে খাওয়ানো হয়।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৪১ ]
___________________________________
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤٤١
حدثنا يزيد بن هارون قال أخبرنا يحيى بن سعيد أن أبا الزبير أخبره عن أبي الطفيل عامر بن واثلة أن حذيفة قال له : كيف أنت وفتنة خير الناس فيها غني خفي ، قال : قلت : وكيف وإنما هو عطاء أحدنا يطرح به كل مطرح ، ويرمي به كل مرمى ، قال : كن إذا كابن المخاض لا ركوبة فتركب ولا خلوبة فتحلب.
হাদিস - ৩২
হুজাইফা রা: বলেছেন,
ফিতনা আসবে।
তখন সন্দেহ জনক বিষয় বাড়বে, পরিস্কার বিষয় চলে যাবে।
তখন ঐ বেদুইন সম্মানিত হবে, যে লাঠিতে ভর করে তার ভেড়ার পেছনে থাকবে।
এবং সে তোমাদের স্রোতের সাথে চলবে না।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৪২ ]
___________________________________
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤٤٢
حدثنا يزيد بن هارون عن شعبة عن أبي إسحاق عن عبد الله بن الرواع عن حذيفة قال : تكون فتنة تقبل مشبهة وتدبر مميتة ، فإن كان ذلك فالبدوا ، يجود الراعي على عصاه خلف غنمه ، لا يذهب بكم السيل.
হাদিস - ৩৩
হুজাইফা রা: কে জিজ্ঞাসা করা হলো,
: বনি ইসরাইল কি একদিনেই কুফরিতে চলে গিয়েছিলো?

বললেন,
: না। বরং তাদের উপর ফিতনা আসে। তারা এতে পড়ে যায়।
কিন্তু ফিতনাকে তারা খারাপ বুঝতে পারে।

এর পর আবার ফিতনা আসে, এতে আবার পড়ে যায়।
এভাবে,
এক পর্যায়ে তারা চাবুক আর তলোয়ার নিয়ে ঝাপিয়ে পড়ে।
এক পর্যায়ে তারা সাওয়ারী নিয়ে ঝাপিয়ে পড়ে।
এক পর্যায়ে তারা জানা জিনিস ভুলে যায়।
এবং খারাপকে আর খারাপ বুঝতে পারে না।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৪৩ ]
___________________________________
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤٤٣
حدثنا وكيع عن سفيان عن حبيب عن ميمون بن أبي شبيب قال : قيل لحذيفة : أكفرت بنو إسرائيل في يوم واحد ؟ قال : لا ، ولكن كانت تعرض عليهم الفتنة فيأتونها فيكرهون عليها ، ثم تعرض عليهم فيأتونا حتى ضربوا عليها بالسياط والسيوف حتى خاضوا الماء حتى لم يعرفوا معروفا ولم ينكروا منكرا.
হাদিস - ৩৪
রিবয়ি বলেছেন:
আমি শুনেছি হুজাইফা রা: এর জানাজায় এক লোক বলছেন:
আমি এই খাটিয়ার লোকের কাছে শুনেছি উনি বলেছেন:
আমার সামান্য কস্টও নেই।
কারন আমি রাসুলুল্লাহ ﷺ এর কাছে শুনেছি,
: তোমাদের যদি হত্যা করা হয়, তবে তোমরা আমার ঘরে প্রবেশ করবে। তাই, তারা যদি আমার ঘরে প্রবেশ করে তবে আমি তাদেরকে বলবো: আসো! আমার আর তোমার গুনাহ নিয়ে ফিরে যাও।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৪৪ ]
___________________________________
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤٤٤
حدثنا غندر عن شعبة عن منصور عن ربعي قال : سمعت رجلا في جنازة حذيفة يقول : سمعت صاحب هذا السرير يقول : ما بي بأس مذ سمعت من رسول الله (ص) : (ولئن اقتتلتم لادخلن بيتي ، فلئن دخل علي لاقولن : ها بؤ بإثمي وإثمك).
أي لن أمد إليك يدي فإن أردت قتلي فعليك إثمك وإثمي.
হাদিস - ৩৫
হুজাইফা রা: বলেছেন:
যে জামাত থেকে এক হাত দূরে চলে গেলো সে যেনো ইসলাম থেকে দূরে চলে গেলো।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৪৫ ]
___________________________________জামাত: মুসলিমদের মূলধারা।
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤٤٥
حدثنا أبو الأحوص عن أبي إسحاق عن سعد قال : قال حذيفة : من فارق
الجماعة شبرا فارق الاسلام.
হাদিস - ৩৬
হুজাইফা রা: বলেছেন,
মানুষের উপর এমন যুগ আসবে, ডুবন্ত মানুষের মত যে দোয়া করছে, সে ছাড়া আর কেউ তখন বাচতে পারবে না।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৪৬ ]
___________________________________
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤٤٦
حدثنا أبو معاوية عن الاعمش عن إبراهيم عن همام عن حذيفة قال : ليأتين على الناس زمان لا ينجو فيه إلا الذي يدعو بدعاء كدعاء الغريق.
হাদিস - ৩৭
হুজাইফা রা: বলেছেন:
মানুষের উপর এমন একটা যুগ আসবে যখন কেউ রক্ষা পাবে না, সে ছাড়া যে দোয়া করছে, ডুবন্ত মানুষের দোয়ার মত।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৪৭ ]
___________________________________
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤٤٧
حدثنا أبو معاوية عن الاعمش عن عمارة عن أبي عمار قال : قال حذيفة : ليأتين على الناس زمان لا ينجو فيه إلا من دعا بدعاء كدعاء الغريق.
হাদিস - ৩৮
হুজাইফা রা: বলেছেন:
ওয়াল্লাহ! এক জন সকাল অতিবাহিত করবে দৃস্টি ক্ষমতা নিয়ে। এর পর সন্ধায় সে থাকবে অন্ধ।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৪৮ ]
___________________________________
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤٤٨
حدثنا أبو خالد الاحمر عن الاعمش عن عمارة عن أبي عمار عن حذيفة قال : والله إن الرجل ليصبح بصيرا ثم يمسي وما ينظر بشفر.
وما ينظر بشفر : أي يصبح أعمى لا رموش له.
হাদিস - ৩৯
হুজাইফা রা: সুরা তৌবার ১২ নং আয়াত পাঠ করলেন,
অর্থ: আর যদি ভঙ্গ করে তারা তাদের শপথ প্রতিশ্রুতির পর এবং বিদ্রুপ করে তোমাদের দ্বীন সম্পর্কে, তবে কুফর প্রধানদের সাথে যুদ্ধ কর। কারণ, এদের কেন শপথ নেই যাতে তারা ফিরে আসে

এর পর বললেন,
: পরবর্তিতে এই আয়াতে যাদের কথা আছে তাদের সাথে আর যুদ্ধ হয় নি।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৪৯ ]
___________________________________
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤٤٩
حدثنا أبو معاوية عن الاعمش عن أبي وائل قال : قرأ حذيفة هذه الآية * (فقاتلوا أئمة الكفر) * ، قال : ما قوتل أهل هذه الآية بعد.
سورة التوبة من الآية (12).
হাদিস - ৪০
মুহাম্মদ বিন মাসলামা রা: বলেছেন:
রাসুলুল্লাহ ﷺ আমাকে একটা তলোয়ার দিয়ে বললেন:

এটা দিয়ে তুমি মুশরিকদের কতল কর, যাদের কতল করা হয়।
আর যখন দেখবে মানুষদের একদল অন্যদলকে মারছে -- বা এরকম কোনো কথা বললেন,
তখন এটা নিয়ে তুমি পাথরের কাছে চলে যাও এবং এটা দিয়ে পাথরের উপর মারতে থাকো যতক্ষন না এটা ভেঙ্গে যায়।

এর পর নিজেকে নিজের বাসায় আটকে রাখো যতক্ষন না তোমার কাছে খারাপ কোনো হাত আসে বা মৃত্যুর লিখনি চলে আসে।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৫০ ]
___________________________________
مصنف ابن أبي شيبة - ٣٦٤٥٠
حدثنا عبد الله بن المبارك عن هشام عن الحسن قال : قال محمد بن سلمة : أعطاني رسول الله (ص) سيفا فقال : قاتل به المشركين ما قوتلوا ، فإذا رأيت الناس يضرب بعضهم بعضا - أو كلمة نحوها - فاعمر به إلى صخرة فاضربه بها حتى ينكسر ثم اقعد في بيتك حتى تأتيك يد خاطئه أو منية قاضية).
হাদিস - ৪১
আবু সাইদ খুদরী রা: লোকদেরকে বলেছেন,
: সাবধান! অন্ধ কতল আর জাহেলিয়াতের উপর মৃত্যু থেকে।
: অন্ধ কতল কি?
: যখন বলা হয় হে অমুকের লোক! হে অমুকের বংশ!
: আর জাহেলিয়াতের মৃত্যু কি?
: তুমি যদি মারা যাও এমন অবস্থায় যে তোমার কোনো ইমাম নেই।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৫১ ]
___________________________________
মা'আফ ইবনে আবি শায়বা - 36451
আমাদের আবু সাঈদ আবু খালেদ রেড হামিদ আবু নাজি আল মুতাওয়াক্কিল বলুন বললেনঃ বেসামরিক পাশ এবং মৃত অজ্ঞতা যুদ্ধ থেকে সাবধান, তিনি বলেন: বেসামরিক পাশ কি যুদ্ধ? তিনি বলেন: যদি বলা হয়: হে ছেলেদের পুত্র, তাই, তিনি বলেন: আমি বলেন: কি মৃত অজ্ঞতা? তিনি বললেনঃ তোমরা মৃত্যুবরণ করবে এবং তোমাদের বিরুদ্ধে কোন ইমাম নেই।
হাদিস - ৪২
হাসান রা: বলেছেন:
অন্ধ যুদ্ধে যে মারা যাবে, তার মৃত্যু জাহেলিয়াতের উপর হলো।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৫২ ]
___________________________________
মা'আফ ইবনে আবি শায়বা - 3645২
আবু খালেদ আল হুসাইনের কাছ থেকে 'আউফ সম্পর্কে আমাদের বলেছিলেন। তিনি বললেন: যে কেউ' আমিয়আহের যুদ্ধে নিহত হয়, তার মৃত একটি জাহানিয়াহ।
হাদিস - ৪৩
আব্দুল্লাহ বিন আমর রা: বলছেন,
যখন উথমান রা: এর বিরোধিতায় মানুষ বিভক্ত হয়ে গেলো তখন আমার পিতা দাড়িয়ে গেলেন।
রাতে নামাজ পড়লেন।
এর পর ঘুমালেন।
তাকে বলা হলো,
: দাড়াও! আর আল্লার কাছে চাও যেন উনি তোমাকে ফিতনা থেকে রক্ষা করেন। যে ফিতনা থেকে উনি উনার নেক বান্দাদের রক্ষা করেন।

উনি দাড়ালেন।
এক সময় অসুস্থ হয়ে গেলেন।
মৃত্যু পর্যন্ত উনাকে আর বের হতে দেখি নি।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৫৩ ]
___________________________________
মা'আফ ইবনে আবি শায়বা - 36453
আমাদের বলুন আবু খালেদ রেড ইয়াহইয়া ইবনে সাঈদ আব্দুল্লাহ বিন আমের বলেন: লোকেদের চ্যালেঞ্জ করতে বাছুরের জন্ম দেওয়া যখন ওসমান আমার পিতা রাত প্রার্থনা হয়েছে এবং তারপর slept, তিনি বলেন , এটা বলা হয়েছিল করার তাঁকে , তারপর রাষ্ট্রদ্রোহ Oaaz এর Aaivk আল্লাহ জিজ্ঞাসা এর তাদের ক্রীতদাসদের, তিনি বলেন: তাই তিনি অসুস্থ ছিলেন এবং 
মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি দেখেন নি।
আপিলের মাধ্যমে মানুষ বেরিয়ে যায়: তারা আরো বলেন
হাদিস - ৪৪
আলী রা: বলেছেন:
ইসলাম কমে যেতে থাকবে।
এমন কি "আল্লাহ, আল্লাহ" বলার মত মানুষ থাকবে না।
এ অবস্থা হলে দ্বীনের এক শীর্ষ নেতা দাড়িয়ে যাবে তার পাপ নিয়ে।
এর পর মানুষ বেরিয়ে তার চারিদিকে জড়ো হত থাকবে যেভাবে শরৎ কালে মেঘ জমা হয়।
ওয়াল্লাহ! আমি তাদের আমিরের নাম জানি এবং তাদের ঘোড়ার জাতও জানি।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৫৪ ]
___________________________________
মা'নফ ইবনে আবি শায়বা - 36454
আমাদের বলুন হারেস ইবন সুইডেন আলী থেকে Taymi জন্য আবু সিদ Aloamc বললঃ নমিত ইসলাম যাতে বলতে না: আল্লাহ, এমনটি যদি একটি ফড়িং ধর্ম দোষী তাড়িত, যদি কি তাই পাঠানো মানুষ যিনি পূরণ পূরণ শরৎ শাখা, ঈশ্বর, আমি তাদের নেতা ও জলবায়ু নাম জানেন তাদের যাত্রী।
দ্রাবক: পুরুষ মৌমাছি এতে ভাল না।
হাদিস - ৪৫
হুজাইফা রা: বলেছেন,
যে জামাত থেকে এক হাত দূরে চলে গেলো, সে নিজের গলা থেকে ইসলামের বেড়িকে খুলে ফেললো।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৫৫ ]
___________________________________
মা'আফ ইবনে আবি শায়বা - 36455
আমাদের বলুন আবু ইসহাক সা'দ ইবনে হুযাইফা আবু Ahwas বললঃ হুযাইফা বলেন, Shubra থেকে তার ঘাড়, গ্রুপ পার্থক্য থেকে ইসলামের জোয়াল অপসৃত করা।
হাদিস - ৪৬
আলী রা: বলেছেন:
নেতৃত্ব হবে কুরাইশ থেকে।
আর যে জামাত থেকে এক হাত দূরে চলে গেলো সে যেন নিজের ঘাড় থেকে ইসলামের বন্ধনকে খুলে ফেললো।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৫৬ ]
___________________________________
মা'নফ ইবনে আবি শায়বা - 36456
আমাদের ইব্রাহীম বিন মুবারত সম্পর্কে একটি কাহিনী বলুন, আমার চাচা আমাকে আবু সাদিক আলীকে বলেছিলেনঃ কুরাইশদের ইমামগণ এবং শূব সম্প্রদায়ের পার্থক্যটি হ'ল তাঁর গলায় ইসলামের রবকে সরানো হয়েছে।
হাদিস - ৪৭
আব্দুল্লাহ রা: বলেছেন,
: তখন তোমাদের কি অবস্থা হবে যখন ফিতনার কাপড় তোমাদের পড়ানো হবে?
অল্প বয়সীরা সে সময় সীমা ছাড়াবে, এবং বয়স্করা দুর্বল হয়ে পড়বে।
মানুষ এটাকে সুন্নাহ হিসাবে নিবে।
এর মাঝে কিছু পরিবর্তন করলে মানুষ বলবে, "তুমি সুন্নাহকে বদলাচ্ছো।"

লোকেরা জিজ্ঞাসা করলো,
: এটা কখন হবে, আবি আব্দুর রহমান?

: যখন তোমাদের মাঝে লিখাপড়া জানা লোক বেড়ে যাবে কিন্তু বিশ্বস্ত লোক কমে যাবে।
যখন তোমাদের মাঝে নেতা বেড়ে যাবে কিন্তু ফকিহ কমে যাবে।
যখন তোমরা আখেরাতের আমল দ্বারা দুনিয়ার সন্ধান করবে।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৫৭ ]
___________________________________
মা'আফ ইবনে আবি শায়বা - 36457
আবু মাউয়িয়া আবু ওয়ায়েল থেকে আল-উমাস সম্পর্কে আমাদের বলেছিলেন। তিনি বলেন: 'আবদুল্লাহ্ বললেনঃ আপনি কি করে, যদি আপনারা দেশদ্রোহিতায় তরুণদের দিকে অগ্রসর হন, যদি আপনার পাঠকদের সংখ্যা বৃদ্ধি পায় এবং আপনার স্ত্রীগণ বলছেন, এবং আপনার পুরুষদের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে, এবং আমি বললাম, আমি আপনাকে বলব, এবং আখেরাত অন্তত চাওয়া।
হাদিস - ৪৮
আলী রা: বলেছেন,
এই উম্মার জন্য আল্লাহ তায়ালা পাচটি ফিতনা রেখেছেন।
সর্বসাধারনদের ফিতনা,
এর পর বিশেষ ব্যক্তিদের ফিতনা,
এর পর সর্বসাধারনদের ফিতনা,
এর পর বিশেষ ব্যক্তিদের ফিতনা,
এর পর ঢেউয়ের মত ফিতনা, সমূদ্রের ঢেউয়ের মত।
মানুষ তাতে সাতার কাটবে গরু-ছাগলের মত।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৫৮ ]
___________________________________
মা'আফ ইবনে আবি শায়বা - 36458
আমাদের ওসামা আবু Munther আসিম ইবনে Damra আলী সম্পর্কে আমাদের বলুন বললঃ এই জাতির ঈশ্বরের করা সংবেশিত পাঁচটি: সাধারণ রাষ্ট্রদ্রোহ এবং বিশেষ কবজ ও সাধারণ শত্রুতা এবং বিশেষ Guetnh, তারপর রাষ্ট্রদ্রোহ লহরী Kammouj সমুদ্র, যেখানে লোকেরা Kalphaim হয়ে।
হাদিস - ৪৯
ইবনে আব্বাস রা: মিম্বরে দাড়িয়ে বলেছেন:

যে জামাত থেকে এক হাত দূরে চলে গেলো এর পর মারা গেলো, সে জাহেলিয়াতের উপর মরলো।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৫৯ ]
___________________________________
মা'আফ ইবনে আবি শায়বা - 36459
Gander বিভাগ সম্পর্কে আমাদের বলুন বললঃ আমি শুনেছি লাল বা ছেলে একটি এর লাল ঘটতে বাবা দয়া Attarda বললঃ আমি ইবনে আব্বাস শোনা উপর প্রচার যাজকসম্প্রদায় সম্বন্ধে বলে গ্রুপ মারা যান Shubra মারা যান 
মারা যান এর অজ্ঞতা।
হাদিস - ৫০
জাইদ বিন উথাইয়ি বলেছেন:
হুজাইফা রা: বলেছেন,
: তোমরা তখন কি করবে যখন তোমাদের কাছে অন্যে হক চাবে তখন তোমরা তাকে দিয়ে দেবে, কিন্তু তোমাদের হক তোমাদেরকে দিতে তারা আস্বিকার করবে?

লোকেরা জবাব দিলো,
: আমরা সবর করবো।

হুজাইফা রা: বললেন,
: তোমরা প্রবেশ করেছো! কাবার রবের শপথ।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৬০ ]
___________________________________শেষ দুটো লাইন প্রিন্টেড বইয়ের PDF এ ভিন্ন রকমে আছে। ওখানে আছে:
তারা জবাব দিলো, "আমরা সবর করি, কাবার রবের শপথ।" [এখানেই শেষ]

প্রবেশ করেছো: জান্নাতে প্রবেশ করেছো।
অন্যেরা: মূলতঃ ক্ষমতাসীনরা।
মা'আফ ইবনে আবি শায়বা - 36460
আমাদের বলুন আবু Ahwas আবু জায়িদ ইবনে ইসহাক Ithia বললঃ হুযাইফা বললামঃ কেমন অধিকার Voattiytamoh Siltm করি এবং Mnatm আপনার ডান, তিনি বলেন: আপনি রোগী ও কাবা পালনকর্তা হন।
হাদিস - ৫১
হুজাইফা রা: এবং আবু মাসউদ রা: মসজিদে বসে ছিলেন। ঐ সময়ে কুফাবাসীরা সাইদ ইবনে আস রা: কে মাত্র বহিস্কার করেছে।

এক লোক উনাদের দুজনের কাছে আসলেন এবং জিজ্ঞাসা করলেন,
: আপনাদের কি জিনিস আটকিয়ে রেখেছে? অথচ সমস্ত মানুষ বেরিয়ে পড়েছে! ওয়াল্লাহ আমরাই সুন্নাহর উপর আছি।

তারা জবাব দিলো,
: তোমরা কি করে সুন্নাহর উপর আছো, যেখানে তোমরা তোমাদের ইমামকে বহিস্কার করেছো? ওয়াল্লাহ তোমরা সুন্নাহর উপর নেই যতক্ষন না তোমাদের নেতারা দুঃখ প্রকাশ করে জনগনকে নসিহা করে।

: যদি নেতারা দুঃখ প্রকাশ না করে, এবং জনগনকে নসিহা না করে -- তবে আমাদের কি বলেবেন?

: তবে আমরা বেরিয়ে যাবো, এবং তোমাদের বিদায় জানাবো।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৬১ ]
___________________________________
মা'আফ ইবনে আবি শায়বা - 36461
আমাদের বলুন আলী বিন Msohr ইসমাইল আবু সালেহ আল হানাফী বলেন, একজন মানুষ হুযাইফা প্রয়োজন এবং আবু মাসুদ আনসারী এসে তারা বসে মসজিদ এবং সমাজচ্যুত করা হয় দ্বারা মানুষ এর কুফা সাঈদ ইবনুল - আস বললঃ কি Ihbiskm মানুষ বাকি আছে? ফু ঈশ্বর , আমি আছি বছর তারা আরো জানান এবং কিভাবে আপনি এক বছর আগে Trdtm থাকবে, এবং ঈশ্বরের হয় বছর আপনি এমনকি করুণা না মেষপালক 

এবং Ntsah প্যারিশ, তিনি বলেন , একটি লোকটি বলল করতে তাকে মেষপালক রেহাই দেন নি প্যারিশ উপদেশ কী বলবেন? তিনি বলেন: যান এবং আপনি যাক
যে, আপনি একটি মেষপালক ছাড়া একটি মেষপালক হতে হবে, যার মধ্যে নেকড়ে relieved করা হবে, এবং আনন্দ করা হবে।
হাদিস - ৫২
ইয়াজিদ বিন সুহাইব আল-ফকির বলেছেন:
আমার কাছে এই কথা পৌছেছে যে, ফিতনার সময় যে তার তলোয়ারের অনুসরন করবে সেই ভুলের মাঝে পড়ে গিয়ে আফসো করবে এবং সে লাঞ্চিত হবে।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৬২ ]
___________________________________
মা'আফ ইবনে আবি শায়বা - 36462
আমাদের দরিদ্র বলেন ওভার হিশাম বিন জাফর বিন সাহেব সম্পর্কে আরও বলুন, তিনি শুনেছেন যে কি একজন মানুষ রাষ্ট্রদ্রোহ একটি তলোয়ার অনুষ্ঠিত, কিন্তু এখনও Msguta করা হয়নি এটা এমনকি এটা বন্ধ রাখে।
হাদিস - ৫৩
সুলাইমান বিন আমর বর্ননা করেছে উনার পিতা থেকে:
নবী ﷺ বিদায়ী হজ্জে বলেছেন,
: এটা কোন দিন?
তিন বার জিজ্ঞাসা করলেন।

লোকেরা জবাব দিলো,
: বড় হজ্জের দিন।

: নিশ্চই, তোমাদের রক্ত, মাল, সম্মান হারাম, যেরকম হারাম তোমাদের এই দিন, তোমাদের এই মাসে, তোমাদের এই শহরে।

সাবধান! অপরাধির অপরাধের দায়িত্ব শুধু তার উপর। পিতার অপরাধের দায়িত্ব সন্তানের উপর না, আবার সন্তানের অপরাধের দায়িত্ব পিতার উপর না।

সাবধান! হে উম্মতেরা আমি কি তোমাদের কাছে পৌছেছি?

তারা বললো,
: হ্যা।

উনি ﷺ বললেন,

: হে আল্লাহ! সাক্ষি থাকবেন।
তিন বার বললেন।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৬৩ ]
___________________________________
মা'আফ ইবনে আবি শায়বা - 36463
যে কোন দিন এটা তিনবারের, তারা হজ গ্রেট জানান, ডা (:? আমাদের কাছ থেকে তার পিতা বললেনঃ Shabib বিন Grkdh সুলেইমান ইবনে আমর আবু Ahwas বলুন: আমি শুনেছি রাসূলুল্লাহ (দ) বিদায় হজ্জের মধ্যে বলছেন যদি আপনার ধন-সম্পদ ও সম্মানে এই দিনে যেমন পবিত্র হিসেবে হারাম ? পুলিশের যে আপনার দেশ, না শুধুমাত্র নিজের কমিশন উপার্জন না এ মাসে তিনি তাঁর ছেলে তার পিতা, আমার Omtah না আঘাত না জন্মগ্রহণ না পিতা কাটা নেই তারা বলেছিল: হ্যাঁ, তিনি বলেন, হে আল্লাহ, আমি এরূপ সাক্ষ্য দেব) - তিনবার।
হাদিস - ৫৪
আদ্দা বিন খালিদ বিন হাওদাহ রা: বলেছেন:
নবী ﷺ এর সংগে আমি বিদায় হজ্জ করেছি। দেখেছি নবী ﷺ দুটো বাহনের উপর দাড়িয়ে বলছেন,

: তোমরা জানো এটা কোন মাস? এটা কোন শহর?
তাহলে জেনে রাখো, তোমাদের রক্ত, তোমাদের মাল হারাম যেরকম হারাম তোমাদের এই দিন, তোমাদের এই মাসের মাঝে, তোমাদের এই শহরের মাঝে।

তোমাদের কাছে কি কথাটি পৌছেছি?

: হ্যা।

: হে আল্লাহ! আপনি সাক্ষি থাকেন।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৬৪ ]
___________________________________
মা'আফ ইবনে আবি শায়বা - 36464
আমাদের Wakee আব্দ আল বলুন - মজিদ আবু আমর বলেন, আমি শুনেছি স্প্রিন্টার বেন খালেদ বেন Hozh বললঃ সঙ্গে হজ নবী (দ) ফেয়ারওয়েল হজ, এবং আমি দেখেছি নবী (দ) Alrkaban বিদ্যমান তিনি 
? বলেছেন: (Tdron এই কোনো মাস কোন দেশে হয় ? এই তিনি বলেন: তাহলে আপনার দেশে এই মাসের একটি হরাম দিন হিসাবে আপনার রক্ত ​​এবং আপনার সম্পদ হারাম হবে।
হাদিস - ৫৫
আবু বকর রা: বলেছেন,
রাসুলুল্লাহ ﷺ আমাদের বলেছেন,
: এটা কোন মাস?
: আল্লাহ ও উনার রাসুল ﷺ ভালো জানেন।
এর পর এত লম্বা সময় উনি চুপ করে থাকলেন, যে আমাদের ধারনা হলো উনি হয়তো নতুন কোনো নাম দিবেন।
এর পর উনি বললেন,

: এটা কি জিলহজ্জ মাস না?
: নিশ্চই।
: এটা কোন শহর?
: আল্লাহ ও উনার রাসুল ﷺ জানেন।
এর পর উনি আবার এত লম্বা সময় চুপ থাকলেন যে আমার ধারনা করলাম উনি হয়তো নতুন কোনো নাম রাখবেন।

এর পর বললেন,
: এটা কি হারাম শহর না?
: হ্যা।
: এটা কোন দিন?
: আল্লাহ ও উনার রাসুল ﷺ জানেন।
এর পর উনি আবার এত লম্বা সময় চুপ থাকলেন যে আমরা ধারনা করলাম উনি হয়তো নতুন কোনো নাম রাখবেন।

এর পর বললেন,
: এটা কি কোরবানীর দিন না?
: নিশ্চই, ইয়া রাসুলুল্লাহ!
: তাহলে নিশ্চই তোমাদের রক্ত, তোমাদের মাল, তোমাদের সম্মান তোমাদের উপর হারাম যেরকম হারাম তোমাদের এই দিন, তোমাদের এই শহরে, তোমাদের এই মাসে। এর পর তোমাদের আমলের ব্যপারে তোমাদের জিজ্ঞাসা করা হবে।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৬৫ ]
___________________________________
মা'আফ ইবনে আবি শায়বা - 36465
আমাদের সম্পর্কে নবী (দ) থেকে আবু রীল আইয়ুব ইবনে সীরীন ইবনে আবী রীল Althagafi বলুন বললঃ? (যে কোন চলতি মাসে আমরা বললাম, আল্লাহ ও তাঁর রসূল জানি সে বললঃ? Vskt তাই আমরা ভেবেছিলাম যে, তার নাম ছাড়া মধ্যপন্থী, তিনি বলেন: যুক্তি নয় আমরা বললাম : হ্যাঁ, তিনি বলেন: এই দেশের যা আমরা বলেছেন: আল্লাহ ও তাঁর রসূলের জানি, চুপ করে রইলো যতক্ষণ না আমরা তাঁর নাম ছাড়া মধ্যপন্থী চিন্তা, তিনি বলেন: দেশ নয় আমরা বলেছিলাম: হ্যাঁ, তিনি বললেন, কোন এই দিনে আমরা বলেছেন: আল্লাহ ও তাঁর রসূলের জানেন, তিনি বলেন, চুপ করে রইলো তাই আমরা চিন্তা তার নাম মধ্যপন্থী ছাড়াই বলল, ত্যাগের দিন নয়, আমরা বললঃ হ্যাঁ, হে আল্লাহর রাসূল বলেন: যদি আপনার সম্পদ - মোহাম্মদ বললেন, আমার মনে হয় তিনি বললেন, এবং আপনার সম্মান - আপনি আপনার এই মাসে আপনার দেশে এই এই দিনে যেমন পবিত্র হারাম, এবং Stlqon টি আপনি আপনার কাজের জন্য জিজ্ঞাসা।
হাদিস - ৫৬
হযরত জাবের রা: বলেছেন,
নবী ﷺ হজ্জে বলেছেন,
: তোমরা জানো কোন দিন সবচেয়ে বেশি হারাম?
আমরা বললাম,
: আমাদের এই দিনটি।

: কোন শহর সবচেয়ে বেশি হারাম?
: আমাদের এই শহর।

: কোন মাস সবচেয়ে বেশি হারাম?
: আমাদের এই মাস।

তখন রাসুলুল্লাহ ﷺ বললেন,
: নিশ্চই তোমাদের রক্ত আর মালও হারাম, যেরকম হারাম তোমাদের এই দিন, তোমাদের এই শহরে, তোমাদের এই মাসে।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৬৬ ]
___________________________________
মা'আফ ইবনে আবি শায়বা - 36466
আমাদের আবু সালেহ জাবের আবু সিদ Aloamc বলুন বলেন: নবী (দ) মধ্যে যুক্তি: (তুমি কি জানো সর্বশ্রেষ্ঠ পবিত্রতা এর দিন? তিনি বললেন, আমরা বললাম, এই দিনে, তিনি বলেন: কোন সর্বশ্রেষ্ঠ পবিত্রতা এর ? দেশ আমরা বললাম, এই দেশে, তিনি বলেন: কোন মাস এর পবিত্রতা এর ? সর্বশ্রেষ্ঠ আমরা বলেছিলাম: এই হল আমাদের মাসে সে বললঃ 

রাসূল এর আল্লাহ (R): আপনার সম্পদ হল হারাম যেমন পবিত্র হিসাবে এই আপনার দেশে এই দিনে এ মাসে এর পুলিশের)।
হাদিস - ৫৭
মুররাহ একজন সাহাবী থেকে শুনে বলেছেন:
রাসুলুল্লাহ ﷺ আমাদের মাঝে দাড়ালেন একটা বয়স্ক লাল উটনির উপর। এর পর বললেন,

: তোমরা কি জানো এটা তোমাদের কোন দিন? তোমরা কি জানো এটা তোমাদের কোন মাস? তোমরা কি জানো এটা তোমাদের কোন শহর?
নিশ্চই তোমাদের রক্ত, মাল তোমাদের উপর হারাম যেরকম হারাম এই এই দিন, এই শহরে, এই মাসে।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৬৭ ]
___________________________________
মা'আফ ইবনে আবি শায়বা - 36467
আমাদের Gander বিভাগ আমর বিন বলুন একবার একবার নবী (দ) একজন মানুষ বলেছেন: ভিয়েনা আল্লাহ (R) রাসূল একটি লাল শান্ত উটের পিঠে সওয়ার হয়ে, তিনি বলেন: (তুমি কি জানো এই দিনে আপনি কি জানেন আপনার এই মাস আপনি আপনার দেশের এই কোনো জানেন করবেন?? তিনি বলেন: এই দিনে আপনার দেশে আপনার রক্ত ​​এবং আপনার টাকা হারাম হিসাবে এই দিন)।
হাদিস - ৫৮
যাইদ বলেছেন:
ইমুল যারআর দিনে হুজাইফা রা: কে কেউ বললেন,
: আপনিও কি মানুষদের সঙ্গে বের হবেন না?

উনি বললেন,
: তাদের সাথে আমার বের হওয়ায় কি? আমি জেনেছি যে তাদের মাঝে সামান্য রক্তপাত হবে না, যতক্ষন না তারা ফিরে আসে। তিনি ﷺ যারআর কথা বলেছেন হাদিসে। অনেক হাদিসে।
আমি চাই না যে এর কিছু আমার গায়ে লাগুক, যা তোমাদের ঘরে আছে।
ফিতনার দিকে যে তাকিয়ে দেখবে তাকে ফিতনায় ধরবে।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৬৮ ]
___________________________________
মা'আফ ইবনে আবি শায়বা - 36468
আবু মাউয়িয়া জায়েদ থেকে আল আম্মা সম্পর্কে আমাদের বলেছিলেন: যখন ডোজ দিন ছিল, তখন হুদাহফাহকে বলা হয়েছিল 
: আপনি কি লোকদের সাথে বের হবেন না? তিনি বললেন, "তাদের সাথে কি আমাকে নিয়ে আসে?" আমি শিখেছি যে তারা তাদের কাছ থেকে অনিচ্ছুক Ehricoa করা হয়নি রক্ত যতক্ষণ না তারা ফিরে আসুন, এবং উল্লেখ করা হয়েছে একটি সাম্প্রতিক ডোজ এর অনেক আলাপ: আমি কি করতে চান কি করতে কি আপনার বাড়িতে আমাকে, এটা anticipating এর শত্রুতা envisioned।
হাদিস - ৫৯
হুজাইফা রা: বলেছেন,
: আমার ইচ্ছে হয় আমার সাথে ১০০ জন লোক থাকবে যাদের অন্তর হবে স্বর্নের।
এর পর আমি একটা পাথরের উপর উঠে তাদেরকে হাদিস বর্ননা করবো যে এর পর তারা আর কখনো ফিতনায় পড়বে না।
এর পর অল্প অল্প করে আমি চলে যাবো। আমি আর তাদের দেখবো না, তারাও আমাকে দেখবে না।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৬৯ ]
___________________________________
মা'আফ ইবনে আবি শায়বা - 36469
আমাদের বলুন আবু সিদ উদয় বিন Hubaysh হুযাইফা সম্পর্কে Aloamc বললঃ আমি সোনা এক শত লোক অন্তরে চেয়েছিলেন একটি শিলা উপর প্রতিপালিত সদ্য Vohdthm তাদের রাষ্ট্রদ্রোহ আঘাত না একটি সামান্য বিট যেতে না পরে এবং তারপর আমি দেখতে তাদেরকে আমার দেখতে পাচ্ছি না।
তাদের হৃদয় সোনা হয়। অর্থাৎ তারা যা শোনে তা তারা জানে এবং তারা পালন করে এবং পালন করে।
হাদিস - ৬০
হুজাইফা রা: বলেছেন:
আমি যদি তোমাদের বলি যা আমি জানি, তবে তোমরা তিন ভাগে ভাগ হয়ে যাবে।

এক ভাগ আমাকে কতল করবে।
এক ভাগ আমাকে কোনো সাহায্য করবে না।
আর এক ভাগ আমাকে মিথ্যাবাদী বলবে।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৭০ ]
___________________________________
মা'আফ ইবনে আবি শায়বা - 36470
আমাদের বলুন আবু বকর আমাদের বলেছিলেন Wakee আমাদের বলেছিলেন আবু Albchtera হুযাইফা থেকে Aloamc Almnhal বললঃ আমি যদি তা জানি, তিন দল Afterguetm আগে আপনি কথা বলত: ব্যান্ড Tqatlna, ব্যান্ড আছে Tnasrna, ব্যান্ড Tkzbna না।
হাদিস - ৬১
হুজাইফা রা: বলেছেন,
এক লোকের বিজয়ে যদি উম্মাহ ময়লা হয়, তবে দুই লোক থাকে।
তাদের একজন আশাতীত করেন।
অন্যজন মুশকিলে পড়েন।
যিনি আশাতীত করেছেন, উনি হলেন উমর রা:।
যিনি মুশকিলে পড়েছেন উনি হলেন আলী রা:।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৭১ ]
___________________________________বিজয়ের দ্বারা ময়লা: আরবী টিকাতে লিখা আছে -- বিজয়ে এমন জায়গা থেকে সাহায্য পাওয়া যেটা আসা উচিৎ না।
মাআফ ইবনে আবি শায়বা - 36471
বর্ণনা কর আব্দুল্লাহ বিন Namir Aloamc আমাকে বলেছিল Dirar বিন একবার বলেছিলেন আব্দুল্লাহ বিন Hanadzlah বললঃ হুযাইফা বলেন, শুধুমাত্র একটি জাতি কাউকে Anjsha পেরেক মাত্র দুটি পুরুষদের: তাদের মধ্যে একজন আবির্ভূত হয়েছে, এবং অন্যান্য যা একটি বিবাদে জড়ানোর, হয়, যা Fmr নির্গত, এবং যা একটি প্রকৃত বিরোধে ।
পেরেক অপবিত্র হয়: যে, আপনি জিনিস থেকে পরিত্রাণ পেতে হলে, তার কাছে আসতে তার জন্য অনুমোদিত নয়।
হাদিস - ৬২
ইবনে হানাফীয়া রা: বলেছেন:
আল্লাহ রহম করুন ঐ লোকের উপর যে
তার হাত গুটিয়ে রাখে,
জিহ্বাকে আটকিয়ে রাখে,
অন্তরকে চাহিদাশূন্য রাখে
নিজের ঘরে বসে থাকে
আর তার নিজ দায়িত্ব নিজের উপর।
সে কিয়ামতের দিন ঐ লোকদের সাথে থাকবে, যাদেরকে ভালোবাসা হবে।
সাবধান! মুমিনদের তলোয়ার তাদের দিকে সবচেয়ে দ্রুত আসে।
সাবধান! বিজয় হক্বের জন্য। আল্লাহ তায়ালা যখন চান দিবেন।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৭২ ]
___________________________________
ইসলাম ইবনে আবী শায়বাহ --36,472
হারেস Azdi ইবনে Alhanifp থেকে আমাদের বলুন মুয়াবিয়ার ইবনে হিশাম আমাদের বলেছিলেন সুফিয়ান বিপ্লবী বলেছেন: ঈশ্বর তার হাতের করতল নেতারা মঙ্গল করুন এবং তার জিভ ধরলাম এবং গাত্তয়া নিজেকে তাকে তাঁর ঘরে বসে কি রেফারি, যা কিয়ামতের দিন প্রেম, না ব্যবসার সঙ্গে বিশ্বস্ত খড়্গ চেয়ে তাদের দ্রুততর না রাষ্ট্রের অধিকার সে চায় যদি ঈশ্বরের আসে।
হাদিস - ৬৩
সুনাবিহ রা: বলেছেন,
আমি শুনেছি রাসুলুল্লাহ ﷺ বলেছেন,
: আমি তোমাদের আগে হাউজে থাকবো। আমি তোমাদের সংখ্যাধিক্য দেখে আনন্দিত হবো। আমার পরে তোমরা একে অন্যকে হত্যা করো না।

দ্বিতীয় একটা সুত্র থেকে একই হাদিস বর্নিত হয়েছে।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৭৩ ]
___________________________________
মা'আফ ইবনে আবি শায়বা - 36473
বলুন বিন সুলাইমান Wakee ও ইবনুল উপাসকদের - জন্য মুবারক ইসমাইল কায়েস 

Alsnalake বললঃ আমি তাঁকে বলতে শুনেছি: আমি শুনেছি রাসূলুল্লাহ এর (আমি Frtkm আল্লাহ (রাঃ) বলেন টব, এবং আমি প্রচারিত আপনি আমার পরে জাতির Tguettln করবেন না)। 
আমাদের বলুন ছেলে Namir ও আবু উসামা ইসমাইল কায়েস Alsnalake CSA নবী (দ) জন্য এ ধরনের।
হাদিস - ৬৪
আব্দুল্লাহ বিন ওমর রা: বলেছেন,
রাসুলুল্লাহ ﷺ বিদায় হজ্জে বলেছেন,

সাবধান! আমার পরে তোমরা একে অন্যের ঘাড়ে আঘাত করে কুফরিতে ফিরে যেও না।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৭৪ ]
___________________________________
মা'আফ ইবনে আবি শায়বা - 36474
(শাসিত, অথবা তিনি বললেন: দুর্ভোগ, আপনি ফিরে যেতে না পরে আমাকে কাফের পরস্পর, কিছু ঘাড় হিট) তিনি শুনলেন যে, তাঁর পিতা আব্দুল্লাহ ইবনে উমর থেকে ঘটছে যে, রাসূলুল্লাহ (রাঃ) বিদায় হজ্জের বলেন waked বিন মোহাম্মদ বিন যায়েদ জন্য আমাদের সাথে Gander বিভাগ বলুন।
হাদিস - ৬৫
জারির বলেছেন,
রাসুলুল্লাহ ﷺ আমাকে বলেছেন,
: মানুষ শান্ত হোক।
এর পর মানুষ শান্ত হলে বললেন,
: আমি তোমাদের আশংকা জানাচ্ছি যেটা আমি ভবিষ্যতে দেখছি। তোমরা আমার পরে কুফরিতে ফিরে যাবে। এক দল লোক অন্য দলের গলায় আঘাত করে।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৭৫ ]
___________________________________
মা'আফ ইবনে আবি শায়বা - 36475
বর্ণনা কর আব্দুল্লাহ বিন Namir ইসমাইল কায়েস বলেন, আমরা শুনেছি Jerira বলেন যে, আমাকে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে (R) বলেছেন: (মানুষের Astnst এবং তারপর যখন তিনি এটা বলেন: Aarafnkm রাখার পর চিন্তা কি দেখতে, তুমি আমাকে কাফের পর ফিরে আসব, আপনি কিছু ঘাড়ে হিট)।
আমি আপনাকে জানি না, যদি আপনি কাফেরদের পরে ফিরে আসেন, আপনার ঘাড় কিছু আপনার আঘাত করবে
হাদিস - ৬৬
আবা জুরআহ বিন আমর বিন জারির রা: বলেছেন,
রাসুলুল্লাহ ﷺ বিদায়ী হজ্জে বলেছেন,
: হে মানুষ, চুপ করে মনোযোগ দিয়ে শুনো। আমার পরে তোমরা একে অন্যের গলায় আঘাত করে কুফরিতে ফিরে যেও না।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৭৬ ]
___________________________________গলায় আঘাত করা: হত্যা করা।
মা'আফ ইবনে আবি শায়বা - 36476
Gander বিভাগ আলী বিন সচেতন সম্পর্কে আমাদের বলুন বললঃ আমি শুনেছি আবু সেরহ ইবনে আমর ইবনে জারীর ঘটে যে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে (R) বিদায় হজ্জের বলেন: (মানুষ Astnst এবং বললেন, হে আপনি ফিরে যেতে পরে আমাকে কাফের আপনি কিছু ঘাড়ে হিট)।
হাদিস - ৬৭
হুজাইফা রা: বলেছেন,
রাসুলুল্লাহ ﷺ আমাকে বলেছেন,
আমি তোমাদের আগে হাউজে পৌছে যাবো। আমার কওম নিয়ে আমি ঝগড়া করবো এবং তাদের উপর জয়ী হবো। আমি বলবো,
: ইয়া রব! আমার আসহাব!

আমাকে বলা হবে,
: আপনি জানেন না, আপনার পরে তারা কি করেছে।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৭৭ ]
___________________________________ঝগড়া করবো: আরবী টিকায় বলা আছে, আযাবের ফিরিস্তারা যখন তাদের আগুনের দিকে নিয়ে যেতে থাকবে তখন আমি তাদের আমার সংগে রাখতে চাইবো।
মা'নফ ইবনে আবি শায়বা - 36477
ইবনে ফাদিল হুযায়ফা থেকে একজন শক্তিশালী ভাই সম্পর্কে আমাদেরকে বলেছিলেনঃ আল্লাহর রসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) আমাকে বলেছেন: "আমি তোমাকে বেসিনে ঢেলে ফেলব,
আমি তাদের সাথে আমার সাথে কথা বলবো, আর যন্ত্রণাদায়ক ফেরেশতাদেরকে আগুনে নিক্ষেপ করা হবে।
হাদিস - ৬৮
আনাস বিন মালিক রা: বলেছেন:
রাসুলুল্লাহ ﷺ আমাকে বলেছেন:
কাউছার হলো একটা নহর যেটা আমার রব আমাকে দেবেন বলে ওয়াদা করেছেন।
এতে অনেক ভালো কিছু আছে।
ওটা আমার হাউজ।

কিয়ামতের দিন এখান থেকে আমি আমার উম্মাহর জবাব দেবো।
এর পাত্রের সংখ্যা হলো তারকার সংখ্যার সমান।

কিছু আবদদের এখানে আসতে বাধা দেয়া হবে।

আমি বলবো: এরা তো আমার উম্মত!
আমাকে বলা হবে: আপনি জানেন না আপনার পরে তারা কি করেছিলো।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৭৮ ]
___________________________________
মা'আফ ইবনে আবি শায়বা - 36478
আমাদের কাছ থেকে আনাস ইবনে মালেককে রা মরিচ মনোনীত ছেলের জন্য আলী বিন Msohr বলো, আমাকে বলেছিলেন আল্লাহর রাসূল (দ): (Kawthar নদী এবং আমার প্রতিপালক যে ওয়াদা করেছিলেন, তা ভাল অনেক হয় পরিবাহক্ষেত্র এটি কিয়ামতের আমার দিন সাড়া, তার জাহাজ তারার সংখ্যা, Vijtlj দাস, এঁকে আমি বলে, পালনকর্তা , এটা আমার জাতি, তিনি বলেছেন: আপনি কি জানেন পরে কি ঘটেছে)।
একজন লোক টানা হয়, অথবা একজন চাকর টানা হয়।
হাদিস - ৬৯
উম্মে সালমা রা: বলেছেন,
আমি রাসুলুল্লাহ ﷺ কে শুনেই এই মিম্বরের উপর বলতে
আমি কাউছারে তোমাদের আগেই থাকবো।
যখন আমি সেখানে থাকবো তখন আমি তোমাদের কাছে যেতে গেলে তোমাদের মাঝে একটা দূরত্ব চলে আসবে। আমি ডাক দিবো, তোমরা আসো!

তখন একজন ডেকে বলবে,
: না! তারা আপনার পরে বদলিয়ে গিয়েছিলো।
এর পর আমি বলবো,
: এসো না! তোমরা দুরের লোক! তোমরা দুরের লোক!
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৭৯ ]
___________________________________বদলিয়ে গিয়েছিলো: ধর্মান্তরিত হয়ে গিয়েছিলো।
মা'আফ ইবনে আবি শায়বা - 36479
আমাদের বলুন আব্দুল রহিম বিন সুলায়মান মুহাম্মদ ইবনে ইসহাক আব্দুল্লাহ ইবনে রাফি উম্মে সালামা বলেন: আমি শুনেছি রাসূলুল্লাহ এর আল্লাহ (R) এই প্ল্যাটফর্মে বলেছেন: (আমি তোমাকে Kawthar উপর আগাম, 

Fbana তাকে আমি উপরে Arsala বিপরীত যেমন আছি করতে আপনি, Vonadi: তিনি বলেন, "মিনয়াদ বললেন, 'কিন্তু তারা তোমার পরে পালিয়ে গেছে।'
হাদিস - ৭০
মুররাহ বলেছেন:
রাসুলুল্লাহ ﷺ এর একজন সাহাবি বলছেন:
রাসুলুল্লাহ ﷺ একবার আমাদের মাঝে দাড়ালেন, এবং বললেন:

সাবধান! আমি তোমাদের আগে হাউজে পৌছে যাবো।
তোমাদের দেখবো, এবং তোমাদের বিশাল সংখ্যা দেখে অনন্দিত হবো।
তাই তোমরা আমার মুখকে কালো করো না।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৮০ ]
___________________________________
মা'আফ ইবনে আবি শায়বা - 36480
নবী (দ) একজন মানুষ একবার একবার Gander বিভাগ আমর বিন সম্পর্কে আমাদের বলুন, তিনি বলেন: আমাদের মধ্যে আল্লাহর রসূল (রাঃ) বলেন: (i অববাহিকা উপর Frtkm নই, Onzerkm এবং আপনার Ocather শত্রু আমাকে Tsodoa করবেন না)।
হাদিস - ৭১
উমর রা: আবি মুসা রা: কে লিখে পাঠান,
স্বভাবতঃ মানুষ তাদের সুলতানকে অপছন্দ করে। তাই আল্লাহর কাছে আশ্রয় চাই আমার আর তোমার মাঝে ঘৃনা আসা থেকে,
দুনিয়া দ্বারা প্রভাবিত হওয়া থেকে,
মনের ইচ্ছার অনুসরন করা থেকে।

কাবিলাগুলো একটা অন্যটার বিরুদ্ধে লাগতে যাচ্ছে।
এটাই হলো অহংকার যে শয়তান থেকে আসে।
এরকম হলে: তখন তলোয়ার তলোয়ার, কতল কতল হবে।
তারা বলবে: হে ইসলামের পরিবার, হে ইসলামের পরিবার।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৮১ ]
___________________________________
মা'নফ ইবনে আবি শায়বা - 36481
ওমর আবু মুসা লিখেছেন: আমাদের আবু Albchtera থেকে আতা ইবনে Saa'ib তিনি বলেন থেকে মুহাম্মদ বিন Fadil বলুন Tdrickna তাদের ক্ষমতার মানুষ বিরাগ, Voaoz আল্লাহ ও আপনি পোর্টেবল এবং সর্বনিম্ন প্রভাবশালী অসন্তোষ এবং খেয়ালখুশির অনুসরণ, এবং তিনি উপজাতিদের Stdai, এবং শয়তান এত মহান, এটা Vasif ছিল তলোয়ার, হত্যা হত্যা, তারা বলে: ইসলামের লোকেরা! হে ঈমানদারগণ!
হাদিস - ৭২
উবাই বিন কাব রা: বলেছেন,
আমি শুনেছি রাসুলুল্লাহ ﷺ বলেছেন,
যে তার নিজের গোত্রে দিকে ডাকে, সে যেন তার পিতার অঙ্গ কামড় দিলো। এবং এটা সরাসরি বলো।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৮২ ]
___________________________________
মা'আফ ইবনে আবি শায়বা - 3648২
হযরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস রা। থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে বলতে শুনেছি: (যে ব্যক্তি তার পিতার দ্বারা উপজাতিদের সাথে সাক্ষাত করেছেন এবং আপনি পারবেন না)। 
হযরত আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রাঃ) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ
উপজাতিদের কল করুন: লড়াই করার জন্য তাদের সাথে পরামর্শ করুন, এবং গোত্রগুলি ঘৃণা দ্বারা চালিত হয়।
হাদিস - ৭৩
উমর রা: বলেছেন,
যে তার গোত্রের জন্য গর্বিত হলো সে অংগ কামড় দিয়ে চুষলো।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৮৩ ]
___________________________________
মা'আফ ইবনে আবি শায়বা - 36483
আবু মজলিজের কাছ থেকে ইমরানকে হতাশার কথা বলুনঃ ওমর বললেন: যারা ভিজে বা বাঘের গোত্রের ওপর গর্ব অনুভব করে।
হাদিস - ৭৪
তালহা বিন উবাইদিল্লাহ বিন কুরাইজ বলেছেন:
উমর রা: সেনাপ্রধানদের লিখে দিয়েছিলেন:

যদি গোত্রগুলো একে অন্যের সংগে সংঘর্ষে নামে তবে তলোয়ার দিয়ে তাদের তাড়া করো যতক্ষন না তারা ইসলামের শিক্ষার দিকে ফিরে আসে।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৮৪ ]
___________________________________
মা'আফ ইবনে আবি শায়বা - 36484
তালহা বিন ওবায়দুল্লাহ বিন কুরাইয থেকে মূসা বিন উবাইদা বর্ণনা সম্পর্কে আমাদের বলুন: উমর বাহিনীর প্রধানগণকে লিখেছিলেন: যদি গোত্রগুলি ইসলামের দাওয়াত করার জন্য ফ্ফ্রোহাম তলোয়ার ছড়িয়ে দিয়েছিল।
হাদিস - ৭৫
আবি সালেহ বলেছেন,
যে বললো: হে ওমুকের বংশধর!
তবে সে আগুনের শাস্তির দিকে ডাকলো।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৮৫ ]
___________________________________
মা'আফ ইবনে আবি শায়বা - 36485
আবু সালেহ থেকে কিয়া ক্যালোরিমিটার আবু সাহল আল-আসাদ সম্পর্কে আমাদের বলুন বললঃ বললঃ সে Jthae আগুন আহ্বান হে আল বানি তাই এবং তাই, জন্য।
হাদিস - ৭৬
মাসরুক রা: বলেছেন:
রাসুলুল্লাহ ﷺ বলেছেন:
আমি যেন তোমাদেরকে এই ভাবে না পাই যে আমার পরে তোমরা একদল অন্যদলের ঘাড়ে আঘাত করে কুফরিতে ফিরে গিয়েছো।
কোনো মানুষকে তার ভাইয়ের পাপ বা পিতার পাপের জন্য ধরা হবে না।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৮৬ ]
___________________________________
মা'আফ ইবনে আবি শায়বা - 36486
আমাদের মুসলিম চোরাই মাল থেকে হাফস Aloamc বলুন, বলেন: রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম (R): (এটা Olvenkm না হয়, আপনি পরে আমাকে কাফের আপনি কিছু ঘাড়ে হিট ফিরে আসব, মানুষ তার ভাই কারণে গ্রহণ করা হয় না এবং তাঁর পিতা হারিয়ে)।
কোন ভাইকে বোঝা এবং তার পিতা, আর অজ্ঞতা হিসেবে তাঁর গোত্রের ছেলে সহ্য করতে পারে না।
হাদিস - ৭৭
আব্দুল্লাহ রা: বলেছেন,
শিগ্রই উপেক্ষা করা হবে এবং ঘটনার পূনরাবৃত্তি হবে।
তখন তুমি ধীরে চলবে এবং ভালোর অনুসরন করবে।
খারাপ রাষ্ট্রপ্রধানের মাঝে যতটুকু ভালো আছে, সেটার।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৮৭ ]
___________________________________
মাআফ ইবনে আবি শায়বা - 36487
আমাদের বলুন আবু খালেদ রেড Aloamc Khaithamh কারণ তিনি বলেছিলেন: আব্দুল্লাহ বলেন: এটা সংক্রান্ত ত্রুটিগুলি এবং কিছু Mhbhatt হতে যাচ্ছে, আপনি একটি অনুগামী Baltadh ধার্মিকতা ভাল মন্দ মধ্যে সোজা হতে চেয়ে হইবে।
হাদিস - ৭৮
শায়বি বলেছেন,
এক লোক অন্যকে ডাকলো,
: এই! যে দাব্বার জন্য!

ওমর রা: কে এটা লিখে পাঠনো হলো। উনি জবাব দিলেন,
: তাকে শাস্তি দাও। আর তাকে আদব শিখাও।
দাব্বা তাদের কোনো ক্ষতি করতে পারে না। আর কোনো উপকারও তাদের থেকে নিতে পারে না।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৮৮ ]
___________________________________দাব্বা হলো আরবদের একটা গোত্রের নাম। তাদের পূর্বপুরুষ একজনের নাম থেকে এসেছে।
মাআফ ইবনে আবি শায়বা - 36488
আবু হুসাইনের একজন বন্ধু আল-শাবরী থেকে আমাদের বলেছিলেন যে, একজন লোক বলেছিলেন: "হে লূবার পুত্র, তিনি বললেন: তিনি উমরের কাছে লিখেছিলেন। তিনি বললেনঃ উমর তাকে শাস্তি দেওয়ার জন্য লিখেছেন, অথবা তিনি বলেছিলেন: 'আদবা।
আরবদের একটি গোত্রের নামটি তার পিতামহের নামকরণ করা হয়।
হাদিস - ৭৯
জাইদ বিন থাবিত রা: বলেছেন,
রাসুলুল্লাহ ﷺ একবার বললেন,
আল্লাহর কাছে আশ্রয় চাও প্রকাশ পাওয়া আর গোপন থাকা ফিতনা থেকে।

আমরা বললাম,
আমরা আশ্রয় চাইছি আল্লাহর কাছে, প্রকাশ পাওয়া আর গোপন থাকা ফিতনা থেকে।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৮৯ ]
___________________________________
মা'আফ ইবনে আবি শায়বা - 36489
আমাদের বলুন ছেলে আবু সাঈদ আবু ভেরনার লোক থেকে Jerira জন্য Garret বললঃ বলেন রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে (R) থেকে আমাদের যায়েদ ইবনে সাবিত বলুন: (তাদের এবং উদর প্রলোভনের থেকে আল্লাহর আশ্রয় চাই, আমরা বলেন, আমরা তাদের এবং উদর প্রলোভনের থেকে আল্লাহর আশ্রয় চাই)।
হাদিস - ৮০
আব্দুল্লাহ রা: বলেছেন,
যখন উসমান রা: উনার কাছে হুকুম পাঠালেন মদিনার দিকে বেরিয়ে যেতে।
তখন মানুষেরা উনার কাছে আসলো।

তারা তাকে বললো:
দাড়ান। আপনি বের হবেন না। আমরা আপনাকে নিষেধ করছি।
উনার কাছ থেকে আপনার কাছে অপছন্দনীয় কিছু আসবে না।

আব্দুল্লাহ বললেন:
শিগ্রি ঘটনা ঘটবে এবং ফিতনা দেখা দিবে।
আমি এটা পছন্দ করি না যে আমি প্রথম এটা খুলবো, অথচ উনি আমার আনুগত্য প্রাপ্য।

মানুষ এর পর একে একে চলে গেল এবং উনি বের হলেন।
[ মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা - ৩৬৪৯০ ]
___________________________________
মা'আফ ইবনে আবি শায়বা - 36490
আমাদের বলুন আবু সিদ Aloamc যায়েদ ইবনে ওয়াহাব আব্দুল্লাহ বলেন, যখন তিনি ওসমান পাঠানো তাকে আদেশ শহর লোকদের বাইরে যেতে তাঁর সঙ্গে দেখা এবং তারা তাকে বলেন: আমি বাইরে যেতে না, আমরা Nmnek, তোমাকে ঘৃণা করি, আব্দুল্লাহ কিছু বলেন চেয়ে আপনি আপ করা হয় না: এটা জিনিস এবং সংবেশিত হতে যাচ্ছে থাকলে আমি সর্ব প্রথম খুলুন এবং শক্তি আছে হতে পছন্দ করি না, তিনি বলেন, ব্যক্তি এবং মানুষ তাঁর কাছে আসতে লাগল।

Desktop Site